বর্ষায় রেইনকোট থেকেও হতে পারে সংক্রমণ

ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৪ কার্তিক ১৪২৬

বর্ষায় রেইনকোট থেকেও হতে পারে সংক্রমণ

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:৪৫ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ০৯, ২০১৯

বর্ষায় রেইনকোট থেকেও হতে পারে সংক্রমণ

আগে ভাবা হত শীতে কাঁথা আর বর্ষায় ছাতা— এই দুইয়ের চেয়ে বন্ধু কেউ হয় না। কিন্তু সে ভাবনার দিনকাল গিয়েছে। এখন ছাতার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বর্ষা রোখে রেইনকোট। সহজেই যাকে রেনকোট বলে ডাকেন। ঋতুচক্রের নিয়মে হাজির বর্ষাকাল। ভ্যাপসা গরম আর থেকে থেকে ঝিরঝিরে বৃষ্টিতে এ দিকে জীবাণুদের পোয়াবারো। এই অবস্থায় বড় হোক বা ছোট— অনেক ক্ষণ রেইনকোট পরে থাকলে ফাঙ্গাল ইনফেকশনের ঝুঁকি বাড়ে। কীভাবে তা আজ জেনে নিন।

তবে রেইনকোট খোলা-পরার ব্যাপারে কিছু সাবধানতা মেনে চলতে হয়। এই সময়টায় ত্বকের সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ে। বৃষ্টি হলেও ভ্যাপসা গরমের হাত থেকে মুক্তি নেই। তাই বৃষ্টির হাত থেকে বাঁচতে রেনকোট জড়ালে গরমে ঘেমেনেয়ে গায়ে ঘাম বসে যায়। ছোটদের বেলায় স্কুলে গিয়ে সঙ্গে সঙ্গে রেনকোট খুলে মেলে শুকিয়ে নেওয়া উচিত। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই শিশুরা ভিজা রেইনকোট কোনো রকমে ভাঁজ করে ব্যাগে পুরে রাখে। সেই ভিজা রেইনকোটই আবার পরে নেয়। এর থেকে এক দিকে ত্বকের নানা সংক্রমণ অন্য দিকে ঠাণ্ডা লাগার ঝুঁকি বাড়ে। শুধু রেইনকোট ই বা কেনো ভিজা জুতা-মোজা পরে থাকলেও পায়ে জীবানুর সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ে।

এই সময়টায় বিভিন্ন জীবাণুর সংক্রমণের মধ্যে ফাঙ্গাস অর্থাৎ ছত্রাকের মাধ্যমে ক্ষতি হওয়ার প্রবণতা বেশি দেখা যাচ্ছে। বিশেষ করে যে সব শিশুর ওজন স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি, তাদের সংক্রমণের প্রবণতা তুলনামূলকভাবে কিছুটা বেশি। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে জীবাণুরা আমাদের ত্বকের উপরে ঘোরাফেরা করে। সুযোগ বুঝলেই আক্রমণ করে একেবারে নাজেহাল করে দেয়। এই সময়টায় বাতাসেও জীবাণুরা ভেসে বেড়ায়। ত্বকে ঘাম জমলে জীবানুরা দ্রুত সেখানে বংশবিস্তার করতে পারে। বর্ষায় যে সব ত্বকের সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ে সেগুলো একে একে জেনে নেওয়া যাক।

রিংওয়ার্ম বা দাদ: ১৫ বছরের কম বয়সি বাচ্চাদের মধ্যে এই ছত্রাকের সংক্রমণ সব থেকে বেশি দেখা যায়। তবে আমাদের দেশে বাচ্চা থেকে বয়স্ক সবারই রিংওয়ার্মের সংক্রমণ হয়। প্রতি বছর প্রায় ১০ মিলিয়ন মানুষ রিংওয়ার্মে আক্রান্ত হন। প্রায় ৪০ ধরনের ছত্রাক রিংওয়ার্মের জন্য দায়ী। দাদ বা রিংওয়ার্মের ডাক্তারি নাম ‘ডার্মাটোফাইটোসিস’। ত্বকের এই সংক্রমণ শরীরের বিভিন্ন অংশে হতে পারে। মূলত অপরিচ্ছন্নতা এই ছত্রাকদের দ্রুত বংশবৃদ্ধিতে সাহায্য করে। ভিজা  পোশাক ও জুতা-মোজা অনেক ক্ষণ পরে থাকলে রোগের ঝুঁকি বাড়ে।

