সংসদে বিল পাসের রেকর্ড

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮ | ২ কার্তিক ১৪২৫

সংসদে বিল পাসের রেকর্ড

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ১০:২০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৮

সংসদে বিল পাসের রেকর্ড

বিল পাসের সর্বোচ্চ রেকর্ড গড়ল ১০ম জাতীয় সংসদের ২২তম অধিবেশন। মাত্র ১০ দিনের এ অধিবেশনে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় দিন বাদে অন্য ৭ দিনে ১৮টি বিল পাস হয়েছে।

দেশ স্বাধীনের পরে এ যাবৎ এত অল্প দিনে এতবেশি বিল আর কখনো পাস হয়নি বলে সংসদ সচিবালয় সূত্র জানিয়েছে। এ কারণে সংসদের এ ২২তম অধিবেশনটি রেকর্ডের খাতায় লেখা থাকবে।

এছাড়া এই অধিবেশনে আরো ১০টি বিল উত্থাপন এবং ১৫টি বিলের রিপোর্ট উপস্থাপন করা হয়েছে।

গত ৯ সেপ্টেম্বর শুরু হয় ২২তম অধিবেশন, যা বৃহস্পতিবার শেষ হয়। শুক্র-শনিবার বাদ দিয়ে টানা ১০ কার্যদিবস অধিবেশন চলে।

তবে প্রথম দিন বর্তমান সংসদের দু’জন সদস্যের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব গৃহীত হওয়ায় অন্যান্য সকল কার্যসূচি স্থগিত থাকে।

তাছাড়া ১১ সেপ্টেম্বর বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের কারণে এক ঘণ্টা অধিবেশন চালানোর পর তা স্থগিত হয়ে যায়। আবার গত ১০ সেপ্টেম্বর দুটি বিলের রিপোর্ট উপস্থাপন হয় মাত্র।

সংসদে পাস হওয়া বিলগুলো হলো— ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল- ২০১৮, সড়ক পরিবহন বিল- ২০১৮, আল-হাইআতুল উলয়া লিল-জামি‘আতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’ এর অধীন কওমি মাদ্রাসাসমূহের দাওয়াতে হাদিসের (তাকমিল) সনদ মাস্ট্রার্স ডিগ্রির (ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবি) সমমান (কওমী মাদ্রাসা) বিল-২০১৮, জাতীয় পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমি বিল- ২০১৮, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন বিল- ২০১৮, বস্ত্র বিল- ২০১৮, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট বিল- ২০১৮, বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল- ২০১৮, বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ড (সংশোধন) বিল- ২০১৮, যৌতুক নিরোধ বিল- ২০১৮, সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় বিল- ২০১৮, সার ব্যবস্থাপনা (সংশোধন) বিল- ২০১৮, কৃষি বিপণন বিল- ২০১৮, জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল- ২০১৮ এবং শেষ দিন বৃহস্পতিবার জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ বিল- ২০১৮, পণ্য উৎপাদনশীল রাষ্ট্রায়ত্ত্ব শিল্প প্রতিষ্ঠান শ্রমিক (চাকরি শর্তাবলী) বিল- ২০১৮, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্ট বিল- ২০১৮ এবং কমিউনিটি ক্লিনিক সহায়তা ট্রাস্ট বিল- ২০১৮ পাস হয়। প্রতিটি বিল পাসে গড় ২০-২৫ মিনিট সময় ব্যয় হয়েছে বলে জানা গেছে।

সংসদ সচিবালয়ের এক কর্মকর্তা পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘এত অল্প সময়ে আগে কখনো এতোগুলো বিল পাস হয়েছে বলে আমার জানা নেই। চলতি বছরের সব থেকে দীর্ঘ অধিবেশন ২০তম অধিবেশনে ১৫টি বিল পাস হয়। বর্তমান সরকারের আগের চার বছরে ১৯টি অধিবেশনে ১৩০টি বিল পাস হয়।’

সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, আগামী মাসের ১৪ তারিখ নাগাদ আরো একটি সংক্ষিপ্ত অধিবেশন বসতে পারে বলে জানা গেছে। ২৩তম অধিবেশনে কি হয়, তা দেখার বিষয়।

বর্তমান সরকারের পাঁচ বছর পূর্ণ হচ্ছে আগামী বছরের ২৮ জানুয়ারি। সংবিধান অনুযায়ী বিদ্যমান সংসদ ভেঙে দেয়ার আগের ৯০ দিনের মধ্যে পরবর্তী সংসদ নির্বাচন করার কথা রয়েছে। সে হিসাবে অক্টোবর থেকে নির্বাচনের কাউন-ডাউন শুরু হবে।

এরপর ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে একাদশ সংসদ নির্বাচনের পর যারা সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবেন, তারাই নতুন সরকার গঠন করবেন। পরে জানুয়ারিতে বসতে পারে সেই সরকারের প্রথম অধিবেশন।

সরকারের বিভিন্ন মহলের আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে ধারণা করা হচ্ছে, ২৮ অক্টোবরের মধ্য নির্বাচনকালীন সরকার গঠন হবে। সেই সরকার শুধু রুটিন ওয়ার্ক করবে।

কোন অধিবেশনে কতটি বিল পাস
সংসদ সচিবালয়ের আইন শাখা-১ থেকে প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, দশম জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন ২০১৪ সালের ২৮ জানুয়ারি শুরু হয়। এই অধিবেশনে ২টি, দ্বিতীয় অধিবেশনে ৬টি, তৃতীয় অধিবেশনে ৫টি, চতুর্থ অধিবেশনে ৬টি, পঞ্চম অধিবেশনে ৮টি, ষষ্ঠ অধিবেশনে ৫টি , সপ্তম অধিবেশনে ৬টি, অষ্টম অধিবেশনে ১০টি, নবম অধিবেশনে ৯টি, দশম অধিবেশনে ১৪টি, একাদশ অধিবেশনে ১৬টি, ১২তম অধিবেশনে ৬টি, ১৩তম অধিবেশনে ৫টি, ১৪তম অধিবেশনে ১০টি, ১৫তম অধিবেশনে ২টি, ১৬তম অধিবেশনে ৭টি, ১৭তম অধিবেশনে ২টি, ১৮তম অধিবেশনে ৩টি, ১৯তম অধিবেশনে ১৫টি, ২০তম অধিবেশনে ৫টি, ২১তম অধিবেশনে ১৪টি বিল পাস হয়।

এইচকে/আইএম