রীতির বাইরে বিয়ে করতে বরের বাড়ি গেলেন কনে

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯ | ২ কার্তিক ১৪২৬

রীতির বাইরে বিয়ে করতে বরের বাড়ি গেলেন কনে

মেহেরপুর প্রতিনিধি ১১:২৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯

রীতির বাইরে বিয়ে করতে বরের বাড়ি গেলেন কনে

বিয়ে মানে বরযাত্রী কনের বাড়ি গিয়ে খাওয়া দাওয়া শেষে কনে নিয়ে বাড়ি ফেরা। এবার যেন নতুনভাবে বিয়ে করা। কনে যাত্রীসহ বরের বাড়ি এসে বিয়ে করে নিয়ে গেলেন বরকে। এমনই এত বিয়ে হয়ে গেল মেহেরপুরের গাংনীতে। 

সকাল থেকে এমন বিয়ে নিয়ে গাংনী উপজেলার মানুষের মাঝে এক ধরনের আগ্রহ চলছিল। এমন বিয়ে দেখতে হাজারো মানুষের ভিড় জমেছিল বিয়ে বাড়িতে।

কনে চুয়াডাঙ্গা জেলার হাজরাহাটি গ্রামের কামরুজ্জামানের মেয়ে খাদিজা আকতার। বর গাংনী শহরের ওয়ার্কাস পার্টির নেতা কমরেড আব্দুল মাবুদ ছেলে তরিকুল ইসলাম।

দুপুরে কয়েকটি মাইক্রোবাস এসে থামেন বর তরিকুল ইসলামের বাড়ির গেটে গাড়ি থেকে কনের সাজে নামেন বিয়ের কনে খাদিজা ইসলাম। বরের মতোই কনে কেউ বিয়ে বাড়ির গেটে বরণ করে নেন বর পক্ষ। এরপর বিয়ে বাড়ির সামাজিক প্রথা মেনে চলে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা। বিয়ে শেষে বর নিয়ে কনের বাড়ি রওনা হন কনে পক্ষ। 

এমন বিয়ে মেহেরপুর জেলায় এই প্রথম। জানতে চাওয়া হলে বাংলাদেশ ওয়ার্কাস পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির পলিট ব্যুরোর সদস্য ও বরের পিতা আব্দুল মাবুদ বলেন, আগেকার বিয়ের রীতি ভেঙে এখানে যে ব্যাতিক্রমী বিয়ের আয়োজন করা হয়েছে তাকে আমি সাধুবাদ জানাই।

কারণ হিসেবে তিনি বলেন, নারী পুরুষের যে বৈষম্য আমাদের সমাজে রয়েছে সেটা দূর হবে যদি এমনভাবে বিয়ে হয়। তাছাড়া বিয়ে বাড়িতে এতদিন যে কনে পক্ষের একটা বিশাল খরচ হয়ে আসত সেটা দূর হবে।

তিনি বলেন, পুরুষ শাসিত সমাজে যে রীতিটা চালু হয়ে এসেছে সেটাকে ভেঙ্গে সকলে নারী-পুরুষ বৈষম্য দূর করা উচিৎ।

বরের বাবা ওয়ার্কাস পার্টির নেতা কমরেড আব্দুল মাবুদ বলেন, আমি অত্যন্ত খুশি। কারণ আমার ছেলের বিয়েতে আমি খরচ করব এখানে কনে পক্ষের খরচ যাতে না হয় এবং নারী পুরুষের মাঝে যেন কোনো বৈষম্য না থাকে এই দিক বিবেচনা করে চিরচারিত রীতির বাইরে গিয়ে এভাবে বিয়ের ব্যবস্থা করেছি।

কনে চুয়াডাঙ্গা জেলার হাজরাহাটি গ্রামের কামরুজ্জামানের মেয়ে খাদিজা আকতার অবশ্য এ রীতিটাকে স্বাগত জানিয়ে বলেন পুরুষ শাসিত সমাজে একটি বিয়েতে কনে পক্ষকে অনেক ঝামেলা পোহাতে হয়। এ বিয়ের মাধ্যমে এ রীতিটাকে ভেঙ্গে যে নতুন নীয়মে বিয়ে হচ্ছে এটাকে আমি স্বাগত জানাই।

বর তরিকুল ইসলামও এ বিয়েকে স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, এটা একটা আনন্দের খবর যে বরের বাড়িকে কনেযাত্রী এসে বরকে কনের বাড়িতে নিয়ে যাবে সেখানে আবার বউভাত না হয়ে বরভাত অনুষ্ঠান হবে।

বিষয়টি বেশ আনন্দের এবং তিনি মনে করেন পুরাতন রীতি ভেঙে এ নতুন নীয়মে বিয়ে হওয়া উচিৎ।

এআরই

 

খুলনা: আরও পড়ুন

আরও