ভারতকে এলপিজি ও পানি দেয়া নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ব্যাখ্যা

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ভারতকে এলপিজি ও পানি দেয়া নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ব্যাখ্যা

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৮:১৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৯, ২০১৯

ভারতকে এলপিজি ও পানি দেয়া নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ব্যাখ্যা

সম্প্রতি ভারতে এলপিজি রপ্তানি ও ফেনী নদীর পানি দেয়ার বিষয়ে সরকারের কঠোর সমালোচনা শুরু হয়েছে। এ নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাসের সূত্র ধরে বুয়েট ছাত্র আবরারকে পিটিয়েও মারা হয়েছে। সারাদেশ এখন আন্দোলনে উত্তাল। এমন সময় ফেনী নদীর পানি ভারতকে দেয়া ও এলপিজি রপ্তানি করে দেশের স্বার্থ কতখানি সংরক্ষণ হচ্ছে তার ব্যাখ্যা দিলেন খোদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  

বুধবার গণভবনে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৪তম অধিবেশন এবং ভারত সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি।

এতে বাংলাদেশ থেকে ভারতের ত্রিপুরায় বাল্ক এলপিজি রপ্তানি প্রকল্পের উদ্বোধন এবং ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে ফেনী নদী থেকে ১.৮২ কিউসেক পানি সরবরাহের সমঝোতা স্মারক নিয়ে প্রশ্ন করা হয়।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এলপিজি আমদানিকৃত। এটা বোতলজাত করে আমরা সারাদেশে সরবরাহ করি। সেটাই এখন ত্রিপুরায় দিচ্ছি। এতে তো দেশের কোনো ক্ষতি দেখছি না বরং অর্থনৈতিকভাবে আমরা লাভবান হবো।’

ফেনী নদীর পানি নিয়ে তিনি বলেন, ফেনী নদী সীমান্তবর্তী নদী। সীমান্তবর্তী নদীতে দু’দেশের অধিকার থাকে। ভারতের ত্রিপুরার একটি এলাকার মানুষের পান করার জন্য তারা স্বল্প পরিমাণ (১.৮২ কিউসেক) পানি চেয়েছে। সেই খাবারের পানি দিচ্ছি। কেউ যদি পানি পান করতে চায়, আমরা যদি না দেই সেটা কেমন দেখায়?

‘খাওয়ার জন্য এখন তারা ভূগর্ভস্থ পানি তোলে, যেটা উত্তোলনে প্রতিবেশী হিসেবে আমাদের দেশেও প্রভাব পড়ে।’ যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ত্রিপুরা যদি কিছু চায় তাদের দিতে হবে। ’৭১-এ তারা আমাদের লোকদের আশ্রয় দিয়েছে। মুক্তিযোদ্ধের সময় সহায়তা করেছে। সেখান থেকে আমাদের ভালো সম্পর্ক আছে, এটা থাকবে।’

প্রধানমন্ত্রী আরো জানান, ‘বাংলাদেশের কোনো স্বার্থ শেখ হাসিনা বিক্রি করবে, এটা কখনো হতে পারে না, হবেও না। ১৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমরা ভারতের কাছ থেকে ক্রয় করি। এখন আমরা তাদের কাছে এলপিজি বিক্রি করছি। তাদের সঙ্গে আমাদের সীমান্তবর্তী অনেক নদী আছে, যেগুলো যৌথভাবে ডেজিং করার বিষয়েও আমরা ভাবছি।’

এসময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমসহ মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, সরকারের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা ও আওয়ামী লীগ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এসইউজে/এইচআর

 

জাতীয়: আরও পড়ুন

আরও