প্রেমের ফাঁদে ফেলে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে গণধর্ষণ, প্রেমিক গ্রেফতার

ঢাকা, বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫

প্রেমের ফাঁদে ফেলে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে গণধর্ষণ, প্রেমিক গ্রেফতার

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি ১:১২ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০১৮

print
প্রেমের ফাঁদে ফেলে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে গণধর্ষণ, প্রেমিক গ্রেফতার

চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে প্রেমের ফাঁদে ফেলে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী গণধর্ষণ করেছে তিন দৃর্বৃত্ত। ধর্ষণের সেই দৃশ্য ভিডিও ধারণ করা হয়েছে। ধর্ষণেরর পর ওই পরীক্ষার্থীর গহনাও ছিনিয়ে নেয় দৃর্বৃত্তরা।

এ ঘটনার পর স্থানীয় এলাকাবাসী ধর্ষক আরিফুল ইসলাম আরিফ (২৭) কে আটক করে পুলিশে দিয়েছে। বুধবার রাতে এ ঘটনায় জীবননগর থানায় তিন জনের নামে মামলা দায়ের হয়েছে। জীবননগর থানার অফিসার ইনচার্জ মাহমুদুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন অন্য দুই ধর্ষককেও গ্রেফতারে অভিযান চালানো হচ্ছে।

পুলিশ জানায়, জীবননগর উপজেলার আলীপুর গ্রামের মৃত আব্দুস সালামের ছেলে আরিফুল ইসলাম আরিফ (২৫) এর সাথে বছর খানেক আগে পার্শ্ববর্তী নতুন তেতুলিয়া গ্রামের ওই এসএসসি পরীক্ষার্থীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে
উঠে।

ধর্ষিতা ওই পরীক্ষার্থী জানায়, রোববার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরার সময় আরিফুল দেখা করার জন্য মোবাইলে ডেকে নেয়। এরপর দিনভর বিভিন্ন স্থানে ঘোরাঘুরির পর তাকে উপজেলার খয়েরহুদা গ্রামের একটি ভুট্টা খেতে নিয়ে ধর্ষণ করা হয়।

আরিফের ধর্ষণের পর আগে থেকেই ওত পেতে থাকা তার অপর দুই বন্ধু জুয়েল ও সিরাজুল ওই কিশোরের উপর জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে আরিফ নিজে। ধর্ষনের পর ওই পরীক্ষার্থী জ্ঞান হারালে ধর্ষকরা তার কানে ও গলায় থাকা স্বর্ণের গহনা নিয়ে পালিয়ে যায়।

ধর্ষিতার পিতা জানায়, ধর্ষনের দুই দিন পর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আরিফ গহনা ফেরত দেওয়ার কথা বলে আবারো আমার মেয়েকে দেখা করতে বলে। তার কথা মত আমার মেয়ে উপজেলার লক্ষীপুর গ্রামের একটি ব্রিজের কাছে অবস্থান নেয়। এ সময় আরিফ সেখানে আসলে স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় তাকে আটক করা হয়। এরপর ক্ষুব্ধ গ্রামবাসী প্রেমিকরুপী ধর্ষক আরিফকে গণধোলাই দেওয়া শুরু করে। খবর পেয়ে জীবননগর থানা পুলিশ ধর্ষক আরিফকে
আটক করে থানাতে নিয়ে আসে।

এ ঘটনায় বুধবার রাতে ধর্ষিতা ওই এসএসসি পরীক্ষার্থী বাদী হয়ে ধর্ষক আরিফ, জুয়েল ও সিরাজুল ইসলামের নামে জীবননগর থানায় মামলা দায়ের করে। জীবননগর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, ইতিমধ্যে এই মামলায় প্রেমিক ধর্ষক আরিফকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। অন্য দুই ধর্ষককে গ্রেফতারেও পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

আরআই/আরজি

 
.


আলোচিত সংবাদ