দাজ্জালকে দেখা সাহাবীর বর্ণনা

ঢাকা, বুধবার, ২৭ মার্চ ২০১৯ | ১২ চৈত্র ১৪২৫

দাজ্জালকে দেখা সাহাবীর বর্ণনা

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:১৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০১, ২০১৮

দাজ্জালকে দেখা সাহাবীর বর্ণনা

প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম, রাসূলুল্লাহ (সা.) এর একজন সাহাবী নিজ চোখে দাজ্জালকে দেখেছিলেন বলে একটি হাদিস বর্ণিত আছে। হাদিসটি কতটুকু সহীহ? এবং হাদিসটি কি?

উত্তর : ওয়া আলাইকুমুস সালাম

হ্যাঁ, হাদিসটি সহীহ। সহীহ মুসলিম, সুনানে আবূ দাউদসহ বিভিন্ন হাদীসের কিতাবে হাদিসটি রয়েছে। এ হাদিস থেকে দাজ্জাল আবির্ভাবের প্রধান প্রধান আলামতসহ দাজ্জাল এখন কোথায় আছে, এমন নানা প্রশ্নের বিশুদ্ধ উত্তর পাওয়া যায়। হাদিসটি দীর্ঘ হওয়ায় নিম্নে শুধু অনুবাদটুকু তুলে ধরা হল-

অনুবাদ: ফাতেমা বিনতে কায়স (রা.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন- আমি মসজিদে গিয়ে রাসুলুল্লাহ (সা.) এর সাথে নামায আদায় করলাম। আমি ছিলাম মহিলাদের কাতারে। তিনি নামায শেষে হাসতে হাসতে মিম্বারে উঠে বসলেন। প্রথমেই তিনি বললেন, প্রত্যেকেই যেন আপন আপন জায়গায় বসে থাকে। অতঃপর তিনি বললেন, তোমরা কি জানো আমি কেনো তোমাদেরকে একত্রিত করেছি?

তারা বললেন, আল্লাহ এবং তার রাসুলই ভাল জানেন। অতঃপর তিনি বললেন, আমি তোমাদেরকে এ সংবাদ দেয়ার জন্যে একত্রিত করেছি যে তামীম দারী ছিল একজন খৃষ্টান। সে আমার কাছে আগমণ করে ইসলাম গ্রহণ করেছে। অতঃপর সে মিথ্যুক দাজ্জাল সম্পর্কে এমন ঘটনা বলেছে যা আমি তোমাদের কাছে বর্ণনা করতে চাই।

লাখ্‌ম ও জুযাম গোত্রের ত্রিশ জন লোকের সাথে সে সাগর পথে ভ্রমণে গিয়েছিল। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার শিকার হয়ে এক মাস পর্যন্ত তারা সাগরেই ছিল। অবশেষে তারা সাগরের মাঝখানে একটি দ্বীপে অবতরণ করলো। দ্বীপের ভিতরে প্রবেশ করে তারা মোটা মোটা এবং প্রচুর চুল বিশিষ্ট একটি অদ্ভুত প্রাণীর সন্ধান পেল। চুল দ্বারা সমস্ত শরীর আবৃত থাকার কারণে প্রাণীটির অগ্রপশ্চাৎ নির্ধারণ করতে সক্ষম হলো না।

তারা বলল, অকল্যাণ হোক তোমার! কে তুমি? সে বললো, আমি সংবাদ সংগ্রহকারী গোয়েন্দা।

তারা বললো, কিসের সংবাদ সংগ্রহকারী? অতঃপর প্রাণীটি দ্বীপের মধ্যে একটি ঘরের দিকে ইঙ্গিত করে বললো, হে লোক সকল! তোমরা এই ঘরের ভিতরে অবস্থানরত লোকটির কাছে যাও। সে তোমাদের কাছ থেকে সংবাদ সংগ্রহ করার জন্যে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে।

