‘ভারত ও বাংলা ভাগ’ ভিতর-বাহির

ঢাকা, ২৫ জুন, ২০১৯ | 2 0 1

‘ভারত ও বাংলা ভাগ’ ভিতর-বাহির

রকিবুল হাসান ৩:৩৮ অপরাহ্ণ, জুন ১৯, ২০১৯

‘ভারত ও বাংলা ভাগ’ ভিতর-বাহির

ভারতীয় উপমহাদেশে ধন-সম্পদ লুণ্ঠন আর ব্যবসা-বাণিজ্যের সুযোগ-সুবিধাকে কেন্দ্র করে বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে নানা সময়ে দস্যুপ্রবৃত্তিমনা বিভিন্ন বণিকদল এসেছিল। অস্ট্রিক-দ্রাবিড়দের সময়কাল থেকে শুরু করে ইংরেজ শাসনামল পর্যন্ত এ চিত্র ও উদ্দেশ্য অভিন্ন। এদের মধ্যে হিংস্রতা থেকে শুরু করে কূটকৌশলী-সব ধরনেরই আচরণ ছিল। এ দেশের অর্থ-সম্পদ লুণ্ঠন আর ভোগ করাই তাদের কাছে প্রধান ছিল। দেশটাকে নিজের মনে করে গ্রহণ করেনি কেউই। ব্যতিক্রম ঘটেছে শুধু তুর্কি ও মুঘলদের সময়কালে।

প্রাচীনকাল থেকেই ভারতীয় উপমহাদেশ বিশেষ করে বাংলা ভূখণ্ড ছিল ধন-সম্পদ ও কৃষি পণ্যসামগ্রীতে পূর্ণবতী। আর এসবই হয়েছিল ভারতবর্ষের জন্য সবচেয়ে বড় বিপদের কারণ। ‘অপণা মাংসেঁ হরিণা বৈরী’ চর্যাপদের বহুল পরিচিত এই পঙ্ক্তি যেন রীতিমতো ফলেছিল ভারতবর্ষের ললাটে। হরিণ যেমন তার নিজের সুস্বাদু মাংসের জন্যই নিজে নিজের বিপদের কারণ-নিজের জীবন বিপন্ন হয়, ভারতবর্ষের অবস্থাও তাই ছিল। ভারত তার নিজের রূপ-ঐশ্বর্য-অর্থ-সম্পদ-প্রাচুর্যের জন্য বারবার বহিরাগতদের লোভ আর হিংস্রতার শিকার হয়েছে। দীর্ঘকাল ভারতকে পরাধীনতার নির্মম ও করুণ পরিণতি বহন করতে হয়েছিল।

ভারতবর্ষের পরাধীনতা ও স্বাধীনতা সংগ্রাম নিয়ে অসংখ্য গ্রন্থ রচিত হয়েছে। ভারতবর্ষ প্রকৃত অর্থে কোন সময়কাল থেকে পরাধীনতার শৃঙ্খল পরেছিল, কীভাবে সেই শৃঙ্খল থেকে মুক্তি ঘটানোর চেষ্টা করা হয়েছিল, কারা চেষ্টা করেছিল, কোন নেতাদের প্রধান ভূমিকা ছিল, সেসব নেতা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ব্যক্তিস্বার্থ ও ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখতে কীভাবে নিজেদের ভূমিকা পরিবর্তন করেছিল, লেবাসধারী ভূমিকা গ্রহণ করে সাধারণ মানুষের তৈরি আন্দোলনের সঙ্গে একাত্ম হয়ে নেতৃত্ব হরণ করেছিল, ভারতকে অখণ্ডভাবে স্বাধীন করার প্রত্যয়ে কারা অন্দোলন-সংগ্রাম বিপ্লব করেছিল, আবার তারাই কিভাবে নিজেদের ভূমিকা পরিবর্তন করে নিয়েছিল, কারা বাংলা ভাগের বিপক্ষে জোরালো প্রতিবাদ করেছিল, আবার সেই তারাই কত সহজেই বাংলা ভাগ মেনে নিলেন বা আর এক অর্থে বাংলাকে ভাগ করলেন। এর মূলে ধর্ম বা দ্বিজাতিতত্ত্ব, ব্যক্তি ক্ষমতা ও স্বার্থ কতটা প্রবল ও হিংস্র থাবা ছিল-সুভাস চন্দ্র বসুর মতো মহান নেতা, যিনি দৃঢ়প্রত্যয়ে সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে অখণ্ড ভারতের স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনতে চেয়েছিলেন, তাকে কতভাবে গান্ধী-নেহরু-জিন্নাহর কূট ষড়যন্ত্রের শিকার হতে হয়েছিল-এমনকি দেশ ত্যাগের মতো দুর্ভাগ্যের নির্মম পরিণতি বহন করতে হয়েছিল অখণ্ড ভারতবর্ষের স্বাধীনতা-সংগ্রামে বিশ্বকাঁপানো মহান নেতাজীকে। দেশের স্বাধীনতার জন্য বিপ্লবী বাঘা যতীন, ক্ষুদিরাম বসু, রাশবিহারী বসু, শহীদ তিতুমীর, মাস্টার দা সূর্যসেন, প্রীতি লতাসহ অসংখ্য বিপ্লবী যে অসামান্য ভূমিকা রেখেছিলেন, রক্ত সোপানে লিখে দিয়েছিলেন নিজের জীবন।

ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে অগ্নিস্পর্ধিত কবিতা লিখে জেল খেটেছেন একমাত্র বাঙালি কবি কাজী নজরুল ইসলাম। সবমিলিয়ে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন এবং অখণ্ড ভারতের স্বাধীনতার প্রয়াস, একই সঙ্গে দুর্ভাগ্যক্রমে বাংলাকে ভাগ করে ফেলা-এসবের অসামান্য এক দালিলিক সুবৃহৎ গ্রন্থ ‘ভারত ও বাংলা ভাগ : এক বিয়োগান্তক অধ্যায়’। গ্রন্থটি রচনা করেছেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও গবেষক প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মো. আবদুল্লাহ। তাঁর অক্লান্ত শ্রমসাধ্য এই গ্রন্থ গতানুগতিক ও প্রচলিত বহু ধারণাকে সরিয়ে আলোর মতো পরিষ্কার করে দিয়েছে ভারতবর্ষ কিভাবে স্বাধীন হয়েছিল, ভারতবর্ষকে কিভাবে দ্বিখণ্ডিত করা হয়েছিল, কীভাবে বাংলার বুকে স্বার্থের নীতি ও বিবেকহীন ছুরি চালিয়ে তা ভাগ করা হয়েছিল।

পূর্ব বাংলাকে পশ্চিম পাকিস্তানের সঙ্গে অযৌক্তিকভাবে যুক্ত করে যে পাকিস্তান রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হয়, সেটিও তেইশ বছরের মাথায় মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে দ্বিখণ্ডিত হয়ে বাংলাদেশ নামক স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্রের জন্ম হয়-এ গ্রন্থটি পাঠকের কাছে ভারতবর্ষের ইতিহাস, পরাধীনতার যন্ত্রণা এবং বাংলা ভাগের বিয়োগান্তক বেদনার চিরবহমান রক্তক্ষরণের ছবি হয়ে উঠেছে। গবেষক ও শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মো. আবদুল্লাহ ঐতিহাসিক বহুমুখী ঘটনা ও ধারাবাহিক গতিধারা, বহুমাত্রিক তথ্য-উপাত্ত ও ভারতবর্ষের দালিলিক পর্যায়ের অসংখ্য দেশি-বিদেশি গ্রন্থ, পত্র-পত্রিকা নিবিড় অধ্যয়ন ও তথ্য-উপাত্ত যাচাই-বাছাই করে অনুসন্ধিৎসু দৃষ্টিতে পর্যবেক্ষণ করে নির্মোহ ও নিরপেক্ষ বিচারে প্রকৃত সত্য উদ্ধারে ধ্যানী সাধকের মতো ব্রত নিয়ে কঠিন-কর্মটি সফলভাবে সাধন করতে পেরেছেন।

