নির্বাচন হবেই: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮ | ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

নির্বাচন হবেই: প্রধানমন্ত্রী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৭:১৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০১৮

নির্বাচন হবেই: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জোর দিয়ে বলেছেন, জাতীয় নির্বাচন নিয়ে যত ষড়যন্ত্রই হোক, তা মোকাবেলা করার ক্ষমতা তার সরকারের আছে এবং নির্বাচন হবেই।

সোমবার বিকেলে সরকারি বাসভবন গণভবনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর সম্প্রতি সৌদি আরব সফর নিয়ে এই সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়।

গত ২০ অক্টোবর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সম্মিলিত জাতীয় জোটের সমাবেশে ক্ষমতাসীন জোটের শরিক জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ একাদশ জাতীয় নির্বাচন হবে কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন।

এই প্রসঙ্গ এনে সাংবাদিকরা অন্যদের মনের একই সংশয় বিষয়ে জানতে চান। জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসি। এই নির্বাচন নিয়ে যারা সংশয় প্রকাশ করছেন, তাদের উদ্দেশ্যটা কী? তারা গণতান্ত্রিক ধারা চান না। ষড়যন্ত্র করে ক্ষমতা চান।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের বিরুদ্ধে বহু আগে থেকেই ষড়যন্ত্র হচ্ছে। এটা থাকবেই। সব ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করেই আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। এর প্রধান কারণ জনগণের শক্তি। আমি জনগণের শক্তিতে বিশ্বাস করি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচন নিয়ে ২০১৪ সালেও কম ষড়যন্ত্র হয়নি। একটি দেশকে এনে তো সরাসরি ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল। সব ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আমরা নির্বাচন করেছিলাম। আমার সরকার সব ষড়যন্ত্র মোকাবেলার শক্তি রাখে। এবারো কোনো ষড়যন্ত্র সফল হবে না, নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন হবেই।’

প্রবীণ আইনজীবী ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে সদ্যগঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘ড. কামাল হোসেন দাবি করেন তিনি সংবিধান প্রণেতা। তিনি এখন কীভাকে সংবিধানের বাইরে গিয়ে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করছেন, নির্বাচন চাচ্ছেন? তিনি কীভাবে খুনি, দুর্নীতিবাজ, মানি লন্ডারিংয়ে জড়ি, অগ্নি সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদ সৃষ্টিকারীদের সঙ্গে ঐক্য করলেন? এই জোট স্বার্থান্বেষীদের জোট। তারা অসাংবিধানক পন্থায় ক্ষমতায় যেতে চায়।’

সরকার প্রধান বলেন, ‘যারা আমাকে হত্যা করতে চেয়েছে, তাদের সঙ্গে কামাল হোসেন হাত মিলিয়েছেন। তার বিচারের দায়ভার আমি মানুষের হাতে ছেড়ে দিলাম। আমি শুধু মানুষকে বলতে পারি— আমি উন্নয়ন করতে পারি, করছি। আবার ক্ষমতায় এলে এই ধারা অব্যাহত রাখব।’

নির্বাচনকালীন সরকার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন সঠিক সময়েই হবে। নির্বাচন কমিশন সেভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছে। প্রয়োজন হলে নির্বাচনের জন্য এই সরকারের আকার ছোট করা হবে।’

বিএনপি জোটের ভাঙন বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ মেকিং- এর জন্য না ব্রেক (মেকিং অ্যান্ড ব্রেক) হয়। ভাঙলেই না আপনারা (সাংবাদিক) নিউজ ব্রেকিং করতে পারেন। ভাঙা-গড়া চলবেই। চলতে থাক, আপনারাও দেখতে থাকেন। বিএনপি জোটে ভাঙন হয়েছে, ঐক্যফ্রন্ট গঠিত হয়েছে। তারা নির্বাচনে আসলে স্বাগত। কিন্তু, জোটের নামে অগ্নি সন্ত্রাস, বোমাবাজি আবার করা হলে সরকারের পক্ষ থেকে যা করার সবই করা হবে।’

এ সময় তিনি জনগণকেও এই অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান। বলেন, ‘জনগণ রুখে দাঁড়ালে তারা আর কখনো এসব করতে পারবে না।’

শেখ হাসিনা সতর্ক করে বলেন, ‘যতক্ষণ আমি বেঁচে আছি, এদেশের মানুষকে আর জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে ছারখার হতে দেব না। তাদের রক্ষায় যা করা লাগে, সবই করব।’

জঙ্গিবাদ দমনে সরকার সফল উল্লেখ করে তিনি এজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ধন্যবাদ জানান।

প্রধানমন্ত্রী অভিযোগ করেন, ‘এদেশের একটি গোষ্ঠী আছে, যাদের জনগণের ওপর আস্থা নেই। তারা দেশে কোনো উন্নয়ন দেখতে পান না। বিদেশিদের কাছে নিজের দেশের ভাব-মূর্তি নষ্ট করতে নালিশ করেন। টকশোতে গিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে হাজারো কথা বলেন। আবার অভিযোগ করেন, তাদের আমরা কথা বলতে দিচ্ছি না।’

সড়ককে নিরাপদ করার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সড়ক দুর্ঘটনা কি শুধু চালকের কারণে হয়? বিমানবন্দর সড়কে চালক শিক্ষার্থীদের ওপর গাড়ি তুলে দিয়েছিল, এটা আমরা প্রমাণ পেয়েছি, ব্যবস্থা নিয়েছি। দুর্ঘটনার জন্য কী আমরা কম দায়ী?’

প্রধানমন্ত্রী চালকদের পাশাপাশি পথচারী ও অভিভাবকদের ট্রাফিক আইন মানার আহ্বান জানান।

সৌদি বাদশা ও দুটি পবিত্র মসজিদের খাদেম সালমান বিন আব্দুল আজিজ আল সৌদের আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী গত ১৬ থেকে ১৯ অক্টোবর সৌদি আরবে সরকারি সফর করেন।

এ সফরে প্রধানমন্ত্রী রিয়াদের রাজপ্রাসাদে সৌদি বাদশার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এবং তার সম্মানে আয়োজিত এক মধ্যাহ্নভোজে অংশ নেন।

প্রধানমন্ত্রী সৌদি যুবরাজ, উপ-প্রধানমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী মোহাম্মাদ বিন সালমান বিন আব্দুল আজিজের সঙ্গে এক বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

শেখ হাসিনা মক্কা শরীফে পবিত্র ওমরাহ পালন এবং মদীনায় মসজিদে নববীতে মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)-এর পবিত্র রওজা শরীফ জিয়ারত করেন।

এসইউজে/আইএম