গ্যারেজে বানানো হতো জাল মেডিকেল সনদ

ঢাকা, শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গ্যারেজে বানানো হতো জাল মেডিকেল সনদ

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৪:৫৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০২, ২০১৯

গ্যারেজে বানানো হতো জাল মেডিকেল সনদ

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ভেতরে থাকা নার্সিং ইনস্টিটিউটের গ্যারেজে ভেতরে বসে পুলিশ কেসসহ বিভিন্ন ধরনের জাল মেডিকেল সনদ তৈরি করা হতো।

সোমবার দুপুরে নার্সিং ইনস্টিটিউট এবং ঢাকা মেডিকেলের বিভিন্ন ওয়ার্ডে অভিযান শেষে এ তথ্য জানান র‍্যাব-৩ এর কোম্পানি কমান্ডার (সিপিসি-২) মেজর জাহাঙ্গীর।

তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে অভিযোগ ছিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের একটি দালাল চক্র দীর্ঘদিন ধরে পুলিশ কেসসহ বিভিন্ন ধরনের জাল মেডিকেল সনদ সরবরাহ করছিল। আর এসব জাল সনদ তৈরি করা হতো গাড়ি রাখার গ্যারেজে বসে।’

মেজর জাহাঙ্গীর বলেন, ‘আমরা জানি যখন কোনো হত্যা বা মারামারির মামলা হয় তখন পুলিশ কেসের জন্য একটি মেডিকেল সনদের প্রয়োজন। কিন্তু মেডিকেল সনদ পাওয়াটা সময়সাপেক্ষ। আর সেই সুযোগটা কাজে লাগিয়ে এই চক্রটি টাকার বিনিময়ে অল্প সময়ের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের জাল সনদ সরবরাহ করছিল।’

এখান থেকে সরবরাহ করা এসব জাল সনদ ব্যবহার করে বিভিন্ন ব্যক্তি ভুয়া এবং ভিত্তিহীন মামলা দিয়ে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করতো বলেও জানান র‍্যাবের এই কর্মকর্তা।

‘এছাড়াও পুলিশ কেসের কাগজ ছাড়াও চক্রটি জন্ম সনদ, মৃত্যু সনদ, অসুস্থতাজনিত ছুটির জন্য সনদ বানিয়েও টাকার বিনিময়ে সরবরাহ করতো। কাজগুলো করার জন্য মেডিকেলের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের সঙ্গে চক্রটি আঁতাত রাখত।’ বলেন র‍্যাব-৩ এর কোম্পানি কমান্ডার।

তিনি আরো জানান, ‘আজকের অভিযানে আমরা এই মেডিকেলের কয়েকজন কর্মকর্তা ও কর্মচারীর নাম পেয়েছি। তাদের বিরুদ্ধেও অভিযান চালানো হবে। অভিযানে আরিফ হোসেন নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ঢাকা মেডিকেল কর্তৃপক্ষ বাদী হয়ে জাল সনদ তৈরি করার দায়ে মামলা করবে।’

পিএসএস/এইচআর

 

জাতীয়: আরও পড়ুন

আরও