ফের বাণিজ্য আলোচনায় সম্মত ট্রাম্প-শি

ঢাকা, ২ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

ফের বাণিজ্য আলোচনায় সম্মত ট্রাম্প-শি

পরিবর্তন ডেস্ক ৮:৩১ অপরাহ্ণ, জুন ২৯, ২০১৯

ফের বাণিজ্য আলোচনায় সম্মত ট্রাম্প-শি

যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের বাণিজ্য সম্পর্ক নিয়ে আবারও আলোচনা শুরু করতে সম্মত হয়েছেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

দুই দেশের চলমান বাণিজ্য যুদ্ধে সারা বিশ্বেরই অর্থনীতির গতি ধীর হয়ে যাওয়ার পর নতুন করে বৈঠকে সম্মত হলেন এই দুই নেতা।

জাপানে জি-২০ সম্মেলন চলাকালে পৃথক এক বৈঠকে নতুন করে আলোচনায় বসতে সম্মত হন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও প্রেসিডেন্ট জিনপিং।

ট্রাম্প জানান , তাদের কথোপকথন ছিল ‘অতি চমৎকার।’

আগে তিনি চীন থেকে আমদানিকৃত পণ্যের ওপর আরও অতিরিক্ত ৩০ হাজার কোটি ডলারের শুল্ক আরোপের হুমকি দিয়েছিলেন।

তবে জাপানের ওসাকায় জি-২০ সম্মেলনের বৈঠকের পর ট্রাম্প নিশ্চিত করেন, ওয়াশিংটন নতুন করে কোনো শুল্ক আরোপ করবে না।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট আরও জানান, যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানিগুলো চীনের প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ের কাছে তাদের পণ্য বিক্রি করতে পারবে। জাতীয় নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে ওয়াশিংটন হুয়াওয়ের সঙ্গে বাণিজ্যের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল।

ট্রাম্পের নতুন এই পদক্ষেপ বেইজিংয়ের জন্য বিরাট এক অগ্রগতি বলে জানান বিবিসির প্রতিবেদক রুপার্ট উইংফিল্ড হেইস।

চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বৃহত্তর বাণিজ্য যুদ্ধের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে হুয়াওয়ের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা।

গত মাসে আরোপিত এই অবরোধে বিশেষ লাইসেন্স ছাড়া হুয়াওয়ের কাছে পণ্য বিক্রি মার্কিন কোম্পানিগুলোর জন্য নিষিদ্ধ করা হয়। ফলে গুগলসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পণ্য বা অ্যাপ হুয়াওয়ে কিনতে না পারায় হুয়াওয়ের ফোনগুলোর কার্যকারিতা ও জনপ্রিয়তা কমে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়।

মার্কিন অবরোধের কারণে এ বছর ইতোমধ্যেই হুয়াওয়ের তিন হাজার কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। একই সঙ্গে দুই দেশের মধ্যে ‘প্রযুক্তিগত ঠাণ্ডা যুদ্ধ’ শুরু হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছিল।

কিন্তু মার্কিন কোম্পানিগুলোর জন্য হুয়াওয়ের পণ্য কেনা এখনও নিষিদ্ধ, কারণ যুক্তরাষ্ট্র চীনের প্রতিষ্ঠানটির পণ্যগুলোকে তাদের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি মনে করে।

অর্থাৎ, যুক্তরাষ্ট্রের নতুন পদক্ষেপে হুয়াওয়ের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধ সম্পূর্ণ মিটে যাচ্ছে না। যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যেকার বাণিজ্য আলোচনার একেবারে শেষে হুয়াওয়ের বিষয়টি বিবেচনা করা হবে বলে ট্রাম্প জানিয়েছেন।

এমআর/এইচআর

 

উত্তর আমেরিকা: আরও পড়ুন

আরও