গণতন্ত্রের অবস্থা নিয়ে অসন্তুষ্ট বিশ্বের বহু মানুষ: পিউ রিসার্চ

ঢাকা, ২ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

গণতন্ত্রের অবস্থা নিয়ে অসন্তুষ্ট বিশ্বের বহু মানুষ: পিউ রিসার্চ

পরিবর্তন ডেস্ক ৪:০৮ অপরাহ্ণ, মে ০৭, ২০১৯

গণতন্ত্রের অবস্থা নিয়ে অসন্তুষ্ট বিশ্বের বহু মানুষ: পিউ রিসার্চ

রাজনৈতিক নেতৃবর্গের প্রতি রাগ, অর্থনৈতিক অসন্তোষ, এবং দ্রুতগতির সামাজিক পরিবর্তন সম্প্রতি বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে রাজনৈতিক অভ্যুত্থানে ইন্ধন জুগিয়েছে। ডান ও বামপন্থি উভয় ধরনের রাজনৈতিক গোষ্ঠী থেকেই উঠে এসেছে প্রতিষ্ঠানবিরোধী নেতা, দল এবং আন্দোলন। কয়েকটি ক্ষেত্রে তারা লিবারেল গণতন্ত্রের মৌলিক কিছু আদর্শকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছে।

সম্প্রতি মার্কিন গবেষণা সংস্থা পিউ রিসার্চ সেন্টার জানিয়েছে, ফ্রিডম হাউজ থেকে শুরু করে ইকোনমিক ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের মতো বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং ভি-ডেমের মতো বিভিন্ন প্রকল্প বিশ্ব জুড়ে গণতন্ত্রের অবনতি নথিবদ্ধ করেছে।

গত ২৯ এপ্রিল পিউ রিসার্চ জানায়, ইতিমধ্যেই তাদের বিভিন্ন জরিপে দেখা গেছে লিবারেল ডেমোক্রেসি বা উদারনৈতিক গণতন্ত্রের মূল ধারণাগুলো মানুষের মধ্যে এখনও জনপ্রিয় থাকলেও গণতন্ত্রের প্রতি তাদের আস্থা দুর্বল হয়ে গেছে।

কয়েকটি কারণে এই আস্থা কমে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে, যার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে গণতন্ত্র কতটা কার্যকর হচ্ছে তা নিয়ে মানুষের ধারণা। পিউ রিসার্চের নতুন একটি জরিপে দেখা যাচ্ছে, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার কার্যকারিতা সম্পর্কে নেতিবাচক মনোভাব প্রকাশ করছে অনেকগুলো দেশের মানুষ।

সাতাশটি দেশে জরিপ পরিচালনা করে দেখা যায় প্রায় ৫১% মানুষ তাদের দেশের যেভাবে গণতন্ত্র কাজ করছে তা নিয়ে সন্তুষ্ট নন। অন্যদিকে ৪৫% মানুষ এসব ব্যবস্থায় সন্তুষ্ট।

একেক দেশের গণতন্ত্রের কার্যকারিতার মূল্যায়ন একেক রকম। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, ইউরোপের সুইডেন ও নেদারল্যান্ডের প্রতি দশ জনে ছয় জনেরও বেশি মানুষ গণতন্ত্রের বর্তমান অবস্থায় সন্তুষ্ট। অন্যদিকে, ইতালি, স্পেন ও গ্রিসের অধিকাংশ মানুষ এমন ব্যবস্থায় অসন্তুষ্ট বলে জানায় পিউ রিসার্চ।

গণতন্ত্রের বিষয়ে মানুষের অসন্তোষের বিষয়টি আরও ভালো করে বুঝার জন্য পিউ রিসার্চ ২৭টি দেশের মানুষকে তাদের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সামাজিক ও নিরাপত্তা সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্ন করে।

জরিপের ফলাফলে জনগণের হতাশার কয়েকটি উল্লেখযোগ্য দিক উঠে এসেছে: বেশিরভাগ মানুষ মনে করে নির্বাচনের ফলে বিশেষ কোনও পরিবর্তন আসে না, রাজনীতিবিদরা দুর্নীতিগ্রস্ত ও জনগণের সঙ্গে তাদের কোনও সম্পর্ক নেই, এবং আদালতে মানুষ সুবিচার পাচ্ছে না। অন্যদিকে, রাষ্ট্র যেভাবে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা দেয়, অর্থনৈতিক সুযোগ দেয়, এবং মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে তা ইতিবাচকভাবে দেখছে মানুষ।

এমআর/এএসটি

 

উত্তর আমেরিকা: আরও পড়ুন

আরও