ডিসি-এসপির আগে শ্রদ্ধা নিবেদনে বাধা!

ঢাকা, বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০২০ | ৯ মাঘ ১৪২৬

ডিসি-এসপির আগে শ্রদ্ধা নিবেদনে বাধা!

যশোর ব্যুরো ৬:২৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯

ডিসি-এসপির আগে শ্রদ্ধা নিবেদনে বাধা!

শ্রদ্ধা নিবেদনের নির্ধারিত সময় সকাল ৯টা। তার আগেই অনেকে বধ্যভূমিতে সমাবেত হন। এসময় তারা শ্রদ্ধা নিবেদন করতে গেলে বাঁধা দেয় পুলিশ প্রশাসনের সদস্যরা। বলা হয়,  জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের শ্রদ্ধা  নিবেদনের আগে কাউকে সুযোগ দেওয়া যাবে না। এসময় পুলিশের ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়  মুক্তিযোদ্ধা, চিকিৎসক, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ও বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

শনিবার সকালে যশোর শহরের চাঁচড়া বধ্যভূমিতে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ শহীদ শ্রদ্ধা নিবেদনে এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে, জেলা  প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তা, মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক ও বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীরা জুতা পায়ে বধ্যভূমির বেদিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এমন কর্মকান্ডে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন সচেতন নাগরিকরা।

যশোর সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক সানোয়ার আলম খান দুলু বলেন, সকাল ৯টার আগে বধ্যভূমিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানো যাবে না এমন কোন নির্দেশনার কথা জানা ছিল না। আমরা সাড়ে ৮টার দিকে ফুল দিতে গেলে পুলিশ ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করে। সাংস্কৃতিক কর্মীরা এটাকে ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখছে না। এ রকম একটি জাতীয় দিবসে প্রশাসনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করা ঠিক হয়নি।

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন যশোর শাখার সাধারণ সম্পাদক ডা. আবুল বাশার বলেন, আমরা যশোর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ও যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কসহ ৫০/৬০ জন চিকিৎসক সকাল সাড়ে ৮টার মধ্যে বধ্যভূমিতে চলে যাই। একদিকে মেডিকেল কলেজে পরীক্ষা চলছে, অন্যদিকে সকাল ৯টার মধ্যে আমাদের হাসপাতালে ইলেকট্রনিক ডিভাইসে উপস্থিতি নিশ্চিত করতে হয়। কিন্তু পুলিশের বাধায় আমরা সময় মতো শ্রদ্ধা জানাতে পারিনি। এ কারণে আমাদের অনেকে শ্রদ্ধা না জানিয়ে ফিরে যায়।

এ চিকিৎসক নেতা বলেন, গণতান্ত্রিক দেশে এটা ঠিক নয়। জাতীয় কোন দিবসে পুলিশের এ আচরণ ঠিক নয়। আমরা প্রশাসনের কাছে জিম্মি হতে পারবো না।

ছাত্রলীগ যশোর মেডিকেল কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক সুব্রত দেবনাথ বলেন, আমাদের ক্লাস ও ডিউটি ছিল। এ জন্য সকাল ৯টার আগে বধ্যভূমিতে পৌঁছে যাই। কিন্তু আমাদের শ্রদ্ধা জানাতে দেয়া হয়নি। এসময় বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়।

মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড যশোর সদর উপজেলার সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আফজাল হোসেন দোদুল বলেন, জেলা প্রশাসনের আগে কাউকে ফুল দেয়া যাবে না- এরকম করা ঠিক হয়নি। যে যখন আসবে সে তখন ফুল দিয়ে যাবে। আর যখন প্রশাসন আসবে তখন তাদেরকে অগ্রাধিকার দেয়া যেতে পারে।

যশোর পুলিশের মুখপাত্র মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম বলেন, জেলা প্রশাসনের সভায় সিদ্ধান্ত সকাল ৯টায় শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে। জেলা প্রশাসনের কার্ডেও লেখা আছে। বধ্যভূমিতে দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা জেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করেছে। এখানে বাঁধা দেয়ার কথা নয়।

জেলা প্রশাসক শফিউল আরিফ সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘সকাল ৯টার আগে বধ্যভূমিতে কাউকে ফুল দিতে দেয়া হয়নি অথবা কেউ ফিরে গেছেন এটা জানা নেই। তবে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালনে জেলা প্রশাসন আয়োজিত প্রস্তুতিসভায় সম্মিলিত সিদ্ধান্ত ছিল সকাল ৯টায় বধ্যভূমিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হবে।’

ইআর/এসএস

 

খুলনা: আরও পড়ুন

আরও