জীবিতরা মৃতের তালিকায়! মামলা করবে ইসি

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

জীবিতরা মৃতের তালিকায়! মামলা করবে ইসি

মো. হুমায়ূন কবীর ৭:২৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৭, ২০১৯

জীবিতরা মৃতের তালিকায়! মামলা করবে ইসি

উদ্দেশ্যমূলকভাবে কেউ দ্বৈত ভোটার হলে তার দুইটি জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) লক করে দিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এ বিষয়ে কোনো কোনো ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ভোটারের বিরুদ্ধে মামলাও দিচ্ছে কমিশন। এবার কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধেও মামলা দেবে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি।

সম্প্রতি জীবিত ভোটারের নাম কর্তন করায় এক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা দেওয়ার অনুমতি চেয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে চিঠি দিয়েছে ইসি। নির্বাচন কমিশন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ইসির সহকারী সচিব মো. মোশাররফ হোসেন স্বাক্ষরিত প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে পাঠানো ওই চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার হোসেন মন্ডলপাড়া (উঃ দঃ) (ভোটার এলাকা নম্বর-০০৭৭) নামক ভোটার এলাকায় মোছা. পারভিন আক্তার, সহকারী শিক্ষক, ১নং উজানচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ী ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচি, ২০১৫-এর তথ্য সংগ্রহকারী হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন এবং তার দায়িত্বপ্রাপ্ত ভোটার এলাকার ভোটার মোছা. আমেনা বেগম (এনআইডি নম্বর উল্লেখ রয়েছে) জীবিত থাকা সত্বেও মৃত হিসেবে ভুল তথ্য সংগ্রহ করেন। এ কারণে ওই ভোটারের নাম ভোটার তালিকা হতে কর্তন হয়। এর ফলে সংশ্লিষ্ট ভোটার এনআইডি সুবিধা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।   

ওই কর্মকর্তার নামে মামলা দেওয়ার ‍অনুমতি চেয়ে চিঠিতে আরো উল্লেখ করা হয়, এমন কার্যকলাপ ভোটার তালিকা আইন, ২০০৯-এর ২০ ধারা অনুযায়ী দায়িত্বে অবহেলার সামিল। তাই কমিশন তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়েরের নির্দেশনা দিয়েছেন। 

ভোটার তালিকা আইন, ২০০৯ এর ২০ ধারার (১) এ উল্লেখ করা হয়েছে– যদি কোনো রেজিস্ট্রেশন অফিসার, সহকারী রেজিস্ট্রেশন অফিসার অথবা এই আইন দ্বারা বা ইহার অধীন ভোটার তালিকা প্রণয়ন, পুন:পরীক্ষণ, সংশোধন বা হালনাগাদ সংক্রান্ত কোনো দায়িত্ব পালন করিবার জন্য নির্দেশিত কোনো ব্যক্তি, কোনো যুক্তি সঙ্গত কারণ ছাড়া দায়িত্বে অবহেলা পূর্বক কোনো কাজ বা ইচ্ছাকৃত ত্রুটি-বিচ্যুতির জন্য দোষী হন, তারা হইলে তিনি অনধিক ছয় মাস কারাদণ্ড বা অনধিক দুই হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় পরিচয়পত্র, ভোটার তালিকা এবং নির্বাচন ব্যবস্থাপনায় তথ্য-প্রযুক্তির প্রয়োগ কমিটির সভাপতি নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, কেউ অন্যায় করলে শাস্তি পাবে, এটাই স্বাভাবিক।

ইসি সূত্র জানায়, জীবিত ভোটারের নাম মৃতের তালিকায় যাওয়ার বিষয়টি কমিশনের আমলে রয়েছে। এ বছর ভোটার তালিকা হালনাগাদে জীবিত ভোটারের নাম যেন মৃত ভোটারের নামের তালিকায় না যায়, সেজন্য সতর্ক থাকার জন্য মাঠপর্যায়ে নির্দেশনাও দিয়েছে কমিশন।

ইসি কর্মকর্তারা বলছেন, নির্ভুল ভোটার তালিকা প্রস্তুতে কমিশন কঠোর অবস্থানে রয়েছে। ভুল তথ্য দিয়ে কেউ ভোটার হলে তা ধরা পড়ার সঙ্গে সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ভোটারের বিরুদ্ধে যেমন ব্যবস্থা নিচ্ছে, ঠিক তেমনি এ বিষয়ে কোনো কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতা পেলে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

সূত্র জানায়, বিভিন্ন এলাকার ১৬১ জন জীবিত নাগরিককে মৃত দেখিয়ে ভোটার তালিকা থেকে তাদের নাম বাদ দেয়া হয়েছে। বিষয়টি নজরে আসার পর মাঠপর্যায়ে তা তদন্ত করতে বলেছে কমিশন। এ জন্য সংশ্লিষ্ট সিনিয়র জেলা/জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে নির্দেশনা দিয়ে চিঠিও পাঠানো হয়েছে। তদন্তে গাফলতি বা সংশ্লিষ্টতা পেলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারেন কমিশন।

গত ভোটার তালিকা হালনাগাদে তালিকা থেকে প্রায় সাড়ে ১৭ লাখ মৃত ভোটার বাদ দেওয়া হয়। চিহ্নিত হয় ২ লাখের উপরে দ্বৈত ভোটার।

মাঠপর্যায় থেকে ইসিতে আসা এবারের ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, এখন পর্যন্ত ৬৫ লাখের মতো ভোটারের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। ভোটার তালিকায় প্রায় ১০ লাখ মৃত পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে সোয়া ৪ লাখের উপরে নাম বাদ দিতে ডাটা এন্ট্রি দেয়া হয়েছে। বাকিদের নামও এন্ট্রি দেয়া হচ্ছে।

বর্তমানে ইসির তালিকায় ১০ কোটি ৪২ লাখের মতো ভোটার রয়েছে।

এইচকে/এসবি

আরও পড়ুন....
জীবিত ভোটার যেন মৃত না হয়, মাঠে ইসির ১৬ নির্দেশনা

 

পরিবর্তন বিশেষ: আরও পড়ুন

আরও