গ্রেফতারের পরদিনই তাসভীরের জামিন

ঢাকা, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

গ্রেফতারের পরদিনই তাসভীরের জামিন

আদালত প্রতিবেদক ৬:৫৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৯, ২০১৯

গ্রেফতারের পরদিনই তাসভীরের জামিন

রাজধানীর বনানীর এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দায়ের মামলার আসামি ভবনের অন্যতম মালিক ও কাসেম ড্রাইসেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাসভীর-উল ইসলামকে জামিন দিয়েছেন আদালত।

গ্রেফতারের একদিনের মাথায় সোমবার ঢাকা মহানগর জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ আদালতের বিচারক কেএম ইমরুল কায়েশ তাকে জামিন দেন।

দুর্নীতি দমন কমিশন রোববার তাসভীরকে গ্রেফতারের পর সোমবার আদালতে হাজির করে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক মো. আবু বকর সিদ্দিক আসামিকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন।

কুড়িগ্রাম জেলা বিএনপির সভাপতি তাসভীরের পক্ষে জামিন আবেদন করেন তার আইনজীবী এহসানুল হক সমাজী। আর দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল, মাহমুদ হোসেন জাহাঙ্গীর জামিনের বিরোধিতা করেন।

উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত আসামির জামিনের আদেশ দেন।

এই মামলার আরেক আসামি প্রকৌশলী এস এম এইচ আই ফারুককে সোমবার গ্রেফতার করেছে দুদক। রূপায়ন গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান মুকুলও মামলার আসামি।

চলতি বছরের ২৮ মার্চ এফআর টাওয়ারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ২৭ জন মারা যান।

পরে নকশা জালিয়াতির মাধ্যমে ভবনটিতে কয়েকটি তলা বাড়ানোর অভিযোগে গত ২৫ জুন তাসভীরসহ ২৫ জনের বিরুদ্ধে দুটি মামলা করেছিলেন দুদক কর্মকর্তা মো. আবু বকর সিদ্দিক।

দুদকের করা এক মামলায় রাজউকের ভুয়া ছাড়পত্রের মাধ্যমে এফআর টাওয়ারকে ১৯ থেকে বাড়িয়ে ২৩তলা করা, উপরের ফ্লোরগুলো বন্ধক দেয়া ও বিক্রি করার অভিযোগে ২০ জনকে আসামি করা হয়।

তাসভীরের বিরুদ্ধে মামলায় অভিযোগ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান জিএসপি ফাইনান্স লিমিটেড (বাংলাদেশ) থেকে ৫ কোটি ৬৫ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে অবৈধভাবে এফআর টাওয়ারের ২১, ২২ ও ২৩তলা কিনেন তিনি।

দুদকের অন্য মামলাটি করা হয়েছে এফআর টাওয়ারের ১৫ তলা পর্যন্ত নির্মাণের ক্ষেত্রে ইমারত বিধিমালা লঙ্ঘন এবং নকশা জালিয়াতির মাধ্যমে ১৮ তলা পর্যন্ত বাড়ানোর অভিযোগে।

এ মামলার পাঁচ আসামি হলেন- এফআর টাওয়ারের মালিক ফারুক, রূপায়নের লিয়াকত আলী খান মুকুল, রাজউকের সাবেক চেয়ারম্যান হুমায়ূন খাদেম, সাবেক প্রধান প্রকৌশলী মো. সাইদুর রহমান ও সাবেক অথোরাইজড অফিসার সৈয়দ মকবুল আহমেদ।

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় পুলিশের করা মামলায় এর আগে গ্রেফতার হয়েছিলেন তাসভীর-উল ইসলাম। ওই মামলায় জামিনে আছেন তিনি।

ওএস/আইএম

 

আইন ও অপরাধ: আরও পড়ুন

আরও