রোহিঙ্গা নারীদের রূপচর্চায় প্রকৃতির অনন্য উপহার

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫

রোহিঙ্গা নারীদের রূপচর্চায় প্রকৃতির অনন্য উপহার

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:১৮ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২০, ২০১৮

রোহিঙ্গা নারীদের রূপচর্চায় প্রকৃতির অনন্য উপহার

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের চিত্রগ্রাহক ক্লোদাঘ কিলকোয়েন বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের ক্যাম্প ঘুরে সেখানকার মুসলিম মেয়ে শিশু ও নারীদের ঐতিহ্যগত রূপচর্চার চিত্তাকর্ষক ছবির সিরিজ করেছেন। বিবিসি বাংলা অবলম্বনে তা পরিবর্তনের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

বাংলাদেশে আশ্রয় নেবার জন্য পালিয়ে আসা ১০ লাখের ওপর রোহিঙ্গার বেশিরভাগই নারী ও শিশু।

তাদের মুখে ব্যবহৃত এই হলুদ আস্তরটির নাম থানাকা।

থানাকা তৈরি হয় মূলত মিয়ানমারের শুষ্ক অঞ্চলের এক ধরনের গাছের ছাল দিয়ে।

বছরের পর বছর মিয়ানমারের মেয়েরা এভাবেই তাদের মুখমণ্ডল সাজিয়ে থাকে।

শুধু প্রসাধনী হিসেবেই নয়, এই হলুদ আবরণ তাদের কড়া রোদ থেকেও বাঁচায়।

কড়া রোদ আর গরমে ত্বক ঠাণ্ডা রাখে এই প্রাকৃতিক উপাদান।



এই হলুদ আস্তরণ একটা শুকনো সুরক্ষিত স্তর তৈরি করে যা পোকামাকড়ের প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে।

ব্রণরোধেও দারুণ কার্যকরী থানাকা।

মিয়ানমারের এই ঐতিহ্যগত প্রসাধন শরণার্থী শিবিরেই এখন কিনতে পাওয়া যায়।

হাজার দুখ-কষ্টের ক্যাম্পে এই মেকাপের বিষয়টাই যেন খানিকটা স্বাভাবিকতা বয়ে নিয়ে আসে রোহিঙ্গাদের জীবনে।

থানাকা ছাড়া পাহাড়ের মধ্যে রোদে টিকে থাকা অসম্ভব।

এই মেকাপ যেমন তাদের প্রয়োজন, তেমনি তাদের ঐতিহ্যেরও অংশ।

আমি না খেয়ে থাকতে পারি, কিন্তু মেকাপ ছাড়া থাকা অসম্ভব- জোহরা বেগম।

আরপি