আদালতে বিএনপিপন্থীদের হট্টগোল, বিচার কার্যক্রম ব্যাহত

ঢাকা, রবিবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২০ | ৬ মাঘ ১৪২৬

আদালতে বিএনপিপন্থীদের হট্টগোল, বিচার কার্যক্রম ব্যাহত

পরিবর্তন প্রতিবেদক ২:৪২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৯

আদালতে বিএনপিপন্থীদের হট্টগোল, বিচার কার্যক্রম ব্যাহত

দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানির দাবিতে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা আপিল বিভাগের এজলাস কক্ষে অবস্থান নিয়ে হট্টগোল করেছেন। এতে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিচার কার্যক্রম কার্যত বন্ধ হয়ে পড়েছে।

মেডিকেলের রিপোর্ট না আসায় জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানি ১২ ডিসেম্বর পর্যন্ত পিছিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

ওইদিনের মধ্যে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা জানতে মেডিকেল বোর্ডের প্রতিবেদন জমাদানের নির্দেশও দেন আপিল বিভাগ।

খালেদার মেডিকেল প্রতিবেদন জমা দিতে সময় আবেদন করা হলে বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে ছয় বিচারকের আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এরপরপরই বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। শুনানি পেছানোর প্রতিবাদে প্রায় ২০০ জন আইনজীবী সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আদালতের কক্ষে প্রবেশ করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে।

এসময় আপিল বিভাগের ছয় সদস্যের বেঞ্চের বিচারকরা আদালত কক্ষ ত্যাগ করতে বাধ্য হন।

নিয়মিত বিরতির পরে আপিল বিভাগ বেঞ্চের বিচারকরা আবার আদালত কক্ষে ফিরে আসলে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা আবারও হট্টগোল শুরু করেন। তারা এজলাস কক্ষে অবস্থান নিয়ে স্লোগান দেন- ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’, ‘বেইল ফর খালেদা জিয়া’।

বিশৃঙ্খলায় ক্ষুব্ধ প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেন, বাড়াবাড়ির একটা সীমা থাকা দরকার, এটা নজিরবিহীন।

বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের এই আচরণকে ন্যক্কারজনক হিসেবে বর্ণনা করে তাদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

এর আগে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম খালেদা জিয়ার মেডিকেল প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য সময় চেয়ে আবেদন করেন।

গত ২৮ নভেম্বর আপিল বিভাগ জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি পিছিয়ে ৫ ডিসেম্বর নির্ধারণ করে। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে ছয় বিচারকের আপিল বেঞ্চ এই আদেশ দেন। একই বেঞ্চ ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা জানতে মেডিকেল বোর্ডের প্রতিবেদন জমাদানের নির্দেশ দেন।

গত ১৪ নভেম্বর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় হাইকোর্টে খারিজ হওয়া বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের আদেশকে চ্যালেঞ্জ করে আপিল বিভাগে আবেদন করা হয়। সাবেক প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে ব্যারিস্টার কায়সার কামাল আবেদনটি দায়ের করেন।

গত ৩১ জুলাই জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ করে দেন হাইকোর্ট।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ১৭ বছরের সশ্রম দণ্ডপ্রাপ্ত হয়ে কারাবন্দী আছেন বিএনপি প্রধান। অরফানেজের মামলায় পাঁচ বছরের সাজাপ্রাপ্ত হয়ে ২০১৮ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি কারাগারে যান তিনি। পরে হাইকোর্ট সাজার মেয়াদ বাড়িয়ে ১০ বছর করে। এ রায়ের বিরুদ্ধে তার আপিল সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে বিচারাধীন রয়েছে।

গত ৬ অক্টোবর আদালতের আদেশে খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি করা হয়। ৮ নভেম্বর তাকে চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ডের অনুমোদনের পরে খালেদাকে বিএসএমএমইউ থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয় এবং নাইকো দুর্নীতি মামলায় পুরানো কেন্দ্রীয় কারাগারে একটি অস্থায়ী আদালতে হাজির করা হয়।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া বর্তমানে বিএসএমএমইউতে চিকিৎসাধীন।

ওএস/এসবি

 

আইন ও অপরাধ: আরও পড়ুন

আরও