সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আবেগাপ্লুত শেখ হাসিনা

ঢাকা, বুধবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আবেগাপ্লুত শেখ হাসিনা

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৬:০৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ২১, ২০১৮

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আবেগাপ্লুত শেখ হাসিনা

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ পরিবারের সদস্যদের কথা স্মরণ করে আওয়ামী লীগের দেয়া গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার বিকালে রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এই গণসংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। এতে বক্তব্যের এক পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুসহ পরিবারের সদস্যদের নির্মম হত্যাকাণ্ডের কথা স্মরণ করে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন প্রধানমন্ত্রী। এসময় অনুষ্ঠানস্থলের পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে।

বাষ্পরুদ্ধ বঙ্গবন্ধু-কন্যা নিজেকে সামলে নিয়ে বলেন, ‘এই সংবর্ধনা আমি দেশের জনগণকে উৎসর্গ করেছি।’

বক্তব্যের শুরুতে তিনি বলেন, ‘কবিগুরুর ভাষায় বলতে চাই- এ মণিহার আমায় নাহি সাজে। আমার সংবর্ধনার প্রয়োজন নেই। আমি শুধু চাই বাংলার মানুষ কী পেল। এই অর্জন সেসব নেতাকর্মীর, যারা দলের জন্য রক্ত দিয়েছেন, আত্মত্যাগ স্বীকার করেছেন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি জনগণের সেবক। তাদের সেবা করেই নিজের সার্থকতা খুঁজে পাই। জাতির পিতা মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকারের জন্য কাজ করেছেন। আমি তার কন্যা হিসেবে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি। তার স্বপ্নের উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে কাজ করে যাচ্ছি।’

এর আগে অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মানে দেয়া মানপত্র পাঠ করা হয়। পরে মানপত্রের বাঁধাই করা একটি স্মারক তার হাতে তুলে দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী। সংবর্ধনামঞ্চে প্রধানমন্ত্রীর ছেলে তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ছাড়াও কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

ভারতের কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডি-লিট ডিগ্রি অর্জন, মহাকাশে সফলভাবে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট পাঠানো, অস্ট্রেলিয়ার সিডনি থেকে গ্লোবাল উইমেন্স লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড অর্জন এবং বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত করায় প্রধানমন্ত্রীকে এই গণসংবর্ধনা দিচ্ছে তার দল আওয়ামী লীগ।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠান ঘিরে সকাল থেকে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অভিমুখে জনস্রোত নামে। দুপুরের মধ্যেও গোটা এলাকা লোকে লোকারণ্যে পরিণত হয়। যতদূর চোখ যায়, মানুষ আর মানুষ।

এমএইচ/এসবি/এমএসআই