এই গ্রন্থে দ্রাবিড় অস্ট্রিক আর্য থেকে শুরু করে হিন্দুরা কীভাবে এদেশে এসেছিল, কীভাবে এদেশকে শাসন করেছিল, তাদের কাছে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য কতটা হীনতর ছিল, একই সম্প্রদায়ের মধ্যে উচ্চবিত্ত আর নিম্নবিত্তদের কী ভীষণ রকমের বৈষম্য সৃষ্টি-দ্বন্দ্ব সংঘাত হানাহানি-রক্তপাতের বীজ সেখান থেকেই প্রথম সৃষ্টি-এসবের কঠিন সত্যটি আবিষ্কৃত হয়েছে এই গ্রন্থে। হিন্দু যুগ, মুসলমান যুগ ও ইংরেজ যুগ-এক এক গবেষকের কাছে এক একভাবে মূল্যায়িত বা অবমূল্যায়িত হয়েছে। এ গ্রন্থে এসবের পরিষ্কার বিশ্লেষণ রয়েছে।

হিন্দু শাসকরা কিভাবে শোষণ-শাসন করেছিল, দেশের শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতির প্রতি তাদের কোনো দায়বোধ বা আগ্রহ ছিল না। এমনকি বাংলা ভাষা তারা নিষিদ্ধ করে সংস্কৃতি ভাষাকেই গ্রহণ করতে অধিক আগ্রহী ছিল। তুর্কি ও মুঘলরা এ দেশে আসার পর এ অবস্থার যে পরিবর্তন ঘটেছিল, অর্থনীতি থেকে শুরু করে শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি-সভ্যতার অভূতপূর্ব যে বিকাশ ঘটেছিল এবং শ্রেণিবৈষম্য দূর করে অসাম্প্রদায়িক ভ্রাতৃত্ববোধের যে জাগরণ সৃষ্টি সম্ভব হয়েছিল, তখন নিম্নবর্গের বহু হিন্দু স্বতঃস্ফূর্তভাবে মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করেছিল। প্রকৃত অর্থে এক আলোর যুগ হিসেবে তা প্রতিষ্ঠা পায়।

তুর্কি ও মুঘলরা এদেশে ভিনদেশ থেকে এলেও এ দেশটাকে নিজের দেশ হিসেবে গ্রহণ করে এখানেই স্থায়ী বসতি নির্মাণ করেছিল, এদের সন্তানরাই পরবর্তীতে এদেশটাকে পরিচালনা করেছিল। সে সময়ে হিন্দু-মুসলমানের যে সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্যবোধ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল-ইতিহাসে তা বিরল। মুসলমানরা তাদের ক্ষমতায় হিন্দুদেরও অংশীদারিত্ব করে উদার মানসিকতার পরিচয় দিয়েছিল। তারা এটা মানত, দেশটা শুধু মুসলমানের নয়-হিন্দু-মুসলমান সবার। পরবর্তীতে হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে যে সম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি হয়েছিল-এর মূলেও ছিল একশ্রেণির স্বার্থান্বেষী রাজনীতিকরা।

সাধারণ মানুষের মধ্যে ধর্ম নিয়ে রক্তবীজ বুনে নিজেদের স্বার্থ উদ্ধারে তৎপর ছিল। আর এর মূলে ছিল চতুর ইংরেজ শাসকগোষ্ঠী। এ দেশটাকে তারা শোষণ আর লুণ্ঠনের জন্য বেছে নিয়েছিল, এ দেশটাকে ভাগ করো আর শাসন কর-এটা ছিল তাদের নীতি। আর এদের তাঁবেদারি করেছিল উচ্চবিত্ত হিন্দু শ্রেণি-এসব জটিল সময়কাল ও কুটিল রাজনীতি এবং এর গহীন সত্য লেখক অত্যন্ত সাবলীল ভাষায় স্বচ্ছতার সঙ্গে এ গ্রন্থে তুলে ধরেছেন। ইতিহাস গ্রন্থ বলতে যে গুরুগম্ভীর ভাষা ও তথ্য-উপাত্তে ভরা রসহীন উপস্থাপনা-এ গ্রন্থটি তা থেকে মুক্ত। লেখক গ্রন্থটিতে তথ্য-উপাত্ত যেমন তুলে ধরেছেন, ইতিহাসবিদদের বিভিন্ন মন্তব্য যেমন গ্রহণ করেছেন, তেমনি নিজস্ব বিচারিক ও নির্মোহ যৌক্তিক বক্তব্য উপস্থাপন করে বিচার-বিশ্লেষণের মাধ্যমে সেসব বক্তব্যের সঙ্গে একমত বা দ্বিমত পোষণ করে প্রকৃত সত্য উদ্ঘাটনের প্রয়াস গ্রহণ করেছেন। এবং এই প্রয়াসকে এমনভাবে তুলে ধরেছেন, পাঠকের মুগ্ধ না হয়ে উপায় থাকে না।

