এটা অবশ্যই পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড: আবরারের বাবা

ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯ | ২৯ আশ্বিন ১৪২৬

এটা অবশ্যই পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড: আবরারের বাবা

মেজবা উদ্দিন পলাশ, কুষ্টিয়া ৭:১৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৮, ২০১৯

এটা অবশ্যই পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড: আবরারের বাবা

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের মরদেহ কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার কয়া ইউনিয়নের রায়ডাঙ্গায় এলাকায় পৌঁছালে ফাহাদের বাবা বরকত উল্লাহ বলেন, ‘এটা পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। যে ছেলেটা বিকেল ৫টায় কুষ্টিয়া থেকে ঢাকায় পৌঁছাল, তাকে ৮টার দিকে নির্যাতন করার জন্য ডেকে নিয়ে যাওয়া হলো।’

তিনি বলেন, ‘আমার বাবু সোনার শরীরে অবস্থা দেখেছেন? নির্মম নির্যাতনের চিত্র। শরীরে কালো দাগ ছেপে গেছে। শুনেছি ছয় ঘণ্টা ধরে নির্যাতন চালিয়েছে ওরা, এটা অবশ্যই পরিকল্পিত।’

‘কোনো নেতার অবশ্যই ইন্ধন রয়েছে। তা না হলে দু-একজন নয়, ১৫ জনের বেশি লোক এই হত্যায় অংশ নিয়েছে। পরিকল্পনা ছাড়া এমন ঘটনা ঘটার কোনো কারণ দেখছি না।’

এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় হত্যাকারী ছাত্রলীগের সবার ফাঁসির আদেশের দাবি জানান বাবা বরকত উল্লাহ।

মঙ্গলবার সকালে লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্সটি রায়ডাঙ্গা গ্রামে পৌঁছালে সেখানে হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। আবরারের স্বজনদের সঙ্গে গ্রামবাসী তারাও কাঁদছিলেন।

মা রোকেয়া খাতুন বলেন, ‘কই আমি তো কোনো অপরাধ করিনি। তাহলে কেন আমার সন্তানকে এভাবে মেরে ফেললো ওরা। আমার বাবু সোনার অস্বাভাবিক মৃত্যু মেনে নিতে পারছি না। হত্যাকারীদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির দাবি করছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘সন্তান হারানো একজন মায়ের কাছে যে কষ্ট সেই কষ্ট যেনো হত্যাকারীদের মায়ের হয় এটাই আমার চাওয়া বলে হু হু করে কেঁদে ফেলেন তিনি।’

সোনার টুকরো ছেলে আবরার কখনোই বাবা-মার কথার অবাধ্য হতে দেখিনি। খুব নরম সভাবের এমন ছেলেকে কেন ওরা হত্যা করলো এমন নানান প্রশ্ন প্রতিবেশীদের। তবে হত্যাকারীদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির দাবি করেছেন তারা। এ সময় প্রতিবেশীদের কাঁদতে দেখা গেছে।

এদিকে এর আগে কুষ্টিয়া শহরের পিটিআই রোডস্থ আল-হেরা জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৬টায় ২য় জানাজা শেষে আবরার ফাহাদের গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ার কুমারখালী কয়া ইউনিয়নের রায়ডাঙ্গা গোরস্থানে সকাল ১০টায় তার তৃতীয় জানাজা সম্পন্ন হয়। তার কবরে মাটি দেয়া চলছে।

অপরদিকে হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে গ্রামবাসীরা।

কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মুস্তাফিজুর রহমান জানান, সুষ্ঠুভাবে আবরার দাফন সম্পন্ন হয়েছে। পরিস্থিতি এখন শান্ত রয়েছে। ঢাকায় দায়ের হওয়া মামলায় লাগলে তারা সহযোগিতা করবেন।

এইচআর

আড়ও পড়ুন...
গ্রামের বাড়িতে চিরনিদ্রায় আবরার

 

খুলনা: আরও পড়ুন

আরও