‘নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম’ নামে বিএনপির নতুন কমিটি

ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

‘নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম’ নামে বিএনপির নতুন কমিটি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ১:০৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৩, ২০১৯

‘নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম’ নামে বিএনপির নতুন কমিটি

দেশের নারী ও শিশুদের অধিকার রক্ষায় অগ্রণী ভূমিকা পালনের লক্ষ্য নিয়ে ‘নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম’ শিরোনামে একটি জাতীয় কমিটি গঠন করেছে বিএনপি।

শুক্রবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন নতুন এ কমিটির ঘোষণা দেয়া হয়।

কমিটির প্রধান উপদেষ্টার দায়িত্ব পেয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।  এছাড়া উপদেষ্টা হিসেবে আছেন-বিএনপি নেতা  এ্যাড. খন্দকার মাহবুব হোসেন, এ্যাড. এ জে মোহাম্মদ আলী, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, এ্যাড. জয়নুল আবেদীন, এ্যাড. রুহুল কবির রিজভী।

কমিটির আহবায়ক হলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য বেগম সেলিমা রহমান, সদস্য সচিব এ্যাড. নিপুন রায় চৌধুরী। সদস্য হিসেবে আছেন-আজিজুল বারী হেলাল, আমিনুল হক , রাশেদা বেগম হিরা, মীর সরফত আলী সপু, অধ্যক্ষ সেলিম ভূঁইয়া, হাবিবুল ইসলাম হাবিব, মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল ,লুৎফর রহমান কাজল , আফরোজা আব্বাস, তাইফুল ইসলাম টিপুসহ  বিএপির ৫০ জন নেতা।

বর্তমান ভয়াবহ অনাচার-দুরাচারের বিরুদ্ধে এটি বিএনপির একটি সামাজিক আন্দোলন হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম এর ৯টি লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য তুলে ধরা হয়।

এর মধ্যে রয়েছে- নারী ও শিশু অধিকার রক্ষার যাবতীয় কার্যক্রমকে শক্তিশালী এবং বেগবান করা। নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে জনগণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করা। দেশের মোট জনসংখ্যার ৬৪ শতাংশ নারী ও শিশু, এই জনগোষ্ঠীর জীবন সামাজিক-অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপটে প্রতিবন্ধকতাপূর্ণ, এদের মধ্যে যারা ভিক্টিম হচ্ছেন তাদেরকে আইনগত ও চিকিৎসাগত সহায়তা দেয়ার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করা। বিশেষভাবে দু:স্থ ভিক্টিমদের শারীরিক ও মানসিক চিকিৎসাসহ সম্ভাব্য আইনগত সহায়তা প্রদান করা।

এছাড়া ভিক্টিম নারী ও শিশুদের মানবাধিকার সমুন্নত রাখা। ‘নারীকে নির্যাতন করা অন্যায়’ এটি পরিবার থেকে শিশুকে শেখানো। নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন আমাদের রাজনৈতিক অঙ্গীকার। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন নারী শিক্ষা ও অর্থনৈতিক কার্যক্রমে ব্যাপক অগ্রগতি সাধিত হয়েছিল এবং এখন এই কমিটির লক্ষ্য নারীর বর্তমান অবস্থা থেকে আরো বেশী ক্ষমতায়নে জনসচেতনতা বৃদ্ধির কার্যক্রমকে অগ্রাধিকার দান। নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে সচেতন যুব সমাজকে সম্পৃক্ত করা।

এছাড়া যেকোন গণমাধ্যমে আলাপচারিতা ও পারস্পারিক কথাবার্তায় যাতে নারী বিদ্বেষী বক্তব্য প্রচার না পায়, সেক্ষেত্রে কার্যকর উদ্যোগ গড়ে তোলা।

কর্মসূচি র মধ্যে রয়েছে- ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও করণীয় নির্ধারণ।   জেলা পর্যায়ের মানববন্ধন/স্বরক লিপি পেশ/বিক্ষোভ মিছিল/জনমত তৈরীর লক্ষ্যে সেমিনার। ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ মহিলা দলের তাৎক্ষনিক কর্মসূচি পালন। আইনজীবী ফোরাম ও মহিলা আইনজীবীদের নিয়ে প্রোগাম।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, বেগম সেলিমা রহমান। এছাড়া অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন নিপুন রায় চৌধুরী।

এমএইচ

 

রাজনীতি: আরও পড়ুন

আরও