শুঁটকি নয়, মাছের নৌকায় বিড়াল পাহারাদার!

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮ | ২ কার্তিক ১৪২৫

শুঁটকি নয়, মাছের নৌকায় বিড়াল পাহারাদার!

পরিবর্তন ডেস্ক ২:০৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮

শুঁটকি নয়, মাছের নৌকায় বিড়াল পাহারাদার!

‘শুটকির নৌকায় বিড়াল পাহারাদার, বাংলায় এমন একটি প্রবাদ আছে। এর অর্থ হচ্ছে বিড়ালের কাছে শুঁটকি বা মাছ যেটাই রাখা হোক না কেনো বিড়াল সেটা খেয়ে ফেলবেই। তাই বিড়ালের কাছে মাছ রাখা যাবে না। কিন্তু এমন যদি হয় সত্যি বিড়াল দিচ্ছে মাছের পাহারা! এমন দেখেছেন কখনো? বিড়াল আর মাছের এই বন্ধুত্ব দেখতে পাবেন ভিয়েতনামের হে ফং মাছ বাজারে। এই গম্ভীর বিড়ালই এই বাজারের অন্যতম জনপ্রিয় ফিস ভেন্ডার! গম্ভীর মুখে সদা ব্যস্ত মাছের পাহারায়। দেখতে গম্ভীর হলেও বিষয়টা কিন্তু খুব মিষ্টি। আর তাই এখন হেডলাইনে বিড়াল ‘ডগ’।

আসলে এই বিড়ালটার নামটাই ডগ। বয়স তিন বছর। ভিয়েতনামের মাছ ব্যবসায়ী লি ফঙের কাছেই ছোট থেকে রয়েছে ডগ। লি ফং জানান, কুকুর যেভাবে মুখ হাঁ করে এবং জিভ বার করে শ্বাস-প্রশ্বাস নেয়, এই বিড়ালটিও অনেকটা তেমনই করে। সে কারণেই তার নাম ডগ।

পোশাক এবং হাবেভাবে আগাগোড়া পোক্ত ব্যবসায়ী। ঠিক যেন এক হাত পিছনে রেখে দু’পায়ে সারা মাছ বাজার হেঁটে তদারকি করছে সে। মাঝেমধ্যে মাছ ছাড়াও মাংস এবং সবজি বিক্রি করতেও দেখা যায় তাকে।

তবে এখানে একটা টুইস্ট আছে। মানুষের মতো একহাত পিছনে রেখে হাঁটাহাটি সে করে না। এটা পুরোটাই তার মালিক লি ফঙের কেরামতি। একটু ভালো করে লক্ষ্য করলে বুঝতে পারবেন, ডগের পোশাকটাই এভাবে বানিয়েছেন লি। সামনের দু’টো হাত আসলে নকল।

ডগকে নিয়ে এখন তুমুল ব্যস্ত লি। একদিকে চিত্রগ্রাহকদের হুড়োহুড়ি আর অন্যদিকে বিড়াল মহলে ডগের মহিলা ফ্যান, সামলাতে প্রায় কালঘাম ছুটে যায় তার। হবে নাই বা কেনো? চোখে সানগ্লাস, মাথায় টুপি আর পরনে এমন একটা রাজকীয় পোশাক ডগের ‘ব্যক্তিত্ব’ যে অনেক গুণ বাড়িয়ে দিয়েছে।

ডগের একটা নিজস্ব ইনস্টাগ্রাম পেজ রয়েছে। যার প্রোফাইল নাম ডগ ১৫০১। তাতে গার্লফ্রেন্ডের সঙ্গে ছবিও পোস্ট করে ডগ।

তথ্য ও ছবি: ridus.ru

ইসি/