প্রধানমন্ত্রীকে বিএনপির চিঠি ‘রাজনৈতিক স্টান্টবাজি’: তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

প্রধানমন্ত্রীকে বিএনপির চিঠি ‘রাজনৈতিক স্টান্টবাজি’: তথ্যমন্ত্রী

সচিবালয় প্রতিবেদক ৩:২১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৮, ২০১৯

প্রধানমন্ত্রীকে বিএনপির চিঠি ‘রাজনৈতিক স্টান্টবাজি’: তথ্যমন্ত্রী

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীকে বিএনপির চিঠি আসলে রাজনৈতিক স্টান্টবাজি ছাড়া আর কিছুই নয়। তারা যে ভারত-বিরোধী রাজনীতি থেকে বের হয়ে আসেনি সেটা সবাইকে বোঝানোর জন্য প্রধানমন্ত্রীকে এ ধরনের চিঠি দিয়েছেন।

সোমবার সচিবালয়ে সমসাময়িক বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিএনপি চিঠি দেওয়াটা কয়েকটি জিনিস প্রমাণ করে। প্রথমত তারা চুক্তি এবং এমওইউর মধ্যে পার্থক্য বুঝতে ব্যর্থ হয়েছে। দ্বিতীয়টি তারা এই চিঠিতে একটিবারও খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি আনেনি। এতে স্বাভাবিকভাবে মনে হতে পারে খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য তারা আদৌ কতটুকু সিরিয়াস? নাকি খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে তারা বাহিরে রাজনীতি করে জনগণের সহানুভূতি আদায় করতে চায় সে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। তাছাড়া তাদের দেওয়া চিঠি প্রমাণ করে তারা ভারত-বিরোধী রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি।

তিনি বলেন, ফেনী নদীর পানির প্রবাহ হচ্ছে ৮ কিউসেক। সেখান থেকে ১ পয়েন্ট ৮২ কিউসেক পানি ভারত খাবার পানি হিসেবে নেবে। এটা মোট পানির ৪০০ ভাগের এক ভাগ। অর্থাৎ পানিপ্রবাহের চারশ ভাগের এক ভাগ এর চেয়েও কম পানি।

হাছান মাহমুদ বলেন, এ উপলক্ষে একটি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। আপনারা জানেন যে, এলপিজি গ্যাস আমরা উৎপাদন করি না, এলপিজি গ্যাস আসে বিদেশ থেকে। আমাদের দেশে এ গ্যাস উৎপাদন হয় খুব সামান্য পরিমাণে। যে এলপিজি গ্যাস আমদানি নির্ভর, সেই এলপিজি গ্যাস প্রক্রিয়াজাত করে আমরা ভারতে রপ্তানি করার জন্য সমঝোতা স্মারক সই করেছি।

মন্ত্রী বলেন, আমরা যেমন বিদেশ থেকে কাপড় এনে গার্মেন্টস রেডিমেড করে এক্সপোর্ট করি, এটি যেমন আমাদের অর্থনীতির জন্য সহায়ক তেমনি এলপিজি গ্যাস ভারতে রপ্তানি থেকে অর্থ আসবে। এর পরেও বিএনপি এসব নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। একই সঙ্গে চট্টগ্রাম এবং মংলা বন্দরের ব্যবহারের জন্য চুক্তি আগেই হয়েছে সেটা নতুন করে হয়েছে ব্যাপারটা তা নয়। সেই চুক্তির আলোকে স্ট্যান্ডার্ড অফ অপারেশনাল প্রসিডিউর হয়েছে অনেক আগেই।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, এই দুটি বন্দর ভারত যদি ব্যবহার করে তাহলে তো আমাদের অর্থনীতি সমৃদ্ধ হবে। কারণ এই বন্দর ব্যবহার করার জন্য তাদেরকে রেভিনিউ দিতে হবে, সেই বন্দরে মালামাল পরিবহনের জন্য টাকা দিতে হবে। এতে আমাদের দেশের ব্যবসায়ীরা সুযোগ সুবিধা পাবেন। এটাতো আমাদের অর্থনীতির সহায়ক, এই কথাটি তারা যে বোঝেন না এটা পরিষ্কার হয়েছে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দেওয়ার মাধ্যমে।

এসএস/এসবি

 

জাতীয়: আরও পড়ুন

আরও