লেখকের ভাষার শক্তিতে এটি সুপাঠ্য ইতিহাস গ্রন্থের মর্যাদা লাভ করবে এ আশাবাদ থাকছে। যে কোনো দেশের-যেকোনো কালের ইতিহাসকে সাবলীল ও প্রাণবন্ত ভাষায় গ্রন্থে রূপদান করা সহজসাধ্য নয়। ব্যাপারটি সম্পূর্ণভাবে লেখকের মুন্সিয়ানা বা শিল্পদক্ষতার ওপর নির্ভর করে। এই গ্রন্থের লেখক প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মো. আবদুল্লাহর কাছে সে কাজটি অনায়াসসাধ্য বলেই বিবেচিত হতে পারে। লেখক হিসেবে এটি তার বড় শক্তি। ইতিহাসকে উপন্যাস বা গল্পে রূপদান করা সহজ-সেখানে লেখকের অনেক স্বাধীনতা থাকে।

ইতিহাসের মূল বিষয় সামনে রেখে মনগড়া অনেক ছবি সেখানে যুক্ত করে দুর্দান্ত এক শিল্পকর্ম রচনা করা যেতে পারে। মনে রাখতে হবে, সেটা সৃজনশীল কোনো সাহিত্যকর্ম-ইতিহাসগ্রন্থ নয়। ইতিহাসগ্রন্থ রচনার ক্ষেত্রে লেখকের নিজস্ব স্বাধীনতা বলে কিছু থাকে না। লেখককে পুরো ইতিহাসের ওপর নির্ভর করতে হয়। সেটাকে ভাষার জোরে পাঠককে কতটা আকৃষ্ট করা যায়, অতটুকুই লেখকের শক্তি। ওয়াল্টার স্কটের ‘আইভ্যান হ’, মহাকবি ফেরদৌসের ‘শাহনামা’, শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ‘পথের দাবী’, নজরুলের ‘কুহেলিকা’, ‘অগ্নি-বীণা’, ‘প্রলয়-শিখা’, এমনকি মির মশাররফ হোসেনের বিষাদ-সিন্ধুসহ অনেক গ্রন্থ আছে যা ইতিহাসকে উপজীব্য করে রচিত-কিন্তু এসব গ্রন্থ কালোত্তীর্ণ মর্যাদা লাভ করলেও এগুলো ইতিহাস গ্রন্থ নয়, সৃজনশীল সাহিত্যকর্ম। এসব গ্রন্থের ভাষা যত সহজে কাব্যিক, আবেগময় ও অলঙ্কারের ব্যবহারে পাঠকের মস্তিষ্কের কোষে কোষে প্রবল ঊর্মিমালা তৈরি করা যায়, ইতিহাস গ্রন্থে তা কল্পনা করাও কঠিন। এই কঠিনকে জয় করেছেন গবেষক ড. আবু ইউসুফ মো. আবদুল্লাহ। লেখক এমনভাবে ভাষাকে স্রোতেময়ী করে তুলেছেন পাঠক কখন কিভাবে ইতিহাসের গভীর থেকে গভীরে- একটা পর একটা দরজা খুলে ঢুকে পড়েন, তা তিনি নিজেও হয়তো বুঝতে পারেন না। অথচ এটি পুরোপুরি ইতিহাস গ্রন্থ। লেখকের ভাষাশৈলীতে গ্রন্থটি ইতিহাস গ্রন্থ হয়েও পাঠককে মন্ত্রমুগ্ধের মতো ধরে রাখার ক্ষমতা রাখে।

