ঋণখেলাপি নীতিমালা কেন বেআইনি নয়: হাইকোর্ট

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ঋণখেলাপি নীতিমালা কেন বেআইনি নয়: হাইকোর্ট

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:৩১ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০১৯

ঋণখেলাপি নীতিমালা কেন বেআইনি নয়: হাইকোর্ট

মোট ঋণের ২ শতাংশ জমা দিয়ে একজন ঋণখেলাপি ১০ বছরের জন্য ঋণ পুনঃতফসিলের সুযোগ পাবেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের জারি করা প্রজ্ঞাপন কেন বেআইনি ও কর্তৃত্ববহির্ভূত হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আগামী ১০ দিনের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সংশ্লিষ্ট বিবাদীদের এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এ-সংক্রান্ত এক সম্পূরক আবেদনের শুনানি শেষে মঙ্গলবার বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রুল জারি করেন।

আগামী ৩১ জুলাই এ মামলার পরবর্তী শুনানির দিন নির্ধারণ করেছেন আদালত।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে ছিলেন মুনীরুজ্জামান।

এর আগে গত ১৬ মে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে ‘ঋণ পুনঃতফসিল ও এককালীন এক্সিট সংক্রান্ত বিশেষ নীতিমালা’ জারি করে ব্যাংকগুলোতে পাঠানো হয়। এ নীতিমালা অনুযায়ী খেলাপি ঋণের অনারোপিত সুদ মওকুফ সুবিধার পাশাপাশি খেলাপিদের বিরুদ্ধে ব্যাংকের দায়ের করা মামলা স্থগিত রাখার কথাও বলা হয়। এছাড়া আরেকটি প্রজ্ঞাপনে যারা নিয়মিত ঋণ শোধ করেন, তাদের সুদের ১০ শতাংশ রেয়াতি সুবিধা দেওয়ার কথা বলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

পরে ওই প্রজ্ঞাপনের কার্যক্রম স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। এই রিটের শুনানিতে প্রজ্ঞাপনের কার্যক্রম স্থগিত রাখাসহ একটি স্বাধীন কমিশন গঠন করার নির্দেশ দেওয়া হয়। একইসঙ্গে বিগত ২০ বছরে দেশের ঋণখেলাপি ও অর্থ পাচারকারীদের তালিকা জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। এর ধারাবাহিকতায় ঋণখেলাপিদের তালিকা আদালতে জমা দেওয়া হয়।

ওএস/এসবি

 

আইন ও অপরাধ: আরও পড়ুন

আরও