বাজেটের ওপর সংসদে রেকর্ড সংখ্যক বক্তা

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

বাজেটের ওপর সংসদে রেকর্ড সংখ্যক বক্তা

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৭:২৫ অপরাহ্ণ, জুন ২৫, ২০১৯

বাজেটের ওপর সংসদে রেকর্ড সংখ্যক বক্তা

জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের ওপর বক্তব্যে রেকর্ড সংখ্যক বক্তা বক্তব্য রাখবেন।

মঙ্গলবার বিকেল ৩টায় অধিবেশনের শুরুতে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী এ কথা বলেন।

স্পিকার সংসদ সদস্যগণের উদ্দেশে বলেন, ‘আজ কাউকে আমি বরাদ্দ অতিরিক্ত সময় দিতে পারবো না। কেননা, আজ বাজেটের ওপর রেকর্ড সংখ্যক ৫২ জন বক্তা বক্তব্য রাখবেন। সে কারণে আপনারা বুঝতে পারছেন কাউকে আমার পক্ষে চিফ হুইপ দ্বারা বরাদ্দকৃত সময়ের (লিস্টে দেয়া সময়) অধিক সময় দেয়া সম্ভব হবে না। আশা করি সবাই নির্দিষ্ট সময়ে বক্তব্য শেষ করবেন।’

এর আগে ২০১৮-১৯ অর্থ বাজেটের ওপর একদিন ৪২ জনের বক্তব্য দেয়ার রেকর্ড রয়েছে।

গত ১৩ জুন ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট পেশ অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল শুরু করলেও অসুস্থার কারণে তা শেষ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এটি পাস হওয়ার কথা ৩০ জুন। সংসদে ১৬ ও ১৭ জুন সম্পূরক বাজেটের ওপর আলোচনা হয়। এ বাজেটের ওপর বক্তব্য শুরু হয় গত ১৮ জুন থেকে। ওই দিন বক্তব্য রাখেন ১০ জন এমপি-মন্ত্রী, ১৯ জুন বক্তব্য রাখেন ১৫ জন, ২০ জুন বক্তব্য রাখেন ১৪ জন, ২২ জুন বক্তব্য রাখেন ২২ জন, ২৩ জুন বক্তব্য রাখেন ২৬ জন, ২৪ জুন ১০ জন এবং মঙ্গলবার সর্বোচ্চ সংখ্যক ৫২ জন (মন্ত্রী, সাবেক মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী ও এমপি) বক্তব্য রাখবেন বলে একটি তালিকা পাওয়া গেছে।

সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, বাজেটের ওপর গত ২৪ জুন পর্যন্ত মোট ১১২ জন বক্তব্য রাখেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের ৯১ জন ২২ ঘণ্টা ৩৭ মিনিট, ওয়াকার্স পার্টির ৪ জন ১ ঘণ্টা ৬ মিনিট, জাসদ (ইনু) ২ জন ৩৪ মিনিট, বিকল্পধারা বাংলাদেশের ১ জন ১১ মিনিট, জাতীয় পার্টির ৭ জন ২ ঘণ্টা ২৪ মিনিট, বিএনপির ৪ জন ৫২ মিনিট, গণফোরামের ২ জন ২৪ মিনিট এবং স্বতন্ত্র সদস্য ১ জন ১১ মিনিট বক্তব্য রাখেন। আর গতকাল ৫২ জন বক্তাকে ৮ ঘণ্টা ৪০ মিনিট সময় দেয়া হয়। যদিও এ সময় কিছুটা বেড়ে যায়। গতকাল পর্যন্ত ২০১৯-২০ বাজেটের ওপর মোট ১৬৮ জন প্রায় ৩৬ ঘণ্টা বক্তব্য রাখেন।

মঙ্গলবার সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের ওপর যারা বক্তব্য রাখবেন বলে তালিকাভুক্ত তারা হলেন বন, পরিবেশ ও জলবায়ু প্রতিমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দীন, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, সাবেক গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, বেগম ফজিলাতুন নেসা, সমাজ কল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ, জাসদের মইন উদ্দীন খান বাদল, সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহম্মদ নাসিম, আবু জাহির, শেখ ফজলে নূর তাপস, সাবেক প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন, সাবেক চিপ হুইপ আ স ম ফিরোজ, এইচএন আশিকুর রহমান, তরিকত ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজ ভান্ডারী, ইসরাফিল আলম, সাগুপ্তা ইয়াসমিন, তারবীর ইমাম, সাবেক মন্ত্রী বীরেন শিকদার, ছোট মনির, আব্দুল মজিদ খান, মনিরা সুলতানা, তাহজীব আলম সিদ্দিকী, প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি শফিকুর রহমান, আয়েশা ফেরদাউস, এম আবদুল লতিফ, পরিবেশ ও বন উপমন্ত্রী হাবিবুর নাহার, ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল, জাফর আলম, শাহজাহান মিয়া, আনোয়ার হোসেন খান, নাদিরা ইয়াসমিন জলি, আছলাম হোসেন সওদাগর, শিরীন আহমেদ, মো. আয়েন উদ্দীন, সেলিম আলতাফ জর্জ, বিএম কবিরুল হক, কানিজ সুলতানা, মো. আক্তারুজ্জামান, এসএম শাহজাদা, মোজাফফর হোসেন, খোদেজা নাসরিন আক্তার হোসেন, নেছার আহমেদ, নুরুল আমিন, একেএম শাহজাহান কামাল, ফরিদা খানম, বদরুদ্দোজা মো. ফরহাদ হোসেন, নাজিম উদ্দিন আহমেদ এবং উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম।

উল্লেখ্য, বাজেট পাসের আগে বাজেটের ওপর ন্যূনতম ৪০-৪২ ঘণ্টা বক্তব্য রাখার বিধান রয়েছে। মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রায় ৩৬ ঘণ্টা বাজেটের ওপর আলোচনা হয়।

এইচকে/এইচআর

 

জাতীয়: আরও পড়ুন

আরও