দান করে খোঁটা দিলে নবীজির বদদোয়া!

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

দান করে খোঁটা দিলে নবীজির বদদোয়া!

-পরিবর্তন ডেস্ক ৫:৫৬ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৮

দান করে খোঁটা দিলে নবীজির বদদোয়া!

দান করা, মানুষের উপর যে কোন উপায়ে অনুগ্রহ করা নিঃসন্দেহে ইসলামে অনেক বড় আমল। তবে সেটা হতে হবে শুধুই আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে। অনুগ্রহ বা দান-গ্রহীতার কাছ থেকে এর বিনিময়ে কোনকিছু আশা করা যাবে না। যদি এমনটা আশা করা হয় তাহলে প্রথমত এই দান আল্লাহর কাছে কবুলই হবে না। কারণ তা আল্লাহর জন্য হয়নি।

আল্লাহ তাআলা বলেন, وَمَا تُنفِقُونَ إِلَّا ابْتِغَاءَ وَجْهِ اللّهَ “তোমরা আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন ছাড়া অন্য কোন উদ্দেশ্যে দান করো না।” – সূরা বাকারাহ : ২৭২

দ্বিতীয়ত, এমন দান করে গ্রহীতার কাছ থেকে আশানুরূপ কৃতজ্ঞতা বা আনুগত্য না পাওয়া গেলে, বা আল্লাহর জন্য দান করেও যে কোনো কারণে খোঁটা দেওয়া হলে, মানুষের কাছে দানের কথা বলে গ্রহীতাকে লজ্জিত করলে, সে দান তো আল্লাহ কবুল করেনই না, উপরন্তু রাসুলুল্লাহ (সা.) এমন দানকারীর জন্য বদদোয়া করেছেন।

আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন,       

يَاأَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا لَا تُبْطِلُوا صَدَقَاتِكُمْ بِالْمَنِّ وَالْأَذَى

“হে ঈমানদারগণ! তোমরা খোঁটা দিয়ে ও কষ্ট দিয়ে নিজেদের দান-খায়রাতকে বরবাদ করে দিও না।” (সূরা বাকারা- ২৬৪)

আবু যর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন,

“কিয়ামত দিবসে আল্লাহ পাক তিন ব্যক্তির সাথে কথা বলবেন না, তাদের দিকে তাকাবেন না, তাদেরকে পবিত্র করবেন না এবং তাদের জন্য রয়েছে যন্ত্রণা দায়ক শাস্তি। কথাটি তিনি তিনবার বললেন। আবু যার (রা.) বললেন, ওরা ধ্বংস হোক ক্ষতিগ্রস্ত হোক- কারা তারা হে আল্লাহর রাসূল? তিনি বললেন, “টাখনুর নীচে ঝুলিয়ে যে কাপড় পরিধান করে, দান করে যে খোঁটা দেয় এবং মিথ্যা শপথ করে যে ব্যবসায়ী পণ্য বিক্রয় করে।” (মুসলিম)

এমএফ/

আরও পড়ুন...
দুর্নীতির দান কবুল হবে?
লোক দেখানো দানের পরিণতি
সাহাবারা কি পরিমাণ দান করতেন?
মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে যা দান করা উত্তম
অমুসলিম ব্যক্তিকে দান করা ও হাদিয়া দেওয়া কি নিষেধ?
মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে কী দান করা উত্তম?
কেয়ামত দিবসে গোপনে দানকারীর যে মর্যাদা

 

হাদিসের জ্যোতি: আরও পড়ুন

আরও