শিশুদের ক্ষেত্রে:

পায়ের পাতায় এই সংক্রমণ হলে তাকে বলে টিনিয়া পেডিস বা অ্যাথলেটস ফুট।

কুঁচকি, ঊরু ও নিতম্বে সংক্রমণের নাম টিনিয়া ক্রুরিস বা জক ইচ। মাথার তালুতে ঘাড়েও রিংওয়ার্ম হয়। একে বলে টিনিয়া ক্যাপিটিস।

এছাড়া শরীরের বিভিন্ন অংশে ছত্রাকের কারণে দাদের সংক্রমণ হয়। কিছুটা গোলাকার সামান্য ফোলা ধার— এমন বৈশিষ্ট্য দিয়ে রোগের সূত্রপাত। এর পাশাপাশি একাধিক আকারের রিংওয়ার্ম দেখা যায়। খুব চুলকোয়।

ছত্রাকের এই সংক্রমণ হলে নিজেরা চিকিৎসা না করে ত্বক বিশেষজ্ঞর পরামর্শ নিতে হবে। বাজারচলতি স্টেরয়েড ক্রিম কিনে লাগিয়ে সমস্যাটাকে বাড়াবাড়ির পর্যায়ে নিয়ে যান অনেকেই। একেই তো অসুখটা ছড়িয়ে পড়ে, অন্য দিকে স্টেরয়েড লাগিয়ে ত্বকের বিকৃতি পর্যন্ত হতে দেখা যায়। মাথায় রিংওয়ার্ম হলে চুল ঝরে যায়, কুঁচকিতে ব্যথা করে, নখ দিয়ে চুলকে অনেক সময় সেকেন্ডারি ইনফেকশন হয়ে যায়। সেই নখই শরীরের অন্যত্র লাগালে বিভিন্ন অংশে দাদ ছড়িয়ে পড়ে। এ ক্ষেত্রে ত্বক বিশেষজ্ঞের পরামর্শে চিকিৎসা করিয়ে দ্রুত রোগ সারানো দরকার।

বর্ষায় ত্বকের সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে বেশি ক্ষণ রেইনকোট  পরে না থাকাই ভাল। বরং ছাতা ব্যবহার করুন। একান্তই তা অসম্ভব হলে বাড়ি ফিরেই ভালো করে গা শুকনো করে মুছুন।

ভিজা রেইনকোট ব্যাগে না রেখে বাতাসে মেলে রেখে শুকিয়ে নিতে হবে।

ভিজা জুতা-মোজা পরে থাকলেও সমস্যা হয়। সে ক্ষেত্রে জুতা পাল্টে নিতে পারলে ভালো হয়।

অনেক সময় জুতা-মোজা কাচার পর তা না শুকোলে পরের দিন ভিজা জুতা পরিয়েই কেউ কেউ বাচ্চাকে স্কুলে পাঠান। এই ব্যাপারটাও খেয়াল রাখতে হবে। বাবা-মায়ের সঙ্গে সঙ্গে স্কুল কর্তৃপক্ষেরও এই ব্যাপারে নজর রাখা উচিত। দরকারে জুতা-মোজার একাধিক সেট মজুত রাখুন।

বৃষ্টিতে ভিজা  গেলে শুকনো করে মুছে নিতে হবে। সামান্য গরম জলে স্নান করে নিতে পারলে ভাল হয়।

বাড়ি ফিরে সাবান দিয়ে পা পরিষ্কার করে গরম পানিতে পা ডুবিয়ে রাখলে নখকুনি ও এই জাতীয় পায়ের সংক্রমণ প্রতিরোধ করা যায়।

বৃষ্টির দিনে গোসল করা বন্ধ করলে সমস্যা বাড়বে বই কমবে না। তাই গোসল না করার ভুল একেবারেই নয়।

ইসি/

 

জীবনযাত্রা: আরও পড়ুন

আরও