বুড়ি ভৈরব নদের সেই স্থানে পাউবোর লাল নিশানা

ঢাকা, বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০২০ | ৯ মাঘ ১৪২৬

বুড়ি ভৈরব নদের সেই স্থানে পাউবোর লাল নিশানা

শাহরিয়ার আলম সোহাগ, ঝিনাইদহ ৭:৩৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০১৯

বুড়ি ভৈরব নদের সেই স্থানে পাউবোর লাল নিশানা

নদীর নাব্য ফিরিয়ে আনতে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার মধ্যদিয়ে বয়ে যাওয়া বুড়ি ভৈরব নদের খনন কাজ শুরু হয়েছে। এতে চরম বিপাকে পড়েছে দখলবাজেরা।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) দেয়া নির্দেশনা মোতাবেক চলছে খনন কাজ। কিন্ত নদটির গাঘেঁষা হাসিলবাগ ও মাশলিয়া এলাকার সাদিকপুর গ্রামের প্রভাবশালী সিদ্দিকুর রহমান নামের এক ব্যক্তি নদের জায়গা দখল করে পুকুর কাটলেও অদৃশ্য কারণে এড়িয়ে গেছেন খনন কাজে দায়িত্বশীলরা।

নদ খননের সময় দখল করা নদের জায়গা দখলমুক্ত করা তো দূরের কথা উল্টো নদীর জায়গার বাইরের বেশ কিছু কৃষকের জায়গা কৌশলে নদী দেখিয়ে মাটি ফেলা হয়েছে এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর।

বিষয়টি নিয়ে গ্রামবাসীদের পক্ষ থেকে পানি উন্নয়ন বোর্ডে অভিযোগ দেয়া হয়। এ নিয়ে গত সোমবার পরিবর্তন ডটকমে সংবাদ প্রকাশিত হলে টনক নড়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

এরপর সোমবার পাউবো কর্মকর্তারা খননকৃত নদের স্থান ম্যাপ অনুযায়ী মেপে দেখলেন সিদ্দিকুরের পুকুরের মধ্যে রয়েছে নদের জায়গা। কর্তৃপক্ষ স্থানটি মেপে লাল ফ্লাগ টানিয়ে দিয়েছেন। ফলে গ্রামবাসীর অভিযোগই সঠিক হলো।

পানি উন্নয়ন বোর্ড যশোর কার্যালয়ের উপসহকারী প্রকৌশলী ইনজামামুল হক রোহান পরিবর্তন ডটকমকে জানান, ‘এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে তারা খননকৃত স্থানটি সোমবার পরিমাপ করেছে। সিদ্দিুকুর নামের এক পুকুর খননকারীর খননকৃত পুকুরের প্রায় অর্ধেকটায় নদের জায়গা পাওয়া গেছে। যেখানে লাল নিশানা দেয়া হয়েছে।

তিনি এলাকাবাসীর সামনে বলে এসেছেন খুব শিগগিরই নদটি দখলমুক্ত করা হবে।

তিনি আরো বলেন, ‘বুড়ি ভৈরব নদটি ২২০ ফুটের মতো প্রশস্থ। কিন্ত খনন করা হচ্ছে মাত্র ১৪০ ফুটের মতো। কাজেই দুই ধারে আরো জমি থাকছে।’

পানি উন্নয়ন বোর্ডের এই কর্মকর্তা জানান, ‘নদটি খননের পরে কাউকে না জানিয়ে পাড়ের মাটি সরিয়ে সিদ্দিকুর তার পুকুরের পাড় বেঁধেছেন। ফলে ওই স্থানটিতে নদের জায়গা কম হয়ে গেছে। এটা সিদ্দিকুর রহমান বিরাট অপরাধ করেছেন।’

এইচআর
আরও পড়ুন...
বুড়ি ভৈরব নদ দখল করে পুকুর!

 

পরিবর্তন বিশেষ: আরও পড়ুন

আরও