এরশাদ ভালো আছেন: জিএম কাদের

ঢাকা, ২১ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

এরশাদ ভালো আছেন: জিএম কাদের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৭:৫৮ অপরাহ্ণ, জুন ২৬, ২০১৯

এরশাদ ভালো আছেন: জিএম কাদের

সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা, সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ভালো আছেন জানিয়েছেন তারই ছোট ভাই দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের।

এরশাদের ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি খন্দকার দেলোয়ার জালালী স্বাক্ষরিত বার্তায় জিএম কাদের জানান, এরশাদ সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন আছেন। তিনি ডাক্তারদের তত্ত্বাবধানে নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) চিকিৎসা নিচ্ছেন।

বড় ভাই এরশাদের সুস্বাস্থ্যতা এবং রোগমুক্তির জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া প্রার্থনা করেছেন জিএম কাদের।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার রাত আড়াইটার দিকে তিনি শারীরিকভাবে সামান্য অসুস্থ অনুভব করেন। এ সময় তার পাশে আপনজন কেউ ছিলেন না। সেবার জন্য নিয়োজিত কয়েকজন ব্যক্তিগত সহকারীসহ গৃহকর্মীরা তার পাশেই ছিলেন।

বুধবার সকালে অবস্থার অবনতি হলে সিএমএইচে নেয়া হয়। সকাল ৯টায় তাকে হাসপাতালে নেয়া হলে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

এরশাদের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, স্যারের অবস্থা সংকটাপন্ন। হাসপাতালে ভর্তি আছেন। ডাক্তাররা উন্নত চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন। আল্লাহর কাছে দোয়া করি উনি দ্রুত সুস্থ হয়ে আমাদের মাঝে মাঝে ফিরে আসুন।

দেশের বাইরে নেয়া হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, সিএমএইচএ ডাক্তার যে পরামর্শ দিবেন সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। ডাক্তার যদি মনে করেন দেশের বাইরে নেয়া প্রয়োজন তাহলে নেয়া হবে।

একাদশ জাতীয় নির্বাচনের আগে গত বছরের ২০ নভেম্বর ইমানুয়েল কনভেনশন সেন্টারে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সামনে সবশেষ আনুষ্ঠানিক বক্তব্য রাখেন এরশাদ। এরপর অসুস্থতার কারণে আর কোনো কর্মসূচিতে অংশ নেননি তিনি। ৬ ডিসেম্বর গাড়িতে করে অফিসের সামনে এলেও সেখানে বসে কথা বলেই চলে যান।

১০ ডিসেম্বর চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে যান এরশাদ। ভোটের মাত্র ৩ দিন আগে ২৬ ডিসেম্বর দেশে ফিরলেও নির্বাচনী ক্যাম্পেইনে যোগ দেননি। এমনকি নিজের ভোটও দিতে যেতে পারেননি সাবেক এই রাষ্ট্রপতি।

ভোটের পর শপথ নেন আলাদা সময়ে গিয়ে। সেদিনও স্পিকারের কক্ষে হাজির হয়েছিলেন হুইল চেয়ারে বসে। ২০ জানুয়ারি ফের সিঙ্গাপুরে যান চিকিৎসার জন্য। সেখান থেকে ফেরেন ৪ ফেব্রুয়ারি। তবে এখনও কোন রাজনৈতিক কর্মসূচিতে তাকে দেখা যায়নি। সংসদ অধিবেশনে মাত্র একদিনের জন্য হাজির হয়েছিলেন তাও হুইল চেয়ারে ভর করেই।

অনেক দিন ধরেই অনেটাই জনসম্মুক্ষে আসছেন না সাবেক এই রাষ্ট্রপতি। হাসপাতাল ও বাসার মধ্যেই সীমাবদ্ধ তার দৈনন্দিন জীবন। কূটনৈতিকদের সম্মানে আয়োজিত ইফতারে যোগ দিয়েছিলেন কয়েক মিনিটের জন্য।

এমএইচ/এসবি

 

রাজনীতি: আরও পড়ুন

আরও