‘রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট ইস্যুতে শুধু পুলিশই জড়িত নয়’

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯ | ২ কার্তিক ১৪২৬

‘রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট ইস্যুতে শুধু পুলিশই জড়িত নয়’

সচিবালয় প্রতিবেদক ১:৪১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯

‘রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট ইস্যুতে শুধু পুলিশই জড়িত নয়’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, কেউ পাসপোর্ট পেতে চাইলে কিন্তু অনেক সংস্থা জড়িত থাকে। আপনি শুধু পুলিশের দিকে ইঙ্গিত করবেন সেটা হবে না। একাজে শুধুমাত্র পুলিশ জড়িত নয়। এখানে স্থানীয় চেয়ারম্যান, জন্মনিবন্ধন যিনি করেন তিনি, ওয়ার্ড কমিশনার এবং যারা জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করেন তারাও জড়িত।

তিনি বলেন, আমরা পরিস্কার বলতে চাই রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট দেওয়ার কাজে যারাই সহযোগিতা করবে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বুধবার সচিবালয়ে দুর্গা পূজায় নিরাপত্তা বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত কমিটির সভা শেষে সাংবাদিকদের করা এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, একাজে শুধুমাত্র আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের দোষারোপ করলে চলবে না। একটি পাসপোর্ট করতে চাইলে সব ধাপ পেরিয়ে তারপর সবশেষ ইনভেস্টিগেশন করে পুলিশ।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এখানে পুলিশ শুধুমাত্র দেখেন যে ব্যক্তি আবেদন করেছেন কাগজের সঙ্গে সেই ব্যক্তির ফিজিক্যালি মিল আছে কিনা। রোহিঙ্গাদের মধ্যে পাসপোর্ট যারা পেয়েছেন বা পাচ্ছেন আমরা সব ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছি যাতে তারা পাসপোর্ট না পায়।

আপনারা জানেন রোহিঙ্গারা যখন আমাদের দেশে প্রবেশ করে তখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে আমরা তাদের বায়োমেট্রিক্স নিয়েছিলাম। আর এটা সম্ভব হয়েছিল ৮ লাখ রোহিঙ্গার। সেই সময়ই তাদের আমরা আইডি কার্ড করে দিয়েছিলাম। কিন্তু এর বাইরে আরও তিন লাখ রোহিঙ্গা সেখানে এসেছে। যাদের আমরা সেই সময় বায়োমেট্রিক নিতে পারিনি। তারা এসব অপকর্মে বেশি জড়াচ্ছে।

তিনি বলেন, বায়োমেট্রিক নেওয়া আট লাখ রোহিঙ্গা যারা পাসপোর্ট নিতে যাচ্ছে তারা কিন্তু আমাদের নেটের সার্ভারে পড়ে যাচ্ছে। আমাদের এ সংক্রান্ত যে সফটওয়্যার আছে সেখানে ইনটিগ্রেটেড হচ্ছে। এবং তাদের আইডেন্টিফাই করা যাচ্ছে।

এসএস/এএসটি

 

জাতীয়: আরও পড়ুন

আরও