তাকওয়া কীভাবে অর্জন করবো?

ঢাকা, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

তাকওয়া কীভাবে অর্জন করবো?

বয়ান: হযরত মাওলানা আবদুল মালেক; অনুলিখন: এনাম হাসান ৬:৩৬ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১১, ২০১৮

তাকওয়া কীভাবে অর্জন করবো?

(হামদ-সানার পর) তাকওয়া অর্জনের সবচেয়ে মজবুত হাতিয়ার কী? তাকওয়া অর্জনের সবচেয়ে বড় হাতিয়ার ১. দুআ, ২. মুত্তাকীদের নেগরানীওয়ালা সোহবত, ৩. হিম্মত ও ৪. আল্লাহর মুহাববত। এ চারটা বিষয়। আমরা ধোঁকায় থাকি, গাফলতে থাকি, এজন্য আমাদের কাছে সবই কঠিন মনে হয়। কিন্তু যদি চিন্তা করা হয় তাহলে দেখা যাবে, এ চারটার মধ্যে সবচেয়ে কঠিন হল, হিম্মত। আবার হিম্মতের চেয়েও কঠিন হলো চেষ্টা করা। আপনার মধ্যে ন্যূনতম যে হিম্মত আছে সেটাকে কাজে লাগান এবং আরেকটু আগে বাড়ুন। ওটাকে কাজে লাগিয়ে আরেকটু আগে বাড়ার চেষ্টা করুন। তো হিম্মত অনেক শক্তিশালী নেয়ামত। শুধু একটু তাওয়াজ্জুহ দরকার।

বিভিন্ন দোষত্রুটি ত্যাগ করার ইচ্ছা মানুষ এই ভেবে বাদ দেয় যে, অভ্যাস হয়ে গেছে। অভ্যাস ত্যাগ করা খুব কঠিন। সব কঠিনের পেছনে কারণ হল, আমরা এই চার হাতিয়ার কাজে লাগাই না। শুধু একটাকে লাগাই। শুধু দুআ করি। শুধু দুআ এমন হাতিয়ার যা একা কখনো যথেষ্ট নয়।  শুধু দুআর হাতিয়ার কাজে লাগানো মানে দুআর না-শোকরি করা।

আসল দুআ তো হল, দিল হাযির রেখে আল্লাহর কাছ থেকে চেয়ে নেওয়া।

‘বলো তো কে নিরুপায় মানুষের ডাকে সাড়া দেন ‘যখন সে ডাকে’? (সুরা নামল ২৭ : ৬২)

‘ইযতিরারী হালত বা নিরুপায় অবস্থা যখন মানুষের পয়দা হবে, দিল হাযির রেখে যখন মানুষ দুআ করবে তখন যত বড় নাস্তিক হোক আল্লাহ সাথে সাথে দুআ কবুল করে নেবেন। আর এই ইযতিরারী হালত তখন পয়দা হবে, যখন আপনি অন্য সকল হাতিয়ারকে কাজে লাগাবেন। এসকল হাতিয়ার ব্যবহার করা ছাড়া ইযতিরারী হালত বা নিরুপায় ভাব পয়দা হওয়া কখনো সম্ভব না। সেজন্য শুধু এক হাতিয়ার ব্যবহার করা যেন কোনো হাতিয়ারই ব্যবহার না করা।

মুত্তাকীদের সোহবত দ্বারা কোন ধরনের সোহবত উদ্দেশ্য? সোহবত দ্বারা উদ্দেশ্য, মুত্তাকীদের সাথে এমন সম্পক যে সম্পর্কের কারণে আমার মাঝে নাড়াচাড়া পড়বে। কিন্তু আজকাল মানুষের অভ্যাস হলো -অবশ্য থানবী রাহ.-এর তাহরীকের কল্যাণে এ অভ্যাস কিছুটা কমেছে- কোনো আল্লাহওয়ালা বুজুর্গকে দেখল তো তার হাতে বাইআত হয়ে গেল। বাইআত হয়েই নিজের সম্পর্কে একেবারে খুশী । কিছু অযীফা নিয়ে এল। তারপর ওটার উপর আমল করল বা করল না। তো এটা হল মুত্তাকীদের সোহবতের একেবারে নিম্ন পর্যায়।  আসলে মুত্তাকীদের সোহবত হলো, তাঁর মজলিসে নিয়মিত বসার সৌভাগ্য যদি না-ও হয়, কিন্তু আমি যেহেতু তাঁর নেগরানি গ্রহণ করেছি, তাঁর তত্ত্বাবধান গ্রহণ করেছি, আমার হালত তাঁকে জানাব। কোনো কিছু লুকাব না। তারপর যে হেদায়েত তিনি আমাকে দেন সেই হেদায়েতের উপর আমল করব। আমল করার মধ্যে ত্রুটি হয়ে  গেলে ওটা আবার জানাব। এটা হল সোহবত। এটা যদি কাছে থেকে হয় তাহলে নূরুন আলা নূর। বাংলায় বলে সোনায় সোহাগা। খুব ভালো। আর যদি কাছে থেকে না হয়; বরং দূর থেকে হয় তাহলেও এটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ জিনিস।

