সাফল্য অর্জনে নবী-নির্দেশিত সর্বোত্তম সময়

ঢাকা, শনিবার, ৯ নভেম্বর ২০১৯ | ২৪ কার্তিক ১৪২৬

সাফল্য অর্জনে নবী-নির্দেশিত সর্বোত্তম সময়

পরিবর্তন ডেস্ক ৭:২০ অপরাহ্ণ, জুলাই ০৭, ২০১৯

সাফল্য অর্জনে নবী-নির্দেশিত সর্বোত্তম সময়

আমরা প্রতিটি মানুষ সফল হতে চাই। সাফল্য অর্জনে চেষ্টা ও শ্রম ব্যয় করি। কিন্তু কেমন হয় যদি আমাদের সফলতার এই যাত্রায় সময় সঙ্গী হয়ে যায়? হ্যাঁ, দিনের মধ্যে এমনই একটি উত্তম সময়ের কথা আমাদের জানিয়ে দিয়েছেন প্রিয় নবী (সা.)। এ সময়টিতে সময় হয়ে যাবে আমাদের বরকতময় সঙ্গী।

নবীজি (সা.) জানিয়েছেন, ফজরের পরপর প্রভাতের সময়টিকে আল্লাহ আমাদের জন্য বরকতময় করেছেন। হযরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত হাদীসে এই প্রসঙ্গে বলা হয়েছে, নবীজি (সা.) বলেন–

بورك لأمتي في بكورها

“আল্লাহ আমার উম্মতের জন্য দিনের প্রভাতে বরকত রেখেছেন।” সহীহ আল-জামে, হাদীস নং: ২৮৪১ (আলবানী রহ. হাদীসটিকে সহীহ বলেছেন)

আরও একাধিক হাদীসে নবীজি (সা) এই সময়টিকে উম্মতের জন্য বরকতময় করতে আল্লাহর কাছে দুআ করেছেন। তিনি বলেছেন–

اللَّهُمَّ بَارِكْ لأُمَّتِي فِي بُكُورِهَا

“হে আল্লাহ! আমার উম্মতের জন্য তাদের প্রভাতকে বরকতময় করুন।” –তিরমিযী, হাদীস নং: ১২১২; আবু দাউদ, হাদীস নং: ২৬০৬; আহমাদ, হাদীস নং: ১৫৫১৭

বিশেষ এই সময়টিতে বিশেষ রহমত ও বরকত আল্লাহ আমাদের জন্য নির্ধারণ করে রেখেছেন, যারা এর ব্যবহার ও মূল্যায়ন করতে পারবে তারা সফল হবে ইনশাআল্লাহ।

ফজরের পর পর এই সময় যখন সকল লোক ঘুমিয়ে থাকে, তখন আপনি যে কাজই করুন না কেন তা সুন্দর ও যথার্থভাবে সম্পন্ন করতে পারবেন। দিনের অন্যান্য সময়ের জটিলতা এসময় আপনাকে কাজের মাঝে ব্যাঘাত ঘটাবে না।

ফজর থেকে সূর্যোদয় পর্যন্ত এই সময়ের মাঝে আপনি যে কাজই করেন না কেন, আল্লাহ সে কাজের মধ্যে বরকত দান করবেন। আপনি কুরআন তেলওয়াত বা হিফজ করুন, নিজের ব্যক্তিগত অধ্যায়ন করুন কিংবা পেশাগত কোন কাজ করুন, আপনি নির্বিঘ্নে কাজটি সম্পন্ন করতে পারবেন।

রাসূল (সা.) এর এই হাদীসটি বর্ণনাকারী সাহাবী সাখর আল-গামেদী (রা.) এর গুরুত্ব অনুভব করে ফজরের পরপরই তার ব্যবসার কাজ শুরু করতেন। এমনকি কেউ না থাকলেও তিনি তার দোকান খুলে বসে থাকতেন।

তার সম্পর্কে বর্ণনা করা হয়েছে, তিনি এত সম্পদশালী হয়েছিলেন যে, তিনি জানতেন না কোথায় তার সম্পদ রাখবেন।

সুতরাং ফজরের পরপর ভোরের এই সময়টিকে যথার্থভাবে ব্যবহার করুন। আল্লাহ আপনার সকল কাজে বরকত দান করবেন। আপনি দুনিয়া ও আখেরাতে সফল হবেন ইনশাআল্লাহ।

এমএফ/

 

হাদিসের জ্যোতি: আরও পড়ুন

আরও