চুয়াডাঙ্গায় কৃষকের মৃত্যু, পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

ঢাকা, ১৯ আগস্ট, ২০১৯ | 2 0 1

চুয়াডাঙ্গায় কৃষকের মৃত্যু, পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি ৫:১৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৪, ২০১৯

চুয়াডাঙ্গায় কৃষকের মৃত্যু, পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার নতুন ভান্ডারদাহ গ্রামে সানোয়ার হোসেন (৩৫) নামে এক কৃষককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

ঈদের দিন সোমবার সন্ধ্যার দিকে গ্রামের একটি চায়ের দোকানে তাকে পিটিয়ে আহত করা হয় বলে অভিযোগ পরিবারের।

পরে তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার সকালে মারা যান সানোয়ার হোসেন।

স্থানীয়রা জানান, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার নতুন ভান্ডারদাহ গ্রামের মৃত নুর হোসেন মণ্ডলের তিন ছেলে সানোয়ার, মনোয়ার ও আনোয়ার তাদের দুটি গরু বিক্রি করতে ঢাকায় নিয়ে যায়। ঢাকার উত্তরার একটি হাটে গরু দুটি ১ লাখ ৬৩ হাজার টাকায় বিক্রি হলেও টাকা চুরি হয়ে যায়। নিরুপায় হয়ে তারা ঈদের দিন বিকেলে গ্রামে ফিরে আসে।

নিহতের বড় ভাই আনোয়ার হোসেন জানান, ‘বাড়িতে ফিরে খাওয়া-দাওয়া সেরে সন্ধ্যার দিকে আমার ভাই সানোয়ার গ্রামের একটি চায়ের দোকানে বসে ছিল। এ সময় ওই চায়ের দোকানে আমাদের গরু বিক্রির টাকা চুরি যাওয়ার প্রসঙ্গটি উঠে আসে। এক পর্যায়ে গ্রামের সাইদুল নামে এক যুবক চুরি যাওয়া টাকা নিয়ে বিদ্রূপ করে আমার ভাইকেই চোর হিসেবে আখ্যায়িত করে।’

‘আমার ভাই সানোয়ার এর প্রতিবাদ করলে সাইদুল তাকে পিটাতে থাকে। এক পর্যায়ে তার বুকেও কয়েক দফায় লাথি মারে সাইদুল। এতে আমার ভাই অসুস্থ হয়ে পড়লে রাতেই তাকে দ্রুত চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করি। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকদের পরামর্শে সানোয়ারকে মঙ্গলবার সকালে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার সকালে মারা যায় সানোয়ার হোসেন।’

এদিকে, দুপুরের দিকে লাশ রাজশাহী থেকে নিজ গ্রামে পৌঁছালে উত্তেজিত হয়ে ওঠে নিহতের স্বজনরা। এ সময় সাইদুলের বেশ কয়েকজন স্বজনকে মারপিট করা হয় বলে অভিযোগ স্থানীয় সাইদুল পক্ষের লোকজনের।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জিহাদ ফকরুল খান জানান, খবর পেয়ে দ্রুত আমরা ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠাই। সেখান থেকে লাশ উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠাই।

ওসি বলেন, বিষয়টি নিয়ে গ্রামে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ রয়েছে। আমরা তদন্ত শুরু করেছি। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এইচআর

 

খুলনা: আরও পড়ুন

আরও