(উপস্থিতিদের একজন প্রশ্ন করলেন, সত্যিকারের যারা মুত্তাকী, যাদের সোহবত আসলেই গ্রহণ করা যায়, তাদের তো কারো সাথে দেখা করারও সুযোগ নেই। কথা বলারও সুযোগ নেই। কারো প্রশ্নের জবাব দেয়ারও সুযোগ তাদের নেই। তো তাদের  সোহবত লাভের জন্য কী করণীয়? তার জবাবে তিনি বললেন,) আপনাদের কথা ঠিক আছে। কিন্তু  চেষ্টা করলে যে সময় পাওয়া যাবে না এরকম নয়। দুনিয়াতে এমন লোক অনেক আছেন, শত ব্যস্ততা থাকলেও তাদেরকে যদি আমরা আমাদের আগ্রহ দেখাতে পারি তাহলে তাদের কাছ থেকে সময় নেওয়া যাবে। আরেকটা গুরুত্বপূর্ণ উপায় হলো, চিঠি লেখা। আমাকে বলা হয়েছে, মাসে একটি চিঠি লিখতে। আমি লিখতেই থাকব। উত্তর আসুক বা না আসুক, আমাকে চিঠি লিখতে বলা হয়েছে। আমি চিঠি লিখেই যাব।

তো তাকওয়া অর্জনের চারটি হাতিয়ারের কথা বলছিলাম। এক. দুআ করা, দুই. মুত্তাকীদের নেগরানিওয়ালা সোহবত, তিন. হিম্মত, চার. আল্লাহর মহাববত।

দিলে আল্লাহর মহাববত বাড়াতে হবে। তকী ছাহেব হুযুরের ‘এসলাহী মাজালিসে’ এ বিষয়ে অনেক বয়ান আছে। সেখানে শুধু আল্লাহর মহাববতের আলোচনা । আল্লাহর মহাববত কীভাবে বাড়ানো যায়?

আল্লাহর মহাববত বাড়ানোর অনেকগুলো নোসখা, অনেকগুলো ব্যবস্থা সেখানে তিনি দিয়েছেন। সেখান থেকে যে নোসখা আমার জন্য সহজ হয় সে নোসখা মোতাবেক আমল করি।

দুনিয়াতে স্বভাবগতভাবেই মানুষের কারো না কারো প্রতি টান থাকে, দুর্বলতা থাকে। সেটার উপর কেয়াস করে (মিলিয়ে) আপনি আল্লাহর মহাববতটাকে বুঝতে পারেন।  কারো প্রতি আপনার দুর্বলতা থাকলে আপনি তার সাথে কেমন আচরণ করেন? অথচ সে মাখলুক। আপনার উপর তার যদি কোনো ইহসান থাকেও  তাহলে তা আল্লাহর তাওফীকে হয়েছে এবং ঘুরেফিরে তার সকল ইহসান আল্লাহর দিকেই যাবে। এরপরও তার প্রতি আপনার এত রেয়ায়েত, এত দুর্বলতা ! আল্লাহ রাববুল আলামীনের নেয়ামতের মধ্যে তো সেও ডুবে আছে, আপনিও ডুবে আছেন। তার প্রতি যদি আপনার এত মহাববত সৃষ্টি হয় তাহলে আল্লাহর  সাথে আপনার মহাববত কেমন হবে? কেমন হওয়া উচিত?

