কর্মকর্তাদের নির্ভেজাল দায়িত্ব পালনের নির্দেশ ইসি কবিতা খানমের

ঢাকা, শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১ পৌষ ১৪২৫

কর্মকর্তাদের নির্ভেজাল দায়িত্ব পালনের নির্দেশ ইসি কবিতা খানমের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ১১:৫৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৩, ২০১৮

কর্মকর্তাদের নির্ভেজাল দায়িত্ব পালনের নির্দেশ ইসি কবিতা খানমের

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং কর্মকর্তাদের নির্ভেজালভাবে দায়িত্ব পালন করার নির্দেশনা দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম। মঙ্গলবার আগারগাঁওস্থ নির্বাচন ভবনের অডিটরিয়ামে সংসদ নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং কর্মকর্তাদের ব্রিফিংয়ের সময় এ নির্দেশনা দেন তিনি।

কবিতা খানম বলেন, সব দিক থেকে এবারের নির্বাচনটাকে কেনো জানি না সবাই অনেক গুরুত্বপূর্ণ অনেক চ্যালেঞ্জিং এ কথাগুলো বলার প্রয়াস পেয়েছে এবং বলছে। আমি তো মনে করি প্রতিটা জাতীয় সংসদ নির্বাচনই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং চ্যালেঞ্জিং। কারণ, অনেকগুলো দলের অংশগ্রহণে একটি নির্বাচন হয়ে থাকে। তাদেরকে মোকাবেলা করা অবশ্যই সব নির্বাচনের জন্য চ্যালেঞ্জিং বলে আমি মনে করি।

তিনি বলেন, কমিশনের মূল চালিকাশক্তি আপনারা যারা রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্বে আছেন। সুতরাং চালক কমিশন হলেও যেহেতু ফুয়েল আপনারা ফুয়েলটা যদি নির্ভেজাল না হয় তাহলে গাড়িটা কিন্তু সঠিকভাবে চলবে না। সুতরাং আশা করব শুধু কমিশন নয়, সমগ্র দেশবাসী চাইবে আপনারা যে গুরুদায়িত্বের পালন করতে যাচ্ছেন সেটা যেন নির্ভেজাল হয়। অর্থাৎ সুদৃঢ় এবং নিরপেক্ষ হয়।

রিটার্নিং কর্মকর্তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা নির্বাচন কমিশনের ভাবমূর্তিকে উজ্জ্বল করতে পারেন, দেশের ভাবমূর্তিকে উজ্জ্বল করতে পারেন এবং আপনারাই আবার অনুজ্জ্বলও করতে পারেন। কারণ, উজ্জ্বল করার শক্তি আপনাদের হাতে। ছোটখাট ত্রুটি বিচ্যুতি নয়, আমি মনে করি এক নিমিষেই ক্ষমতাও যাদের হাতেই থাকে। রিটার্নিং অফিসার হিসেবে অনেকের দায়িত্ব পালন করার অভিজ্ঞতা থাকলেও থাকতে পারে। এটা আমার জানা নেই। এতদিন আপনার জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে থাকলেও থাকতে পারেন। কারণ, ৫ বছর পরপর জাতীয় সংসদ নির্বাচন হয়। আমাদের যে কাজগুলো আপনাদের মাধ্যমে করতে হয় তার মধ্যে প্রধানত মনোনয়নপত্র দাখিলের পরে আপনাদের যে কার্যক্রমগুলো শুরু হয়। সেই কার্যক্রমগুলো আমি বলব আপনারা সততার সঙ্গে এবং গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের সঙ্গে সঙ্গে আচরণবিধিকে সামনে রেখে পরিচালনা করবেন।

তিনি আরো বলেন, মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের কাজটিও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সামান্য ত্রুটি বিচ্যুতির কারণে অনেক বড় বিভ্রাট তৈরি হওয়ার আশংকা থাকে। সেক্ষেত্রে মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের কাজটি আপনারা সতর্কতার সঙ্গে করবেন বলে আশা করি। এক্ষেত্রে যে আইনগুলো আছে সে আইনগুলো অনুসরণ করার জন্য আমাদের পক্ষ থেকে অনুরোধ রইলো। কারণ, মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের পরে কিন্তু বিভিন্ন ধরণের আইনানুগ প্রক্রিয়া শুরু করার সম্ভাবনা থাকে। সেটা যতটা সম্ভব পরিহার করা যায় সেই দিকে আপনার সতর্ক থাকবেন। সামান্য ত্রুটি বিচ্যুতি, করণীক ভুলের জন্য একটি মনোনয়পত্র বাতিল করা আইনানুগ নয়। সে বিষয়গুলো আপনারা সতর্কতার সঙ্গে লক্ষ্য করবেন। আপনাদের কার্যক্রম যেহেতু আইনের দ্বারা প্রতিপালিত করবেন। সুতরাং গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ এবং নির্বাচন পরিচালনা বিধিমালা সবসময় যেন আপনাদের টেবিলের ওপর থাকে। যে কোনো ধরণের সমস্যায় সমাধানের উপায় কিন্তু সেখানেই যুক্ত আছে।

একটা সুষ্ঠু নির্বাচন তুলে আনা আপনাদের দায়িত্ব এবং সঙ্গে সঙ্গে অবধারিত অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আপনারাই সমস্ত নির্বাচনটাকে পরিচালনা করবেন। আইন থেকে শুরু করে নির্বাচন সংক্রান্ত অভিযোগ নিস্পত্তির দায়িত্ব আপনাদের। অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে এবং কৌশল অবলম্বন করে আপনারা কাজ করুন। সুষ্ঠুভাবে সমাধানের জন্য সচেষ্ট থাকবেন যাতে কোনো পক্ষ থেকে আপনার সম্পর্কে অন্য কোনো ধরণের মন্তব্য করার সুযোগ না থাকে। আমি আশা করি আমরা সবাই একসাথে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের পথে এগিয়ে যাব বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

 

এইচকে/এআরই