আবরার হত্যায় আরো তিনজন গ্রেফতার

ঢাকা, রবিবার, ১৩ অক্টোবর ২০১৯ | ২৭ আশ্বিন ১৪২৬

আবরার হত্যায় আরো তিনজন গ্রেফতার

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৮:১২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৮, ২০১৯

আবরার হত্যায় আরো তিনজন গ্রেফতার

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডে আরো তিনজনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা ও অপরাধ তথ্য বিভাগ। এ নিয়ে আবরার হত্যাকাণ্ডে ১৩ জনকে গ্রেফতার করা হলো।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মাসুদুর রহমান শামসুল আরেফিন রাফাত (২১), মো. মনিরুজ্জামান মনির (২১) ও মো. আকাশ (২১)কে গ্রেফতার করা হয়েছে।

তিনি জানান, বিকেলে রাজধানীর ঝিগাতলা থেকে রাফাত, ডেমরা থেকে মনির ও সন্ধ্যায় ৬টায় গাজীপুরের বাইপাল থেকে আকাশকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার হওয়ার তিনজনের মধ্যে রাফাত বুয়েটের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ১৭ম ব্যাচ, মনির বুয়েটের পানিসম্পদ বিভাগের ১৬তম ব্যাচ এবং আকাশ একই ব্যাচের সিই বিভাগের ছাত্র।

সোমবার রাতে আবরার হত্যার ঘটনায় ১৯ জনকে আসামি করে বাবা বরকত উল্লাহ ঢাকার চকবাজার থানায় মামলা করেন।

এরই মধ্যে আবরার হত্যার ঘটনায় সোমবার গ্রেফতার হওয়া ১০ আসামির পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

আসামিরা হলেন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদি হাসান রাসেল, সহ-সভাপতি মুহতামিম ফুয়াদ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকার, উপ-সমাজকল্যাণ সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল, ক্রীড়া সম্পাদক মেফতাতুল ইসলাম জিওন, গ্রন্থনা ও গবেষণা সম্পাদক ইশতিয়াক মুন্না, ছাত্রলীগ কর্মী মুনতামির আল জেমি, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভীর, মোজাহিদুর রহমান, মেহেদী হাছান রবিন।

প্রসঙ্গত, আবরার বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৭তম ব্যাচের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তার বাড়ি কুষ্টিয়া জেলায়। রোববার (৬ অক্টোবর) দিনগত রাত ৮টার দিকে শের-ই বাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষ থেকে কয়েকজন আবরারকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর রাত দুইটা পর্যন্ত তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। পরে ওই হলের একতলা ও দোতলার মাঝখানের সিঁড়ি থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এইচকে/এইচআর

 

আইন ও অপরাধ: আরও পড়ুন

আরও