ঢাকা সিটি নির্বাচন নিয়ে ইসি ব্যর্থ নয়: সিইসি

ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮ | ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

ঢাকা সিটি নির্বাচন নিয়ে ইসি ব্যর্থ নয়: সিইসি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৭:১০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০১৮

ঢাকা সিটি নির্বাচন নিয়ে ইসি ব্যর্থ নয়: সিইসি

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে নির্বাচন নিয়ে ইসি ব্যর্থ নয়। আইনগতভাবে ইসি নির্বাচনের তফসিল দিয়েছিল। কিন্তু আদালত যদি কারও আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কিছু করে থাকে, তাহলে ইসির কিছু করার নেই।

বুধবার স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে বৈঠক করে জাতীয় সংসদের প্রবেশমুখে সাংবাদিকদের একথা বলেন তিনি। এসময় স্পিকার বলেন, আগামীকাল বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে। ১৮ থেকে ২০ তারিখের মধ্যে যে কোনো দিন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

কে এম নুরুল হুদা আরও বলেন, ঢাকা উত্তর দক্ষিণ সিট করপোরেশন নির্বাচনের আদালত কর্তৃক স্থগিতাদেশের সত্যায়িত কপি তারা আজ পেয়েছেন। আলোচনা করে এ বিষয়ে করণীয় ঠিক করা হবে।

তফসিল ঘোষণার সময় অনেকে বলেছিলেন, আইনি জটিলতা রয়ে গেছে। তা নিরসন না করেই ইসি তফসিল দিয়েছে, এর দায় ইসির কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, স্থানীয় সরকারের নির্বাচনে ইসির তিনটি কাজ। সেগুলো হলো নির্বাচন করা, তফসিল ঘোষণা করা ও নির্বাচনের কেন্দ্র ঠিক করা। সীমানা নির্ধারণ করা, কখন নির্বাচন হবে—এগুলো ঠিক করে স্থানীয় সরকার বিভাগ। তাদের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে ইসি নির্বাচন আয়োজন করে।

সিইসি দাবি করেন, ভোটার তালিকা নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। ভোটার তালিকা সঠিক আছে।

তাহলে এ জটিলতার কারণে স্থানীয় সরকার দায়ী কি না—এমন প্রশ্নে সিইসি বলেন, স্থানীয় সরকারের বক্তব্য না শুনে তিনি তাদের দোষারোপ করতে পারেন না।

জানা গেছে, বুধবার থেকে ২১তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ক্ষণ গণনাও শুরু হচ্ছে। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে সামনে রেখে করণীয় ঠিক করতে বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন বৈঠক ডাকা হয়েছে। স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত ১৯ মেয়াদে ১৬ জন প্রেসিডেন্ট হয়েছেন। সেই হিসেবে আবদুল হামিদ এই পদে সপ্তদশ ব্যক্তি।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল দায়িত্ব গ্রহণ করা বর্তমান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের পাঁচ বছরের মেয়াদ এ বছরের ২৩ এপ্রিল শেষ হবে। সংবিধানের ১২৩ (১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতি-পদের মেয়াদ অবসানের কারণে উক্ত পদ শূন্য হইলে মেয়াদ-সমাপ্তির তারিখের পূর্ববর্তী নব্বই হইতে ষাট দিনের মধ্যে শূন্য পদ পূরণের জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে।

এইচএস/এএসটি

আরো পড়ুন...
যশোর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন ১৬ এপ্রিল