‘ডিজিটাল ব্যবস্থায় ভাতার টাকা আত্মসাতের সুযোগ নেই’

ঢাকা, রবিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৮ | ৫ কার্তিক ১৪২৫

‘ডিজিটাল ব্যবস্থায় ভাতার টাকা আত্মসাতের সুযোগ নেই’

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ২:৩৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০১৮

‘ডিজিটাল ব্যবস্থায় ভাতার টাকা আত্মসাতের সুযোগ নেই’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির আওতায় ভাতা দেয়া হয় যাতে কেউ অনাহারে কষ্ট না পায়। মঙ্গলবার সকালে গণভবনে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় সুবিধাভোগীদের জন্য বিভিন্ন ভাতা ডিজিটাল উপায়ে বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল ব্যবস্থা করায় দরিদ্রদের টাকা আত্মসাতের কোনো সুযোগ নেই।

তিনি বলেন, তৃণমূল পর্যায়ে যারা বেঁচে আছেন, তাদের জীবন-মান উন্নত করার লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করছি। আর সে লক্ষেই আমরা ভাতা দেয়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছি।

সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় এক লাখ ১৫ হাজার ৮৮ জন সুবিধাভোগীদের ভাতা বিতরণ করা হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, আজকে আমরা ভাতা দেয়ার ব্যবস্থা করেছি ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে। একেবারে সরাসরি যারা ভাতা পাবে তাদের হাতেই। অর্থাৎ এখন আর কোনো মাধ্যমে নয়, সরাসরিই ভাতা গ্রাহকদের অ্যাকাউন্টে টাকা চলে যাবে। কাউকে কমিশন দেয়ার আর কোনো ব্যবস্থা নেই।

তিনি বলেন, আমার কাছে অনেকেই কেঁদে বলেছেন, সব টাকা পাই না। টাকা তুলেই তাদেরকে দিতে হয়। এখন আর কেউ টাকা নিতে পারবেন না। যার টাকা তার অ্যাকাউন্টে চলে যাবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা টাকা পাচ্ছেন এবং যাদের কাজ করার ক্ষমতা আছে তাদের অবশ্যই উপার্জন করতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা চাই না, মানুষ ভাতার ওপর নির্ভরশীল হোক অথবা তারা কাজ করতে অনাগ্রহী হোক।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই ভাতা পুরো পরিবার চালানোর জন্য নয়, আমরা একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা দেব যাতে আপনারা অনাহারে কষ্ট না পান।

আগামী নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তার দলের আবারো ক্ষমতায় ফিরে আসা সর্বশক্তিমান আল্লাহ এবং মানুষের ওপর সম্পূর্ণ নির্ভরশীল। যদি জনগণ আমাদের পক্ষে তাদের রায় দেয় তবে আমরা আবার ক্ষমতায় ফিরে আসব।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন, সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ।

সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় সুবিধাভোগীদের ওপর একটি পাওয়ার-পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন দেন সামাজিক কল্যাণ সচিব মো. জিল্লার রহমান।

পরে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গোপালগঞ্জ, নরসিংদী, কিশোরগঞ্জ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের সুবিধাভোগীদের সাথে কথা বলেন।

ইউএসজে/এসবি