নূহ (আ.) এর মহাপ্লাবন নিয়ে তুরস্কে জাদুঘর নির্মাণ

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

নূহ (আ.) এর মহাপ্লাবন নিয়ে তুরস্কে জাদুঘর নির্মাণ

পরিবর্তন ডেস্ক ৪:০১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০২, ২০১৯

নূহ (আ.) এর মহাপ্লাবন নিয়ে তুরস্কে জাদুঘর নির্মাণ

হযরত নূহ (আ.) এর মহাপ্লাবনকে বিষয়বস্তু করে তুরস্কে এক নতুন জাদুঘর তৈরি হতে যাচ্ছে। তুরস্কের পূর্ব সীমান্তের আ’রি প্রদেশে তৈরি করা হচ্ছে এ জাদুঘর।

বিশ্বাস করা হয়, মহাপ্লাবনের সময় নূহ (আ.) তুরস্কের এই আ’রি প্রদেশের পাহাড়েই তার নৌকা ভিড়িয়েছিলেন।

আ’রি প্রদেশের গভর্নর সুলেইমান এলবান জানান, লোক বিশ্বাস অনুযায়ী আ’রি (আরারাত) পাহাড়ের উপরে নূহ (আ.) এর নৌকা থামার কারণে এ স্থানেই এ জাদুঘরটি স্থাপন করতে যাচ্ছেন তারা।

জাদুঘরের নকশা ইতোমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে এবং শীঘ্রই এর নির্মাণ কাজ শুরু হবে বলে জানান তিনি। আগামী ২০২১ সালে জাদুঘরটি দর্শকদের জন্য খুলে দেওয়া হবে বলে আশা করছেন সুলেইমান এলবান।

তিনি বলেন, ‘আমাদের এ জাদুঘরে মহাপ্লাবন ও নূহ (আ.) কাহিনীকে মানুষের কাছে বর্ণনা করাই আমাদের লক্ষ্য। সারা পৃথিবীর লোককে এ জাদুঘরে আকৃষ্ট করার জন্য আমরা কাজ করছি। আমরা ধারণা করছি জাদুঘরটি খোলার পাঁচ বছরের মধ্যে আমরা দশ লাখের মত দর্শক এখানে নিয়ে আসতে পারবো।’

হযরত আদম (আ.) এর পর পৃথিবীর প্রাথমিক যুগের মানুষের কাছে আসা প্রধানতম রাসূল ছিলেন হযরত নূহ (আ.)। তিনি দীর্ঘদিন পৃথিবীর মানুষকে আল্লাহর দ্বীনের দিকে আহ্বান করার পরও অল্প কিছু লোক ছাড়া কেউ তার দাওয়াত মেনে না নেওয়ায় আল্লাহ এক মহাপ্লাবনের মাধ্যমে অবাধ্যদের ধ্বংস করে দেন।

প্লাবনের আগে নূহ (আ.)কে আল্লাহ একটি নৌকা তৈরির আদেশ দেন। এতে তিনি আল্লাহর নির্দেশে ঈমানদার বান্দাদেরকে ও প্রত্যেক প্রাণী থেকে একটি করে জোড়া তুলে নেন। সাধারণ বিশ্বাস অনুযায়ী, মহাপ্লাবনের পর বর্তমান তুরস্ক-আর্মেনিয়া সীমান্তের আরারাত পাহাড়ে এ নৌকা অবতরণ করে।

এমএফ/ 

 

ইসলামি সংবাদ: আরও পড়ুন

আরও