তামীম দারী বলেন, প্রাণীটি যখন একজন লোকের কথা বললো, তখন আমাদের ভয় হলো যে হতে পারে সে একটি শয়তান। তথাপি আমরা ভীত হয়ে দ্রুত অগ্রসর হয়ে ঘরটির ভিতরে প্রবেশ করি। সেখানে আমরা বৃহদাকার একটি মানুষ দেখতে পাই। এত বড় আকৃতির মানুষ আমরা ইতিপূর্বে আর কখনও দেখিনি। তার হাত দু’টিকে ঘাড়ের সাথে একত্রিত করে হাঁটু এবং গোড়ালীর মধ্যবর্তী স্থানে লোহার শিকল দ্বারা বেঁধে রাখা হয়েছে। 

আমরা বললাম, মরণ হোক তোমার! কে তুমি?

সে বললো, তোমরা আমার কাছে আসতে সক্ষম হয়েছ। তাই আগে তোমাদের পরিচয় দাও।

আমরা বললাম, আমরা একদল আরব মানুষ নৌকায় আরোহণ করেছিলাম। সাগরের প্রচণ্ড ঢেউ আমাদেরকে নিয়ে একমাস পর্যন্ত খেলা করলো। অবশেষে তোমার দ্বীপে উঠতে বাধ্য হলাম। দ্বীপে প্রবেশ করেই প্রচুর পশম বিশিষ্ট এমন একটি জন্তুর সাক্ষাৎ পেলাম, পশমের কারণে যার অগ্রপশ্চাৎ চেনা যাচ্ছিল না।

আমরা বললাম, অকল্যাণ হোক তোমার! কে তুমি? সে বললো, আমি সংবাদ সংগ্রহকারী গোয়েন্দা। আমরা বললাম, কিসের সংবাদ সংগ্রহকারী? অতঃপর প্রাণীটি দ্বীপের মধ্যে এই ঘরের দিকে ইঙ্গিত করে বললো, হে লোক সকল! তোমরা এই ঘরের ভিতরে অবস্থানরত লোকটির কাছে যাও। সে তোমাদের নিকট থেকে সংবাদ সংগ্রহ করার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে।

তাই আমরা তার ভয়ে তোমার কাছে দ্রুত আগমণ করলাম। হতে পার তুমি একজন শয়তান- এ ভয় থেকেও আমরা নিরাপদ নই।

সে বললো, আমাকে তোমরা ‘বাইসান’ সম্পর্কে সংবাদ দাও। আমরা তাকে বললাম, বাইসানের কি সম্পর্কে জিজ্ঞেস করছো? সে বললো, আমি তথাকার খেজুরের বাগান সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করছি। সেখানের গাছগুলো এখনও ফল দেয়? আমরা বললাম, হ্যাঁ। সে বললো, সে দিন বেশি দূরে নয় যে দিন গাছগুলোতে কোন ফল ধরবে না।

অতঃপর সে বললো, আমাকে বুহাইরাতুত্‌ তাবারীয়া সম্পর্কে সংবাদ দাও। আমরা তাকে বললাম, বুহাইরাতুত্‌ তাবারীয়ার কি সম্পর্কে জিজ্ঞেস করছো?

সে বললো, আমি জানতে চাই সেখানে কি এখনও পানি আছে? আমরা বললাম, তথায় প্রচুর পানি আছে। সে বললো, অচিরেই তথাকার পানি শেষ হয়ে যাবে।

সে পুনরায় বললো, আমাকে যুগার নামক ঝর্ণা সম্পর্কে সংবাদ দাও। আমরা তাকে বললাম, সেখানকার কি সম্পর্কে তুমি জানতে চাও?

সে বললো, আমি জানতে চাই সেখানে কি এখনও পানি আছে? লোকেরা কি এখনও সে পানি দিয়ে চাষাবাদ করছে?

আমরা বললাম, তথায় প্রচুর পানি রয়েছে। লোকেরা সে পানি দিয়ে চাষাবাদ করছে।

সে আবার বললো, আমাকে উম্মীদের নবী সম্পর্কে জানাও।

আমরা বললাম, সে মক্কায় আগমণ করে বর্তমানে মদীনায় হিজরত করেছে।

সে বললো, আরবরা কি তার সাথে যুদ্ধ করেছে? বললাম, হ্যাঁ।

সে বললো, ফলাফল কি হয়েছে?

