পাপুয়া নিউগিনিতে বন্দুকধারীর হামলায় নারী, শিশুসহ ১৮ জন নিহত

ঢাকা, ১৮ আগস্ট, ২০১৯ | 2 0 1

পাপুয়া নিউগিনিতে বন্দুকধারীর হামলায় নারী, শিশুসহ ১৮ জন নিহত

পরিবর্তন ডেস্ক ৭:৪৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ১০, ২০১৯

পাপুয়া নিউগিনিতে বন্দুকধারীর হামলায় নারী, শিশুসহ ১৮ জন নিহত

পাপুয়া নিউগিনির একটি প্রত্যন্ত গ্রামে বন্দুকধারীদের হামলায় নারী ও শিশুসহ ১৮ জন নিহত হয়েছেন। জাতিগত বিরোধের কারণে এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বুধবার দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেমস মারাপে হত্যাকারীদের খুঁজে বের করে শাস্তি দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

পাপুয়া নিউগিনির কেন্দ্রীয় অঞ্চলে হেলা প্রদেশে এই ঘটনা ঘটেছে। সেখানকার গভর্নর ফিলিপ উনদিয়ালু রয়টার্সকে টেলিফোনে বলেন, 'এটি অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা।'

ফেসবুক পোস্ট করা ছবিতে দেখা যায় কয়েকটি শিশুসহ নিহতদের কাপড়ে মুড়ে রাস্তার পাশে রাখা হয়েছে।

উনদিয়ালু বলেন, দেশটির রাজধানী পোর্ট মোরেসবি থেকে উত্তরে কারিদা গ্রামে বন্দুকধারীরা ঠিক কী কারণে এই হামলা চালানো হয়েছে তা জানা যায়নি। তবে, সেখানে বছরের পর বছর ধরে চলমান জাতিগত বিরোধ সম্প্রতি আবার প্রকট আকার ধারন করেছে।

যাদের ওপর হামলা করা হয়েছে তারা কয়েক সপ্তাহ আগে আরেকটি সহিংসতার স্বীকার ব্যক্তিদের আশ্রয় দিয়েছিল বলে জানান তিনি।

'আগের একটি হামলার জেরে এই হামলা চালানো হয়েছে। এটা খুব অতর্কিত হামলা ছিল,' বলেন তিনি।

সম্প্রতি বেড়ে বৃদ্ধি পাওয়া সহিংসতায় এখন পর্যন্ত ২৪ জন নিহত হয়েছে বলে জানান উনদিয়ালু।

'দুটি হামলাই চালানো হয়েছে নির্দোষ একটি জনগোষ্ঠীতে, যেখানকার মানুষ এটা মোটেও আশা করেনি। আমরা সবাই এতে স্তম্ভিত হয়ে গেছি,' যোগ করেন তিনি।

দেশটির প্রধানমন্ত্রী মারাপে হত্যাকারীদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, 'আগে আমি অন্যের কাছে জবাবদিহি করতাম কিন্তু এখন নিষ্পাপ নিহতদের ছাড়া আর কারও কাছে আমার জবাবদিহি করার নেই। আমি সবচেয়ে কঠোর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পিছপা হব না।'

মে মাসে ক্ষমতার আসার পর মারাপে ওই এলাকায় বহুদিন ধরে পুলিশ বাহিনীর স্বল্পতাকে অন্যতম সমস্যা হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন।

এমআর/ এসবি

 

উত্তর আমেরিকা: আরও পড়ুন

আরও