সাগর-রুনি হত্যা মামলা তদন্তের সর্বশেষ অবস্থা জানাতে চায় হাইকোর্ট

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

সাগর-রুনি হত্যা মামলা তদন্তের সর্বশেষ অবস্থা জানাতে চায় হাইকোর্ট

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৭:০১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৪, ২০১৯

সাগর-রুনি হত্যা মামলা তদন্তের সর্বশেষ অবস্থা জানাতে চায় হাইকোর্ট

সাংবাদিক দম্পতি সাগর সারোয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যাকাণ্ড নিয়ে র‌্যাবের তদন্তে হতাশা প্রকাশের পর কাজের সর্বশেষ অবস্থা জানাতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী বছরের ৪ মার্চের মধ্যে এই প্রতিবেদন দিতে হবে র‌্যাবকে।

বৃহস্পতিবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এদিকে আজ এ হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ঢাকা মহানগর হাকিম দেবব্রত বিশ্বাসের আদালতে দাখিলের দিন নির্ধারণ সত্ত্বেও ৬৯ বারের মতো প্রতিবেদন দাখিল পেছালো।

এই মামলাটি বাতিল চেয়ে সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তারের পর জামিনে থাকা তানভীর রহমানের আবেদনের শুনানি নিয়ে এ আদেশ দেওয়া হয়।

তানভীরের করা মামলা বাতিল আবেদনের শুনানি নিয়ে গত ১১ নভেম্বর হাইকোর্ট ১৪ নভেম্বর আদেশের জন্য দিন রেখেছিলেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন। তানভীরের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী ফাওজিয়া করিম ফিরোজ।

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারে নিজেদের ভাড়া বাসা থেকে মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার এবং এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

ওই ঘটনায় রুনির ভাই নওশের আলম বাদী হয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় হত্যা মামলা করেন। পরে চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার তদন্তভার ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়। দুই মাসেরও বেশি সময় তদন্ত করে ডিবি রহস্য উদঘাটনে ব্যর্থ হয়। পরে হাইকোর্টের নির্দেশে ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল হত্যা মামলাটির তদন্তভার র‌্যাবের কাছে হস্তান্তর করা হয়। কিন্তু গত সাত বছরেও মামলার তদন্তে অগ্রগতির কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি।

এ মামলায় রুনির বন্ধু তানভির রহমানসহ মোট আট আসামিরা হলেন— বাড়ির নিরাপত্তারক্ষী এনাম আহমেদ ওরফে হুমায়ুন কবির, রফিকুল ইসলাম, বকুল মিয়া, মিন্টু ওরফে বারগিরা মিন্টু ওরফে মাসুম মিন্টু, কামরুল হাসান অরুণ, পলাশ রুদ্র পাল ও আবু সাঈদ।

আসামিদের প্রত্যেককে একাধিকবার রিমান্ডে নেওয়া হলেও তাদের কেউ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়নি।

ওএস/এসবি

 

আইন ও অপরাধ: আরও পড়ুন

আরও