আমরা তাকে সংবাদ দিলাম যে, পার্শ্ববর্তী আরবদের উপর তিনি জয়লাভ করেছেন। ফলে তারা তার আনুগত্য স্বীকার করে নিয়েছে।

সে বলল, তাই নাকি? আমরা বললাম তাই। সে বললো, তার আনুগত্য করাই তাদের জন্য ভাল। এখন আমার কথা শুনো। আমি হলাম দাজ্জাল। অচিরেই আমাকে বের হওয়ার অনুমতি দেয়া হবে। আমি বের হয়ে চল্লিশ দিনের ভিতরে পৃথিবীর সমস্ত দেশ ভ্রমণ করবো। তবে মক্কা-মদীনায় প্রবেশ করা আমার জন্য নিষিদ্ধ থাকবে। যখনই আমি মক্কা বা মদীনায় প্রবেশ করতে চাইবো তখনই ফেরেশতাগণ কোষমুক্ত তলোয়ার হাতে নিয়ে আমাকে তাড়া করবে। মক্কা-মদীনার প্রতিটি প্রবেশ পথে ফেরেশতাগণ পাহারা দিবে। 

হাদিসের বর্ণনাকারী ফাতেমা বিনতে কায়েস বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) হাতের লাঠি দিয়ে মিম্বারে আঘাত করতে করতে বললেন, এটাই মদীনা, এটাই মদীনা, এটাই মদীনা। অর্থাৎ এখানে দাজ্জাল আসতে পারবে না।

অতঃপর রাসুলুল্লাহ (সা.) মানুষকে লক্ষ্য করে বললেন, তামীম দারীর ঘটনা আমার কাছে খুবই ভাল লেগেছে। তার বর্ণনা আমার বর্ণনার অনুরূপ হয়েছে। বিশেষ করে মক্কা ও মদীনা সম্পর্কে। শুনে রাখো! সে আছে শাম দেশের সাগরে (ভূমধ্য সাগরে) অথবা আরব সাগরে। আর নয়তো সে আছে পূর্ব দিকে। সে আছে পূর্ব দিকে। সে আছে পূর্ব দিকে।

এই বলে তিনি পূর্ব দিকে ইঙ্গিত করে দেখালেন। ফাতেমা বিনতে কায়েস বলেন, “আমি এই হাদিসটি রাসুলুল্লাহ (সা.) এর নিকট থেকে মুখস্থ করে রেখেছি”। (সহিহ মুসলিম, কিতাবুল ফিতান) 

সুনানে আবু দাউদে এসেছে,

অনুবাদ: হযরত ফাতেমা বিনতে কায়স (রাঃ) তামীমে দারীর (রাঃ) ঘটনা প্রসঙ্গে বলেন, তামীমে দারী (রাঃ) বলেছেন, সেই দ্বীপে প্রবেশ করলে আমি সেখানে একটি নারীর সাক্ষাৎ পেলাম যার মাথার চুল এত যে, তা জমিনে হিচড়িয়ে চলে।

তামীম জিজ্ঞাসা করলেন, তুমি কে? সে বলল, আমি ‘জাসসাসা’ (অর্থাৎ অন্বেষণকারিণী)। অতঃপর সে বলল তুমি প্রসাদের দিকে যাও। সুতরাং আমি সেখানে আসলাম সেখানে লম্বা লম্বা চুল বিশিষ্ট এমন এক ব্যক্তিকে দেখলাম যে, শক্তভঅবে লোহার শিকলে বাঁধা- আসমান জমিনের মাঝখানে লাফালাফি করছে।

আমি জিজ্ঞাসা করলাম তুই কে? সে বলল আমি দাজ্জাল।–সুনানে আবূ দাঊদ, হাদিস নং ৪৩২৭

এমএফ/এআরই

আরও পড়ুন...
দাজ্জাল ও সূরা আল-কাহফে লুকায়িত রহস্য
দাজ্জাল এখন কোথায় আছে?
এভেঞ্জার সুপারহিরো এবং দাজ্জাল