গ্রন্থটিতে মোট নয়টি অধ্যায় রয়েছে। শুরুতে পটভূমি। নয়টি অধ্যায়ের পরে আছে উপসংহার, পরিশিষ্ট ও গ্রন্থপঞ্জি। ‘সমসাময়িক ভারতীয় রাজনীতিতে সাম্প্রদায়িক প্রভাব’ অধ্যায়ে বর্ণিত হয়েছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যোগদানের পূর্বে ভারতকে অখণ্ড ও অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র করার জন্য সুভাষচন্দ্র বসু যে প্রয়াস গ্রহণ করেছিলেন, তা বিশেষ করে গান্ধী ও নেহরুর অসহযোগিতার কারণে যে বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি তার বিস্তারিত আছে। ‘ভারতে বৈষম্য সৃষ্টি’ অধ্যায়ে বর্ণিত হয়েছে হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে বিরোধ এবং দেশ ভাগের ক্ষেত্রে নেহরু বদ্ধপরিকর অবস্থান এবং এ পরিপ্রেক্ষিতে মুসলমানদের জন্য জিন্নাহর আলাদা রাষ্ট্র গঠনের মতো হঠকারিতামূলক সিদ্ধান্ত গ্রহণের বিষয়। ইংরেজ সরকার প্রথম থেকেই হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে সংঘাত-হানাহানি-বিরোধ সৃষ্টি করার নানা কূটকৌশল গ্রহণ করেছিল, তা অনেকখানি সফলতা পায় এদের ভুল সিদ্ধান্ত গ্রহণের কারণে।

আর এর ফলেই সংঘটিত হয়েছিল কলকাতায় ১৯৪৬ এর ভয়াবহ দাঙ্গা। ‘বঙ্গভঙ্গে ভারতে সাম্প্রদায়িক শক্তির উত্থান’ অধ্যায়ে বিশ্লেষিত হয়েছে ভারত ভাগের কারণে বাংলা ভাগ হয়েছে অনস্বীকার্য এই সত্য। কিন্তু এই ভাগের পেছনে ক্রীড়ানক হিসেবে কারা ছিলেন এবং কাদের স্বার্থে তারা এটা করেছিলেন। ‘বঙ্গভঙ্গ ও দুই বাংলার আর্থ-সামাজিক ব্যবধান’ অধ্যায়ে তথ্য-উপাত্তসহ গবেষক তুলে ধরেছেন দেশভাগের আগে প্রায় দেড়শত বছর অবিভক্ত বাংলার উন্নয়ন তা সম্পূর্ণভাবে পশ্চিম বাংলাকেন্দ্রিক। পূর্ব বাংলা অবহেলিত থেকেছে। দুই বাংলার আর্থ-সামাজিক ব্যবধান যে কত ভয়াবহ ছিল তা এই অধ্যায়ের মূল উপজীব্য।

‘বাংলা ভাগে কেন্দ্রীয় কংগ্রেস ও হিন্দুসভার প্রভাব’ এ অধ্যায়ে সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্পে দ্বিজাতিতত্ত্বেও ভিত্তিতে ভারত ও বাংলা ভাগের মাধ্যমে অখণ্ড ভারত নির্মাণের স্বপ্ন কিভাবে চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে গিয়েছিল এবং এতে কংগ্রেস ও হিন্দুসভার ভূমিকা ও প্রভাব বর্ণিত হয়েছে। ‘বাংলা ভাগ ও দ্বিজাতি তত্ত্ব’ অধ্যায়ে সুভাষচন্দ্র বসুর অখণ্ড ভারতের স্বপ্নপ্রয়াস কিভাবে গান্ধী-নেহরুদের কুটচালের কাছে স্বপ্নভঙ্গের বেদনায় পর্যবসিত হয়েছিল তা বিশ্লেষিত হয়েছে। এ ছাড়াও ‘সুভাষচন্দ্র বসু এবং ভারতবর্ষের স্বাধীনতা’, ‘অবিভক্ত বাংলা আন্দোলন এবং ভারত ও বাংলা ভাগ : প্রকাশিত গ্রন্থ ও পণ্ডিতবৃন্দের মতামত পর্যালোচনা’ এর মতো অতীব গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় রয়েছে এ গ্রন্থে।

