কেয়ামত দিবসে গোপনে দানকারীর যে মর্যাদা

ঢাকা, সোমবার, ২১ জানুয়ারি ২০১৯ | ৮ মাঘ ১৪২৫

কেয়ামত দিবসে গোপনে দানকারীর যে মর্যাদা

-পরিবর্তন ডেস্ক ১:৩২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৮

কেয়ামত দিবসে গোপনে দানকারীর যে মর্যাদা

গোপন-প্রকাশ্যে যেকোন ভাবেই দান করা যায়। সকল দানেই প্রতিদান রয়েছে। আল্লাহ বলেন,

إِنْ تُبْدُوا الصَّدَقَاتِ فَنِعِمَّا هِيَ وَإِنْ تُخْفُوهَا وَتُؤْتُوهَا الْفُقَرَاءَ فَهُوَ خَيْرٌ لَكُمْ وَيُكَفِّرُ عَنْكُمْ مِنْ سَيِّئَاتِكُمْ

“যদি তোমরা প্রকাশ্যে দান-খয়রাত করো, তবে তা কতই না উত্তম। আর যদি গোপনে ফকীর-মিসকিনকে দান করে দাও, তাহলে এটা বেশী উত্তম। আর তিনি তোমাদের পাপ সমূহ ক্ষমা করে দিবেন।” (সূরা বকারা- ২৭১) 

দানটি যেন কেবলমাত্র আল্লাহর জন্যই হয় এবং এতে লোক দেখানোর কোন উদ্দেশ্য যেন জড়িয়ে না পড়ে, এমন নিয়তে গোপনে দানকারী ব্যক্তির জন্য রাসুলুল্লাহ (সা.) কেয়ামত দিবসে একটি বিশেষ মর্যাদার কথা ঘোষণা করেছেন। তিনি ইরশাদ করেন, গোপনে দানকারী ব্যক্তি কেয়ামতের দিন আল্লাহর আরশের নিচে ছায়া লাভ করবে।

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, “কেয়ামত দিবসে সাত শ্রেণীর মানুষকে আল্লাহ তাআলা তাঁর আরশের নিচে ছায়া দান করবেন, যেদিন তাঁর আরশের ছায়া ছাড়া আর কোন ছায়া থাকবে না। তম্মধ্যে এক শ্রেণী হচ্ছে,

رَجُلٌ تَصَدَّقَ بِصَدَقَةٍ فَأَخْفَاهَا حَتَّى لَا تَعْلَمَ شِمَالُهُ مَا تُنْفِقُ يَمِينُهُ

“এমন ব্যক্তি এতই গোপনে দান করে যে, তার ডান হাত কি দান করছে তা বাম হাত জানতেই পারে না।” (বুখারী ও মুসলিম)

এমএফ/

আরও পড়ুন...
দুর্নীতির দান কবুল হবে?
সাহাবারা কি পরিমাণ দান করতেন?
মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে যা দান করা উত্তম
অমুসলিম ব্যক্তিকে দান করা ও হাদিয়া দেওয়া কি নিষেধ?
মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে কী দান করা উত্তম?