স্বভাবগতভাবেই মানুষের মধ্যে আল্লাহর মহাববত সবচেয়ে বেশি থাকে। কিন্তু আল্লাহর নেয়ামতের কথা স্মরণ না করার কারণে সেই মহাববত চাপা পড়ে থাকে। তো ‘ইসলাহী মাজালিসে’ আল্লাহর মহাববত বাড়ানোর  কিছু উপায়  বলা হয়েছে। যেমন, আল্লাহর  নেয়ামতের কথা স্মরণ করা। বেশি বেশি যিকির করা। কুরআন তিলাওয়াত করা। যাদের ভেতরে আল্লাহর মহাববত আছে তাদের কাছে বেশি বেশি যাওয়া। এরকম সাত আটটা উপায় সেখানে লেখা হয়েছে। এগুলোর মধ্যে যেটা আমার কাছে সহজ লাগে সেটা দিয়ে আমি আল্লাহর মহাববত বাড়ানোর চেষ্টা করতে পারি।

আল্লাহর মহাববত বাড়ানোর চেষ্টা করতে গেলেই মানুষ একটা ধাক্কা খায়। হয়ত কখনো গোনাহ হয়ে গেলে ধাক্কা যাবে। অথবা কখনো নেক আমল ছুটে গেলে ধাক্কা যাবে। এভাবে ধাক্কা খাবে একবার, দুইবার, তিনবার, চারবার। তারপরে আস্তে আস্তে ঠিক হয়ে যাবে। এটা অনেক বড়  একটা কৌশল। আল্লাহর মহাববত বাড়াতে হবে এবং মহাববতটাকে হাযির করতে হবে। অনুশীলন করতে করতে মহাববতটাকে হাযির করতে হবে। আমার আল্লাহ নারায হবেন- এই ভেবে গোনাহের কাজ থেকে বিরত থাকতে হবে। আমার মুরুববী যদি আমাকে এই কাজটা করতে দেখেন, তাহলে তিনি কী ভাবতেন? আমি কি এই কাজটা তার সামনে করতে পারতাম? অথচ মুরুববী আমার চোখের আড়ালে আর আমিও তার চোখের আড়ালে। তো একজন মুরুববীর বেলায় যখন এ কথা ভাবতে পারি তাহলে আমার আল্লাহ সম্পর্কে কি এ কথা ভাবতে পারি না? আমার আল্লাহ তো আমাকে সব সময় দেখেন। তিনি আমার চোখের আড়ালে হলেও আমি তো আল্লাহর চোখের আড়ালে না। ‘তুমি যদিও তাকে দেখ না, তিনি তো তোমাকে দেখেন’।

আরেক হাতিয়ার, হিম্মত। যতটুকু হিম্মত আল্লাহ আপনাকে দিয়েছেন তা কাজে লাগান এবং এভাবে আগে বাড়তে থাকুন। হিম্মত এমন এক শক্তি যার মোকাবেলা করার মতো অন্য কোনো শক্তি দুনিয়াতে নেই। এই যে সিগারেটের অভ্যাস। কত মানুষ সিগারেটের অভ্যাস  ছেড়ে দিয়েছে। নিয়ত করে, খাবে না, আবার শুরু করে । আবার নিয়ত করে, খাবে না, আবার শুরু করে। এভাবে শেষবার যখন বলে- নাহ্, আর খাব না। তখন আর খায় না। তো এই হিম্মতটা আল্লাহর কাছে অনেক দামী। হিম্মতের সাথে আল্লাহর রহমতের খুব বেশি সম্পর্ক। হিম্মত হলে আল্লাহর রহমত আসে। গোনাহ থেকে বাঁচার, তাকওয়া হাসিল করার যত উপায় আছে এর মধ্যে সবচেয়ে কার্যকর হলো হিম্মত করা। আল্লাহ দেখছেন, বান্দা আমার জন্যে চেষ্টা করছে।

وَمَنْ أَرَادَ الْآَخِرَةَ وَسَعَى لَهَا سَعْيَهَا وَهُوَ مُؤْمِنٌ فَأُولَئِكَ كَانَ سَعْيُهُمْ مَشْكُورًا

এ আয়াতের ‘সা‘আ লাহা’-এর দ্বারা হিম্মত বোঝানো হয়েছে। আল্লাহ তাআলা এই হিম্মতের কদর করবেন- এই ওয়াদা আল্লাহ তাআলা আগেই দিয়েছেন। বান্দা হিম্মতকে কাজে লাগালে আল্লাহ বলেন, আমি হিম্মতের শোকর করব। এজন্যে দেখা যায়, বান্দা যখন তার সর্বোচ্চ হিম্মতকে কাজে লাগায়, তখন সে সফল হয়ই। হিম্মতের সাথে আল্লাহর ওয়াদা।

চলবে...

আরও পড়ুন...
শিরক ফিল মুহাব্বাত | ভালোবাসার মধ্যে শিরক
বিপদমুক্তির নিশ্চিত পথ
তরুণদের প্রতি বার্তা : জীবনের একটি লক্ষ্য আছে
ইবাদতে নিরুদ্যমতার প্রতিকার

 

বয়ান: আরও পড়ুন

আরও