ভেতরের বড় শত্রুটির ব্যাপারে সর্তক হোন! 

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

ভেতরের বড় শত্রুটির ব্যাপারে সর্তক হোন! 

পরিবর্তন ডেস্ক ৮:৪২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৯

ভেতরের বড় শত্রুটির ব্যাপারে সর্তক হোন! 

যখনই আমরা কোনো গুনাহে জড়াই বা কোনো ভুল করে ফেলি, তখনই আমরা সাধারণত শয়তানকে তার ওয়াসওয়াসার জন্য দোষ দিতে শুরু করি। কিন্তু আমরা আমাদের নিজেদের অন্তরে লুকিয়ে থাকা শক্তিশালী এক শত্রুর কথা ভুলে যাই। এই শত্রুটি হলো আমাদের নফস।

আমাদের এই নফস সবসময় আমাদের সঙ্গেই থাকে। আমাদের খাওয়ার সময়, আমাদের কাজের সময়, আমাদের ঘুমানোর সময় এই নফস আমাদের ভেতরেই অবস্থান করে।

নফসের সাধারণ একটি বৈশিষ্ট্য হলো, এটি মানুষকে সবসময় মন্দের দিকে প্ররোচিত করে। যদি আল্লাহ কোনো ব্যক্তির উপর দয়া না করেন, তবে নফস ব্যক্তিকে সবসময়ই মন্দ কাজ করার দিকে উৎসাহ দিতে থাকে।

নফসের এই ভয়াবহ প্রবণতার কারণেই রাসূল (সা.) তার প্রায় সকল ভাষণের পূর্বেই দুআটি করতেন––“আমি আমার নফসের ক্ষতি থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাই!”

যদি স্বয়ং রাসূল (সা.) এমনভাবে বলতে পারেন, সেখানে আমাদের কি পরিমাণ সতর্ক থাকা প্রয়োজন তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

একবার হযরত আবু বকর (রা.) রাসূল (সা.) এর কাছে জিজ্ঞাসা করলেন, সকালে ও রাতে তিনি কি দুআ করতে পারেন। রাসূল (সা.) তখন তাকে যে দুআটি শিক্ষা দিলেন তা হলো––

اللَّهُمَّ عَالِمَ الْغَيْبِ وَالشَّهَادَةِ فَاطِرَ السَّمَوَاتِ وَالأَرْضِ رَبَّ كُلِّ شَيْءٍ وَمَلِيكَهُ أَشْهَدُ أَنْ لاَ إِلَهَ إِلاَّ أَنْتَ أَعُوذُ بِكَ مِنْ شَرِّ نَفْسِي وَمِنْ شَرِّ الشَّيْطَانِ وَشِرْكِهِ

উচ্চারণ: আল্লাহুম্মা আলিমাল গাইবি ওয়াশ-শাহাদাতি, ফাতিরাস-সামাওয়াতি ওয়াল আরদ্বি, রাব্বা কুল্লি শাই-ইন ওয়া মালীকাহু, আশহাদু আল-লা-ইলাহা ইল্লা আনতা আউজু বিকা মিন শাররি নাফসী ওয়া মিন শাররিশ-শাইত্বানি ওয়া শিরকিহী।

অর্থ: হে দৃশ্য ও অদৃশ্য জ্ঞানের অধিকারী আল্লাহ, আসমান ও দুনিয়ার সৃষ্টিকারী, সকলকিছুর প্রভু ও প্রতিপালক, আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি তুমি ছাড়া ইবাদতের যোগ্য কেউ নেই। আমি তোমার কাছে আমার নফসের মন্দ প্রভাব থেকে আশ্রয় চাচ্ছি এবং আশ্রয় চাচ্ছি শয়তান ও তার অংশীদারদের মন্দ প্রভাব থেকে। [আবু দাউদ, হাদীস নং: ৫০৬৭–হাদীসের মান: সহীহ]

এখানেও আল্লাহর রাসূল নফসের ক্ষতি থেকে সতর্ক থাকার জন্য আল্লাহর কাছে দুআ করার নির্দেশনা দিচ্ছেন। কিন্তু আমাদের অধিকাংশের মধ্যেই বড় এই শত্রু সম্পর্কে তেমন সচেতনতা নেই।

অনেকেই অভিযোগ করেন, তারা গুনাহ ছাড়তে চান কিন্তু অব্যাহতভাবে গুনাহের ফাঁদেই তারা আবদ্ধ হয়ে আছেন। এর মূল কারণই হলো তারা তাদের নফসকে না বলতে শিখেননি।

আল্লামা ইবনুল কাইয়িম (রহ.) লিখেছেন––“আল্লাহর পথে আপনার চলার ক্ষেত্রে বাধার পাহাড় হলো নফস। মনে করুন, আপনি আল্লাহর দিকে যাত্রা করছেন এবং এই যাত্রার পথ একটিই। পথে আপনার সামনে বিশাল এক পাহাড় পড়লো। এই পাহাড়ই হলো আপনার নফস। যদি আপনি আল্লাহর দিকে যাত্রা অব্যাহত রাখতে চান তবে আপনাকে এই পাহাড় অতিক্রম করতে হবে। আর যদি আপনি না পারেন, তবে কখনোই আপনি আল্লাহর নিকট  পৌছতে পারবেন না।”

আল্লাহর আমাদের সকলকে নফসের এই বাধার পাহাড় পাড়ি দিয়ে তার নিকটে পৌঁছার তাওফিক দান করুন।

এমএফ/

 

হাদিসের জ্যোতি: আরও পড়ুন

আরও