সম্রাটের ভাগ্যে কী আছে?

ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৪ কার্তিক ১৪২৬

সম্রাটের ভাগ্যে কী আছে?

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৯:৫৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৯

সম্রাটের ভাগ্যে কী আছে?

কী আছে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাঈল চৌধুরী সম্রাটের ভাগ্যে? এ নিয়ে এখনো চলছে কানাঘুষা।

কেউ বলছেন, গ্রেফতার তাকে হতেই হবে। কেউ বলছেন, তাকে গ্রেফতার করে সরকার কি নিজের ক্ষতি করবে? কেউ বলছেন, ইতিমধ্যেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘোষণাটা বাকি মাত্র। এসবই মানুষের মুখের কথা।

তবে গোয়েন্দা সূত্র বলছে, ‘ইসমাঈল চৌধুরী সম্রাট রাজধানীর বনানীতে অবস্থান করছেন। তিনি স্বাভাবিক জীবনযাপন ও চলাফেরা করতে পারছেন। তবে তার গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছে গোয়েন্দা সংস্থা।’

সূত্র জানাচ্ছে, ‘সম্রাটকে নিয়ে সব গুঞ্জনের অবসান হবে মঙ্গলবার। এদিন সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগদান শেষে দেশে ফিরবেন। তার দেশে ফেরার পরই সম্রাটের বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসবে। তিনি যে সিদ্ধান্ত দেবেন, সেটিরই বাস্তবায়ন হবে।’

হুট করেই ১৪ সেপ্টেম্বর রাজধানীর বেশ কয়েকটি ক্যাসিনোতে অভিযান চালায় র‌্যাব। এসময় বিপুল পরিমাণ জুয়ার সরঞ্জাম, মদ ও নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়। ওইদিনই নিজ বাসা থেকে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর থেকে চলছে ‘শুদ্ধি অভিযান’।

ক্ষমতাসীন কয়েক নেতার বাসা থেকেও বিপুল পরিমাণ সোনা ও নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়। আরও অনেক নেতা নজরদারিতে আছেন।

ইতিমধ্যে যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন ও ঢাকা মহানগরের সভাপতি ইসমাঈল চৌধুরী সম্রাটের ব্যাংক হিসাবের লেনদেন স্থগিত করা হয়েছে। নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে তাদের দেশত্যাগে।

এতে আতঙ্ক নেমে আসে রাজনীতিসহ নানা অঙ্গনে। আলোচনা-সমালোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ওঠে আসে এই অভিযান।

এ অভিযান অব্যাহত থাকার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ সবাই বললেও গত কয়েকদিন থমকে আছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ‘প্রধানমন্ত্রীর আসার অপেক্ষায় অভিযান থেমে আছে। উনি আসলে তার নির্দেশনা মেনে সামনে এগুবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।’

এদিকে সম্রাটের বিষয়ে ইতিমধ্যে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘সম্রাটের ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য নেই, আবার তাকে গ্রেফতারের ব্যাপারেও বাধা নেই। তার বিষয়ে তথ্য পেলেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

জানা গেছে, চলমান অভিযানে এ পর্যন্ত ১৭টি মামলা হয়েছে। কোনোটিতে তার নাম নেই। এমনকি অভিযান চালানো ক্যাসিনোগুলোতেও তার সম্পৃক্ততার চিহ্ন নেই। পরিচালনা ও পৃষ্ঠপোষকতা কোথাও তার নাম নেই। এখন পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগও পাওয়া যায়নি। এ কারণে সম্রাট সমর্থকরা বলছেন, সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় ছাড় পেয়ে যেতে পারেন তিনি।

সম্রাটের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে কিছুটা কৌশলে উত্তর দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি  বলেন, ‘অপেক্ষা করেন, যা ঘটে, দেখবেন। সম্রাট বলে কথা না, যে অপরাধ করবে, তাকেই আমরা আইনের আওতায় আনবো।’

এতে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের নেতারা ধরে নিচ্ছেন, যেহেতু অপরাধে সম্পৃক্ত হলেই ধরার কথা বলেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আর সম্রাটের কোনো অপরাধে সম্পৃক্ততার তথ্য র‌্যাবের হাতে নেই। অতএব তিনি ধরাও পড়ছেন না। 

এসইউজে/এইচআর

আরও পড়ুন...
কোথায় আছেন সম্রাট?

 

পরিবর্তন বিশেষ: আরও পড়ুন

আরও