গভীর রাতে কান্নার রোল, ছড়িয়ে ছিটিয়ে রক্তাক্ত শরীর

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গভীর রাতে কান্নার রোল, ছড়িয়ে ছিটিয়ে রক্তাক্ত শরীর

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৪৬ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১২, ২০১৯

গভীর রাতে কান্নার রোল, ছড়িয়ে ছিটিয়ে রক্তাক্ত শরীর

রাত তখন আড়াইটা কিংবা তিনটা হবে। কোথাও কোনো কোলাহল নেই। শুধু ট্রেন চলার শব্দ। হালকা শীতের আমেজ সবাই গভীর নিদ্রায় মগ্ন। হঠাৎ বিকট শব্দ। মনে হলো ট্রেনটি অনেক উঁচু থেকে নিচে নেমে পড়ল। মুহূর্তেই চারিদিকে চিৎকার, কান্নার রোল। আশেপাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে রক্তাক্ত শরীর।

দুর্ঘটনাকবলিত ট্রেন দুইটির বেঁচে যাওয়া যাত্রীরা রাতের সেই বিভীষিকাময় মুহূর্তের বর্ণনা করছিলেন এভাবে। আহত যাত্রীরা ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতাল, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

আমাদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও কুমিল্লা প্রতিনিধি আহতদের সাথে কথা বলে এসব জানান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি জানান, সোমবার রাত ৩টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা উপজেলার মন্দভাগে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস ও ঢাকাগামী তুর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষ হয়। এতে এখন পর্যন্ত ১৬ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে স্থানীয় প্রশাসন। আহত হয়েছেন দেড় শতাধিক যাত্রী।

রেলওয়ে স্টেশন, প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, রাত পৌনে ৩টার দিকে তুর্ণা নিশীথা এক্সপ্রেস মন্দভাগ রেলওয়ে স্টেশনের দিকে যাত্রা করে। ট্রেনটিকে আউটারে থামার জন্য সংকেত দেওয়া হয়। আর উদয়ন এক্সপ্রেস মন্দভাগ রেলওয়ে স্টেশনে প্রবেশ করার পথে ট্রেনটিকে মেইন লাইন ছেড়ে ১ নম্বর লাইনে আসার সংকেত দেওয়া হয়। উদয়নের ছয়টি বগি প্রধান লাইনে থাকতেই তুর্ণা নিশীথার চালক সংকেত অমান্য করে ট্রেনটির মাঝামাঝি ঢুকে পড়ে। এতে উদয়নের তিনটি বগি দুমড়ে-মুচড়ে যায়।

মন্দভাগ রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার মো. জাকের হোসেন চৌধুরী বলেন, তুর্ণা নিশীথা সিগন্যাল অমান্য করায় এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা খান বলেন, এই দুর্ঘটনায় ১৬ জন মারা গেছেন। নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে। ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার তুর্ণা এক্সপ্রেসের লোকো মাস্টার (চালক) সহকারী লোকো মাস্টার (সহকারী চালক) ও গার্ডকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

এদিন উপজেলার মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন।

এ সময় মন্ত্রী রেলপথ মন্ত্রণালয় থেকে নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ১ লাখ করে টাকা করে দেয়া হবে বলে জানান।

এসবি

 

জাতীয়: আরও পড়ুন

আরও