গ্রন্থের শুরুতে লেখক যে পটভূমি উপস্থাপন করেছেন তা সমৃদ্ধতর। পুরো গ্রন্থের বক্তব্যকে এতে চমৎকারভাবে তুলে ধরেছেন, সে কারণে মূল গ্রন্থটি পাঠের পূর্বে ‘পটভূমি’ পাঠ করা অতীব জরুরি মনে করি। তাহলে গ্রন্থটি পাঠের আগেই পটভূমি থেকেই পাঠক একটি মূল ধারণা পেয়ে যাবে। যা মূলগ্রন্থ পাঠে পাঠকের দারুণ সহায়ক ভূমিকা রাখবে। পটভূমিতে ভারতে দ্রাবিড়, অস্ট্রিক মাঙ্গোলীয় অবস্থান এবং এদের পরে আর্যদের আগমন ও বসবাস ও হিন্দু ধর্মচর্চা এবং ক্ষমতাপ্রয়োগ। আর্যদের পরে আরব এবং পরবর্তীতে তুর্কি ও মুঘলরা ক্ষমতায় আসে। এরপর ইংরেজ শাসন ও আধিপত্য এবং সম্পদ লুণ্ঠনের ইতিহাস। ভারতবর্ষকে স্বাধীন করার জন্য তখন নানামাত্রিক যেসব আন্দোলন ও বিপ্লব সংঘটিত হয়েছিল-এসব বিষয় ধারাবাহিকভাবে সাবলীলভঙ্গিতে পটভূমিতে রূপ পেয়েছে। এসব বিষয়ই মূল গ্রন্থে অধ্যায় বিভাজনের মাধ্যমে বিস্তারিতভাবে বিশ্লেষিত হয়েছে।

এই গ্রন্থে দুর্লভ অনেক ছবি স্থান পেয়েছে-এক্ষেত্রেও লেখক সচেতনতার পরিচয় দিয়েছেন। ছবিগুলোও প্রকৃত ইতিহাস আবিষ্কার ও প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। গ্রন্থ রচনায় লেখকের নিজস্ব পর্যবেক্ষণ ও মন্তব্য বিশেষভাবে উপস্থাপিত হয়েছে। যা সাধারণত কোনো গ্রন্থে লক্ষ করা যায় না। কারণ নিজস্ব পর্যবেক্ষণ ও সুনির্দিষ্ট মন্তব্য বিশেষভাবে উপস্থাপন করতে হলে লেখকের সাহস ও শক্তি, সঠিক তথ্য-উপাত্তের ব্যবহার এবং অবশ্যই নির্মোহ নিরপেক্ষ বিচারিক ক্ষমতার অধিকারী হতে হয়, না হলে এটি সম্ভব নয়। গ্রন্থের শেষে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি, গ্রন্থের সময়কাল ক্রমানুসারে সাল হিসেবে সাজানো, বিষয়ভিত্তিক পরিভাষা ও গ্রন্থপঞ্জির সংযোজন গ্রন্থটিকে যেমন সম্পূর্ণভাবে পরিপূর্ণ রূপ দিতে সহায়ক হয়েছে, তেমনি গবেষণার গতানুগতিক আঙ্গিক-ধারা থেকে বেরিয়ে নতুনভাবেও যে গবেষণাকর্ম করা যেতে পারে, এ গ্রন্থটি তার প্রতিনিধিত্ব করার ক্ষমতা রাখে। ভারতবর্ষের ইতিহাস ও বাংলা ভাগের ভিতর-বাহির নান ঘটনা সংবলিত এটি একটি আদর্শ গ্রন্থ হিসেবে বিবেচিত হতে পারে।

রকিবুল হাসান : অধ্যাপক ও কবি-কথাসাহিত্যিক-গবেষক
[email protected]

 

মতান্তর: আরও পড়ুন

আরও