মিসরীয় অভ্যুত্থানের ৭ বছর: কেমন আছেন সাবেক স্বৈরশাসক মুবারক?

ঢাকা, শনিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৮ | ৩ ভাদ্র ১৪২৫

মিসরীয় অভ্যুত্থানের ৭ বছর: কেমন আছেন সাবেক স্বৈরশাসক মুবারক?

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:১০ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৮

print
মিসরীয় অভ্যুত্থানের ৭ বছর: কেমন আছেন সাবেক স্বৈরশাসক মুবারক?

২০১১ সালের কথা। তিউনিসিয়ায় শুরু হওয়া আবর বসন্তের (সরকারবিরোধী বিক্ষোভ) ঢেউ কম বেশি আরব বিশ্বের সব দেশেই লাগে। আর এই ঢেউ যেসব দেশে আছড়ে পড়ে তার মধ্যে মিসর অন্যতম। কারণ এই প্রবল ঢেউয়ের তোড়ে টিকতে পারেননি ৩০ বছরের স্বৈরশাসক হোসনি মুবারক।

দেশজুড়ে শুরু হওয়া তুমুল বিক্ষোভের ১৮ দিনের মাথায় ১১ ফেব্রুয়ারি সেনাবাহিনীর কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে বাধ্য হন তিনি। দেখতে দেখতে সাত বছর কেটে গেল। কিন্তু এখন কোথায় ও কেমন আছেন মিসরের লৌহমানব খ্যাত হোসনি মুবারক?

ব্রিটেনভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল-আরাবিয়ার (ইংলিশ ভার্সন) এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ক্ষমতাচ্যুৎ হওয়ার পর বেশিরভাগ সময়ই রাজধানী কায়রোর একটি সামরিক হাসপাতালে আরাম-আয়েশে কাটিয়েছেন মুবারক। যেখানে তিনি ছয় বছরের কারাদণ্ড ভোগ করছিলেন এবং বিভিন্ন অভিযোগে করা অন্যান্য মামলার বিচার চলছিল।

বিক্ষোভকারী হত্যার মামলায় দেশটির উচ্চ আদালত মুবারককে চূড়ান্তভাবে নির্দোষ ঘোষণার পর গত বছরের মার্চ মাসে তাকে মুক্তি দেয় মিসর সরকার। ৮৯ বছর বয়সী মুবারক এখন তার পরিবার নিয়ে সম্পূর্ণ মুক্ত। তিনি এখন কায়রোর হেলিওপোলিস এলাকায় অবস্থিত তার বাগানবাড়ি এবং সমুদ্র সৈকতের পাশে অবস্থিত অবকাশ যাপন কেন্দ্র শার্ম আল-শেখে জীবনের বাকি সময়গুলো খুব সাচ্ছন্দ্যভাবেই কাটাচ্ছেন।

গণঅভ্যুত্থান চলাকালে বিক্ষোভাকারীদের হত্যার প্ররোচণা দেওয়ার অভিযোগে মুবারককে অভিযুক্ত করা হয়। বিক্ষোভে পুলিশের গুলিতে ওই সময় প্রায় সাড়ে আট শ লোক মারা যায়। ২০১২ সালে ওই মামলায় তাকে যাবজ্জীবন সাজা দেওয়া হলেও পরে আপিল কোর্ট মামলাটি পুনঃবিচারের নির্দেশ দেয়। এর দুই বছর পর মামলাটি খারিজ করে দেয় ওই আদালত।

অন্যদিকে, ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে দুর্নীতির মামলায় মুবারক ও তার দুই ছেলের তিন বছর করে কারাদণ্ড বহাল রাখে আপিল আদালত। পরবর্তীতে এ মুক্তি পান মুবারক এবং দুই ছেলে আলা ও জামাল। আগে মুবারকের ছেলেদের বাইরে যাওয়ার ঘটনা ছিল বিরল। কিন্তু এখন নাকি তাদের ফুটবল ম্যাচ, এমনকি রাস্তার ধারের রেস্টুরেন্টে ড্রিংকস করতেও দেখা যায়।

বর্তমানে মিসরের প্রেসিডেন্ট সাবেক সেনাপ্রধান আব্দেল ফাত্তাহ আল সিসি। যাকে মুবারকের প্রতি সহানুভূতিশীল মনে করা হয়। স্বাভাবিকভাবেই মনে করা হচ্ছে, সিসি যতদিন ক্ষমতায় থাকবেন ততদিন মুবারক রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তাতেই কাটিয়ে দিতে পারবেন।

আরপি

 
.


আলোচিত সংবাদ