‘কোনো সংস্থার সঙ্গে বিএনপির যোগাযোগ নেই’

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ | ৪ মাঘ ১৪২৫

‘কোনো সংস্থার সঙ্গে বিএনপির যোগাযোগ নেই’

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৬:৫৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০১৮

‘কোনো সংস্থার সঙ্গে বিএনপির যোগাযোগ নেই’

বিশ্বের কোনো সংস্থার সঙ্গে বিএনপির কোনো ধরনের যোগাযোগ নেই বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার বিকেলে চেয়ারপারসনের গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা জানান।

আইএসআই’র প্রতিনিধির সঙ্গে তারেক রহমান ও বিএনপি নেতারা পাকিস্তান হাইকমিশনে বৈঠক করেছেন— আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এই অভিযোগের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনে বিশ্বাসী গণতান্ত্রিক দল। কোনো সংস্থা বা দেশের সঙ্গে যোগাযোগ করে অন্য উপায়ে ক্ষমতায় আসতে চায় না।’

তিনি বলেন, ‘ওবায়দুল কাদেরের মতো দায়িত্বশীল মন্ত্রী ও একটি দলের সাধারণ সম্পাদকের মুখে এমন কথা বেমানান।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এ ধরনের কোনো বৈঠক বিএনপির সঙ্গে হয়নি। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে জড়িয়ে যে সংবাদ পরিবেশিত হয়েছে, তা মিথ্যা, ভিত্তিহীন। এটি শুধুমাত্র বিএনপিকে হেয় করার জন্য প্রচার করা হয়েছে। আমরা এর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’

কবে প্রচারণা, সিদ্ধান্ত হয়নি
নির্বাচনের মাঠ সমতল নেই অভিযোগ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমরা এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে ধানের শীষের নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা শুরু করতে পারেনি। আমাদের নানাভাবে বাধা দেয়া হচ্ছে। এজন্য সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি। আজ প্রতীক বরাদ্দ হবে। শিগগিরই সিদ্ধান্ত নিয়ে জানিয়ে দেয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা একটি অসমতল ভূমিতে নির্বাচনে অংশ নিতে যাচ্ছি। সরকার অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে আমাদের বিরুদ্ধে জঘন্য রকমের অপপ্রচার চালাচ্ছে। সরকারি অর্থে সোশ্যাল মিডিয়ায় এসব অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘অনলাইন অ্যাক্টিভিস্টদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। ডিজিটালের কথা বলে তারা ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন ও ৫৭ ধারা করেছে। এর মাধ্যমে মুক্ত ও স্বাধীন চিন্তার মানুষদের আটক করা হচ্ছে।’

হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের সামাজিকভাবে হেয় করার জন্য অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। আমরা এখন এসবের বিরুদ্ধে মামলা শুরু করব, আইনি ব্যবস্থা নেব। আমরা দেখব, সরকার আমাদের মামলার পর কী ব্যবস্থা নেয়?’

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করেন, ‘খালেদা জিয়া জামিন পাওয়া সত্ত্বেও তাকে মুক্তি দেয়া হয়নি। বাংলাদেশকে যদি রক্ষা করতে চান, তাহলে প্রচার-প্রচারণার সুযোগ দিন। অন্যথায় দেশ এক ভয়াবহ পরিস্থিতির সম্মুখীন হবে।’

তিনি বলেন, ‘কিছুদিন আগে বেশ কয়েকটি অনলাইন গণমাধ্যম বন্ধ করার সুপারিশ করা হয়েছিল। আজ পরিবর্তন, শীর্ষনিউজ, ঢাকাটাইমস, প্রিয় ডটকমসহ ৫৮টি অনলাইন মিডিয়া বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। আমরা এ সিদ্ধান্তের নিন্দা জানাচ্ছি এবং সাইটগুলো খুলে দেয়ার দাবি করছি।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, ভাইস-চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু, ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ।

এমএইচ/আইএম