রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর কোনো বিকল্প নেই: অর্থমন্ত্রী

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর কোনো বিকল্প নেই: অর্থমন্ত্রী

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৬:০৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০১৯

রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর কোনো বিকল্প নেই: অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, বাংলাদেশে একে অপরের কষ্টে ব্যথিত হয়। কিন্তু রোহিঙ্গা সমস্যার কারণে তা এখন অনেকটাই হুমকির মুখে। আর তাই বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর কোনো বিকল্প নেই।

শনিবার ওয়াশিংটনে বিশ্বব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে রোহিঙ্গা শরণার্থী বিষয়ক এক গোল টেবিল বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, যেকোনো উপায়ে দ্রুততম সময়ের মধ্যে রোহিঙ্গা নাগরিকদের নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে বিশ্বব্যাংকের সহায়তা চাওয়া হয়েছে। রোহিঙ্গাদের জন্য আমরা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। তাই তাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেওয়া অত্যন্ত জরুরি। এ ক্ষেত্রে কোনো বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়ার সুযোগ নেই, শুধু তাদেরকে ফিরিয়ে নিতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা বিশ্বাস করি বিশ্বব্যাংক বিশ্ববাসীর সঙ্গে আলাপ করে একটা পজেটিভ সিদ্ধান্ত নেবে। ইতোমধ্যে মিয়ানমারের সাথে আমাদের তাদের নিয়ে যাওয়ার চুক্তি হয়েছে, কিন্তু সেখানে কোন টাইম লাইন দেওয়া হয়নি। আশা করি দ্রুত টাইম লাইন আসবে।

মুস্তফা কামাল বলেন, প্রাণভয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা নাগরিকদের বাংলাদেশে মানবিক কারণে আশ্রয় দেয়া হলেও এখন তার উচ্চমূল্য দিতে হচ্ছে। কক্সবাজারসহ ঐ এলাকার পুরো পরিবেশ বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। এতে আমাদের সামাজিকভাবে ও জলবায়ুগত চ্যালেঞ্জ বাড়ছে। আমাদের সামাজিক বন্ধনসহ যে সব ক্ষতি হচ্ছে তা ডলার বা টাকার অংকে পরিমাপ করা সম্ভব নয়। তাই রোহিঙ্গাদের তাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নিয়ে যেতে হবে, এটাই আমাদের প্রধান চাওয়া।

তিনি বলেন, এ জন্য বিশ্বব্যাংক বা অন্য কোনো উন্নয়ন সহযোগির এখাতে আর্থিক সহায়তার বিষয়টি আমরা ভাবছি না। ফলে আমরা ভাবছি তাদের প্রত্যাবাসন ছাড়া কোনো বিকল্প নাই। আশা করি বিশ্বব্যাংক সবার সঙ্গে আলোচনা করে আমাদের কে একটা সুন্দর সমাধানের পথ দেখাবে। এই বিষয়ে বিশ্বের সবাই আমাদের সঙ্গে একমত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এতে চীন, ভারত ও জাপান প্রত্যেকে একেকটি বড় ফ্যাক্টর। ফলে এদেরকে বাদ দিয়ে কিছু করা যাবে না। তারা সব আলাপ আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে বলে আমাদের বিশ্বাস। আমাদের চাওয়া রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরে যাবে। আমরা আর্থ-সামাজিকভাবে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। তাই তাদের নিজ দেশে ফিরে যেতেই হবে। আমরা সকলই একই লাইনে কথা বলেছি।

এফএ/এসবি

 

জাতীয়: আরও পড়ুন

আরও