রেনু হত্যায় নেতৃত্ব দেয়া সেই হৃদয় গ্রেফতার

ঢাকা, ১৯ আগস্ট, ২০১৯ | 2 0 1

রেনু হত্যায় নেতৃত্ব দেয়া সেই হৃদয় গ্রেফতার

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১১:০২ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০১৯

রেনু হত্যায় নেতৃত্ব দেয়া সেই হৃদয় গ্রেফতার

ছেলেধরা সন্দেহে রাজধানীর উত্তর-পূর্ব বাড্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে তাসলিমা বেগম রেনুকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত হৃদয়কে (১৯) গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। আলোচিত এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৭ জনকে গ্রেফতার করলো পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে নারায়ণগঞ্জের ভুলতা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পূর্ব বিভাগের অবৈধ মাদক উদ্ধার ও প্রতিরোধ টিম। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপ-কমিশনার মাসুদুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

রেনু হত্যার ভিডিও ফুটেজে যাদের হত্যাকাণ্ড ঘটাতে দেখা গেছে, তাদের মধ্যে একজন ছিল নীল টি-শার্ট পরিহিত। ওই তরুণই রেনুকে পিটিয়ে হত্যার নেতৃত্ব দিয়েছিল। রেনু যখন বেধরক পিটুনি খেয়ে নিস্তেজ হয়ে স্কুল কম্পাউন্ডে পড়ে ছিল, তখনও থামেনি ওই তরুণ।

হাতে থাকা লাঠি দিয়ে রেনুর মুখে, বুকে, পেটে ও হাতে পায়ে নির্মম ও নৃশংসভাবে পিটিয়ে যাচ্ছিল। আশপাশের লোকজনের অনেকে 'থামো থামো, আর মেরো না, মরে গেছে' এসব বলে নীল শার্ট পড়া ওই তরুণকে থামানোর চেষ্টা করছিল। কিন্তু পাশবিক রূপ ধারণ করে সে তখনও রেনুকে প্রহার করে যাচ্ছিল।

রেনু হত্যায় নেতৃত্ব দেয়া নীল শার্ট পরিহিত ওই তরুণের নামই হৃদয়। স্কুলের পাশেই তার একটি সবজির দোকান ছিল। তবে পড়াশোনা না জানা হৃদয় উত্তর বাড্ডা এলাকায় বখাটে হিসেবেই পরিচিত ছিল। মাদক সেবন ও এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করতে মারামারি-কাটাকাটি করাই ছিল বখাটে হৃদয়ের কাজ।

উল্লেখ্য, গত ২০ জুলাই সকালে রাজধানীর উত্তর বাড্ডার একটি স্কুলে গেলে তাসলিমা বেগম রেনুকে ‘ছেলেধরা’ সন্দেহে প্রধান শিক্ষকের রুম থেকে টেনে বের করে গণপিটুনি দিয়ে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনায় ওইদিন রাতেই বাড্ডা থানায় অজ্ঞাত ৪-৫শ’জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন নিহতের ভাগ্নে নাসির উদ্দিন টিটু। ২১ জুলাই রাতে জাফর, শাহীন ও বাপ্পী নামে তিনজন এবং ২২ জুলাই সকালে বাচ্চু নামে আরেকজনকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার চারজনকে ২২ জুলাই আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। বিচারক তিনজনের চার দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আর জাফর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ার পর কারাগারে পাঠানো হয়। পরে সোমবার রাতে কামাল ও আবুল কালাম আজাদ নামে আরো দুইজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পিএসএস/এআরই

 

আইন ও অপরাধ: আরও পড়ুন

আরও