২০২০ সালে শুরু হবে ঐতিহাসিক আলনুরী মসজিদের পুনর্নির্মাণ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯ | ২ কার্তিক ১৪২৬

২০২০ সালে শুরু হবে ঐতিহাসিক আলনুরী মসজিদের পুনর্নির্মাণ

পরিবর্তন ডেস্ক ৬:২৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯

২০২০ সালে শুরু হবে ঐতিহাসিক আলনুরী মসজিদের পুনর্নির্মাণ

২০১৭ সালে আইএস বিরোধী যুদ্ধে ধ্বংসপ্রাপ্ত ইরাকের মসুল শহরের ঐতিহাসিক আল-নুরী মসজিদের পুনর্নির্মাণ ২০২০ সালে শুরু হবে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের বিজ্ঞান, শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো।

প্যারিসে সংস্থাটির ডাইরেক্টর জেনারেল অদ্রে আযুলে, ইরাকের সংস্কৃতি মন্ত্রী আবদুল আমির আল-যাফর হামদানী ও মসুলের আঞ্চলিক গভর্নর মনসুর আল মারিদের সমন্বিত বৈঠকে মসজিদটির পুনর্নির্মাণ বিষয়ে আলোচনার পর এই ঘোষণা করা হয়।

বৈঠক পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে অদ্রে আযুলে সাংবাদিকদের বলেন, “আমরা একমত হয়েছি যে, আগামী ২০২০ সাল থেকে মসজিদটির পুনর্নির্মাণ কাজ শুরু হবে।” 

উল্লেখ্য যে, ২০১৪ সালে আইএসের মসুল দখলের পর গোষ্ঠীটির নেতা আবু বকর আল-বাগদাদী এই মসজিদ থেকেই সর্বপ্রথম তথাকথিত ‘খেলাফত’ রাষ্ট্রের ঘোষণা করে। এরপর ২০১৭ সালে মসুল মুক্ত করতে ইরাকি বাহিনীর অভিযানে দায়েশের সঙ্গে সংঘর্ষে মসজিদটি ধ্বংস হয়ে যায়।

ঐতিহাসিক এই মসজিদটির পুনর্নির্মাণের পাশাপাশি ইউনেস্কো পুরাতন শহরের ধ্বংসপ্রাপ্ত বিভিন্ন স্থানের সংস্কার কাজ সম্পন্নেও সাহায্য করবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

ইউনেস্কো জানায়, পুরো সংস্কার কাজের জন্য মোট ১০০ মিলিয়ন ডলারের বাজেট করা হয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাত ৫০.৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের ২৪ মিলিয়ন ডলার দেওয়ার কথা রয়েছে।

অদ্রে আযুলে বলেন, “আমরা মসুলকে একটি প্রতীক হিসেবে বাছাই করেছি কেননা সংঘাতের আগে মসুল ছিল বৈচিত্র্য ও সহনশীলতার এক শহর। সহনশীলতারও চেয়েও বেশী ছিল এ শহরে বসবাসকারী লোকেরা সম্প্রদায়, ধর্মের সীমা অতিক্রম করে একসাথে বসবাস করতো এবং একে অপরকে বুঝতো।”   

এমএফ/

 

ইসলামি সংবাদ: আরও পড়ুন

আরও