ভারত ও চীনের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে যা বললেন কাদের

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ভারত ও চীনের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে যা বললেন কাদের

সচিবালয় প্রতিবেদক ৪:৩৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯

ভারত ও চীনের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে যা বললেন কাদের

ভারত থেকে কোনো সহযোগিতা নিলে তাতে চীনের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি ঘটার কোনো কারণ নেই বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশের এবং জাতীয় স্বার্থে যখন যেখান থেকে যেটা দরকার সেটা সেখান থেকে আমরা নেব।’

মঙ্গলবার সচিবালয়ে চীনের সঙ্গে ভারতের বৈরি সম্পর্কের বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের সম্পর্কের অবনতির আশঙ্কা তুলে ধরে প্রশ্ন করা হলে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আমাদের পররাষ্ট্র নীতির মূল কথা হচ্ছে, ‘সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে শত্রুতা নয়। এখন আমরা একটি উন্নয়নশীল দেশের প্রথম ধাপে এসে পৌঁছেছি। আমাদের আরও সামনে এগিয়ে যেতে হবে। আমাদের উন্নয়ন ও অর্জনে অনেকেরই সহযোগিতা দরকার। সহযোগিতা যারা দিতে পারে তাদের সহযোগিতা আমরা কেন নেব না? আমি টাকা নেব মেট্রোরেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেস ওয়ে করার জন্য। এটা নিতেই পারি সেখানে ভিন্ন কোনো দেশের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতির কিছু নেই।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আজকে বিদ্যুৎ, সমুদ্রবন্দর, এলএনজি টার্মিনাল এবং রূপপুর প্রকল্প সম্পন্ন করতে গিয়ে আমাদের শুধুমাত্র নিজেদের অর্থ যথেষ্ট নয়। আমাদের সহযোগিতা নিতে হবে। আর এখানে আমার দেশ হিসেবে স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের বিষয়টি আমাকেই দেখতে হবে। আমি যেখানে আমার দেশের স্বার্থে এবং জাতীয় স্বার্থে যেটা দরকার এমনকি যে স্বার্থ যেখান থেকে দরকার আমি সেটা নেব।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এতে কারও সাথে সম্পর্কের অবনতি ঘটার কোনো কারণ নেই। আজকে একেবারেই প্রতিবেশী দেশ হিসেবে ভারতের সাথেও আমাদের কিছু বিষয়ে তাদের সহযোগিতা দেয়া-নেয়ার প্রয়োজন আছে। সেখানে কিন্তু চীনের সাথে আমাদের উন্নয়ন-অর্জনে কোনো সহযোগিতা নেয়া মানে ভারতের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি নয়।’

‘ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক এখন বরং ‘উই আর ইনজয়িং বেস্ট অব রিলেশনশিপ’। যেমন ভারতের সঙ্গে সীমান্ত চুক্তি, সমুদ্র চুক্তি, ইনক্লেইভ হস্তান্তর এই কাজগুলো কিন্তু ভারতের সরকারই করেছে। তাদের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি ঘটনার মতো কোনো কারণ এযাব সৃষ্টি হয়নি।’ জানান মন্ত্রী।

কাদের আরো বলেন, ‘ভারতের ভেতরে আসামের যে নাগরিকদের রেজিস্ট্রেশনের ব্যাপারটায় তারা আমাদের আশ্বস্ত করেছে তারা এ বিষয়ে বাংলাদেশের উদ্বেগের কোনো কারণ তারা সৃষ্টি করবে না। আমরা সেটাই আস্বস্ত হয়েছি। এই মুহূর্তে আমাদের সঙ্গে তাদের ভালো সম্পর্ক চলছে। আর প্রতিবেশী সব দেশের সঙ্গে আমরা সম্পর্ক ভালো রাখছি।’

কাদের জানান, ‘পাকিস্তানের সঙ্গে সঙ্গত কারণেই আমাদের সম্পর্কের টানাপোড়েন আছে। তবে আমরা সম্পর্কচ্ছেদ করিনি। নরমালি যে রিলেশনশিপ পাকিস্তানের সঙ্গে থাকার কথা তা নেই তবে একটা রিলেশনশিপ তাদের সঙ্গে আমাদের আছে। আমরা কারও সাথে ঝগড়া করতে চাই না। আমরা জাতীয় স্বার্থে সবার সহযোগিতা চাই।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এখানে টেরোরিজম একটি বিষয় আছে। এখানে আমাদের হ্যান্ড টু হ্যান্ড, সোলডার টু সোলডার একটি সহযোগিতার দরকার আছে। যেমন প্রতিবেশী ভারতের সঙ্গে সেটা আমাদের সবচেয়ে বেশি জরুরি।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আজকে রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারতের পাশাপাশি চীনেরও সহযোগিতা আমাদের দরকার। কাজেই যেখানেই যে বিষয়ে সহযোগিতা দরকার আমরা আমাদের জাতীয় স্বার্থে সেটা গ্রহণ করবো।’

এসএস/এসইউজে/এইচআর

 

জাতীয়: আরও পড়ুন

আরও