জামায়াত-শিবিরের ভোট চাওয়ার অধিকার নেই : রাব্বানী

ঢাকা, ১৬ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

জামায়াত-শিবিরের ভোট চাওয়ার অধিকার নেই : রাব্বানী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ১২:১৭ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০১৮

জামায়াত-শিবিরের ভোট চাওয়ার অধিকার নেই : রাব্বানী

যে জামাত শিবির স্বাধীন বাংলাদেশকে চায়নি, সেই জামাত শিবিরের বাংলাদেশের কোনো নির্বাচনে ভোট চাওয়ার অধিকার নেই বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

রোববার একটি বেসরকারি আয়োজিত ‘টু দ্য পয়েন্ট’ নামে একটি অনুষ্ঠানে নির্বাচন নিয়ে তরুণদের ভাবনা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি এ মন্তব্য করেন।

গোলাম রাব্বানী বলেন, বিএনপি এবং জামাত একে অন্যের পরিপূরক। তারা কখনও আলাদা হতে পারেনি। জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর খুনিদের পুনর্বাসিত করেছিলেন। যুদ্ধাপরাধীদের পুনর্বাসিত করেছিলেন। কিন্তু এরা সবসময় স্বাধীনতার বিপক্ষ শক্তি। যুদ্ধাপরাধী যারা তাদেরকে নিয়ে বিএনপি আবারো জোটের মাধ্যমে ফিরে এসেছে। আমরা সবাইকে বোঝাব, যারা দেশ চায়নি তাদের ভোট চাওয়ার কোনো অধিকার নেই।

একজন রাজনীতিবিদের কাছে ছাত্রসমাজের আশা আকাঙ্খা কি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ছাত্র সমাজ সবসময়ই চায় তাদের নৈতিক এবং যৌক্তিক যে দাবিগুলো রয়েছে রাজনীতিবিদদের মাধ্যমে তাদের সেই চাওয়াগুলো যেন প্রতিফলিত হয়। এটাই তাদের মূল চাওয়া। একজন ছাত্র হিসেবে আমি প্রথমেই চাইবো আমার শিক্ষা ব্যবস্থা যেন আনইন্টারেপ্টেড হয়। যেটা এই সরকারের আমলে হয়ে আসছে। একদিনের জন্যও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বা অন্য কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়নি বা কোথাও কোনো ধর্মঘট হয়নি। কোনো সেশনজট হয়নি। বিএনপি আমলে ৪টা বিসিএস এর মধ্যে দুটো বিসিএস বাতিল হয়েছে অনৈতিকতা ও দুর্নীতির কারণে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুই আমলে ৯টি বিসিএস সম্পন্ন হয়েছে কোনো ধরনের সমস্যা ছাড়া।

ছাত্রদের একটি দাবি রয়েছে চাকরির বয়স ৩৫ করার ব্যাপারে- এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ছাত্রলীগ নৈতিকভাবে এই দাবি সমর্থন করে। এক্ষেত্রে আমি আমার সংগঠনের পক্ষ থেকে তাদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছি ।

ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে আসন্ন নির্বাচনে কি কি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নির্বাচনে ৮টি বিভাগে ১৬ জন সমন্বয়ক নিয়োগ করেছি। ৩০০ আসনে ৩০০ জন সমন্বয়ক থাকবে। যারা প্রার্থী তাদের জন্য সর্বাত্মক সাহায্য করার জন্য আমরা আছি।

এসইউজে/এআরই

 

রাজনীতি: আরও পড়ুন

আরও