শিক্ষামন্ত্রীর সাথে অনশনরত শিক্ষকদের আলোচনা ব্যর্থ (ভিডিও)

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫

শিক্ষামন্ত্রীর সাথে অনশনরত শিক্ষকদের আলোচনা ব্যর্থ (ভিডিও)

তাসলিমুল আলম তৌহিদ ৫:৪২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৪, ২০১৮

শিক্ষামন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর সাথে জাতীয়করণের দাবিতে আন্দোলনরত বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষকদের আলোচনা ব্যর্থ হয়েছে। ফলে শিক্ষকরা তাদের চলমান আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন। সভাপতি মো. রুহুল আমিন পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, আমরা ২১ জনের একটি প্রতিনিধিদল বিকেল ৩টা থেকে ৪টা পর্যন্ত শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, মাদ্রাসা ‍ও কারিগরি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী কেরামত আলী, মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠকে বসি। মন্ত্রী মহোদয় আমাদেরকে বলেছেন, ‘আমরা প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীর সাথে কথা বলে আপনাদের বিষয়টি সমাধান করবো। তাই আপনারা ঘরে ফিরে যান।’ কিন্তু আমরা তার কথায় কোনো রকম আশ্বস্ত হতে পারিনি।

সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক কাজী মোখলেছুর রহমান বলেন, 'মন্ত্রীর কথায় আমরা আশাহত হয়েছি। তাই আমরা আমরণ অনশন কর্মসূচি অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।'

মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক রেজিস্ট্রেশনপ্রাপ্ত সকল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা জাতীয়করণের দাবিতে রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আমরণ অনশন  ষষ্ঠ দিন পার করছেন শিক্ষকরা। অনশনের কারণে এ পর্যন্ত ১৬৫ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এছাড়া ৪ জন মেডিকেলে ভর্তি আছেন।

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের শিক্ষক আবু সাইদ বলেন, অনশনের কারণে এ পর্যন্ত ১৬৫ জন শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। অসুস্থ হওয়ায় ৪৬ শিক্ষককে স্যালাইন দেওয়া হচ্ছে।

 

বিকেল ৫টার দিকে সরেজমিন দেখা যায়, শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে কাজ হয়নি।

এদিকে ছয় দিন ধরে অনশনের কারণে বেশিরভাগ শিক্ষকক শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

আন্দোলনরত শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, একই পরিপত্রে ১৯৯৪ সালে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষকদের বেতন নির্ধারণ করা হয় ৫০০ টাকা। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি ৫ম শ্রেণির কার্যক্রম একই হলেও ২০১৩ সালের ৯ জানুয়ারি ২৬ হাজার ১৯৩টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করে সরকার। এসব বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রতি মাসে ২২ থেকে ৩০ হাজার টাকা বেতন হলেও ১ হাজার ৫১৯টি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষকরা সরকারের থেকে কোনো বেতন পান না।

‘বেতন দাও নইলে ভাত দে, মোগো বেতন নইলে বিষ,’ ‘বেতনবঞ্চিত ৩২ বছর, হামরা খুব কষ্টে আছি’, ‘চাকরি আছে বেতন নাই, এমন কোনো দেশ নাই’, এ ধরনের নানা স্লোগানের প্ল্যাকার্ড হাতে দাবি পূরণের দাবিতে অনশন কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন সারাদেশ থেকে আসা ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক-শিক্ষিকারা।

প্রসঙ্গত, ১ জানুয়ারি থেকে ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত অবস্থান ধর্মঘট পালনের পরও শিক্ষকদের দাবি না মানায় ৯ জানুয়ারি থেকে আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করছেন শিক্ষকরা।

টিএটি/এএল