নকশী কাঁথা শিল্পেরও উন্নয়ন হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী

ঢাকা, রবিবার, ২৬ মে ২০১৯ | ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

নকশী কাঁথা শিল্পেরও উন্নয়ন হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ৬:১৩ অপরাহ্ণ, মে ১০, ২০১৯

নকশী কাঁথা শিল্পেরও উন্নয়ন হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, বাংলার ঐতিহ্য নকশী কাঁথার মধ্যে নিহিত আছে। সময় অতিবাহিত কিংবা ফ্যাশনের জন্য কাজ করে তারা নয়, যারা জীবিকার জন্য নকশী কাঁথার কাজ করে তারাই এশিল্পকে বাঁচিয়ে রাখবে।

শুক্রবার বিকেল সোয়া ৫টায় সুনামগঞ্জ জগৎজ্যোতি পাঠাহার মিলনায়তনে এনজিও সংস্থা ইরার উদ্যোগে ইউনেক্সোর সহযোগিতায় নকশী কাঁথা প্রশিক্ষণ ও বাজারজাতকরণ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাঙালির ঐতিহ্য ধরে রাখতে কাজ করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী তার বাসভবনে দেশীয় খাবার খান। আমরা যারা মন্ত্রী পরিষদ সদস্যরা যখন কাজের সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে খাওয়ার সুযোগ পাই তখন দেখি বাংলার ঐতিহ্যবাহী খাবার যেমন টেংরা মাছসহ দেশী যত খাবার আছে সেগুলো খবার মেন্যুতে থাকে।

ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মেহাম্মদ সফিউল আলমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে শেখ হাসিনার বাংলাদেশে নকশী কাঁথা থাকবে, বাঙালি ঐতিহ্য থাকবে। এ ঐতিহ্যকে ধরে রাখা মানে বাংলার ঐতিহ্যকে ধরে রাখা। বাংলাদেশের উন্নয়নের সঙ্গে নকশী কাঁথা শিল্পেরও উন্নয়ন হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন, সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বিরোধী দলীয় হুইপ অ্যাডভোকেট পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট।

সম্মানিত অতিথির বক্তব্য দেন, বিশ্বখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার ও ইউনেস্কোর গুড উইল অ্যাম্বেসেডর বিবি রাসেল, ইউনেস্কোর বাংলাদেশ প্রতিনিধি তাজ উদ্দিন। স্বাগত বক্তব্য দেন, ইরার নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন, সুবাশ উদ্দিন।

দেওয়ান গিয়াস চৌধুরী ও সাইকী ইসলাম যৌথ পরিচালনা সেমিনারে উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন জেলা মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান ফৌজি আরা শাম্মী, সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নিগার সুলতানা কেয়া, রাস'র নির্বাহী পরিচালক দ্রুপদ চৌধুরী নূপুর, মাইজ বাড়ি গ্রামের নকশী শিল্পী মাসুমা বেগম, নবীনগর গ্রামের রোশনা বেগম, চালবন গ্রামের জাহানার বেগম, সুনামগঞ্জ পৌর কাউন্সিলর শেলী চৌহান প্রমুখ।

এসবি